পাথরঘাটায় শেষ মুহূতের্র ঈদ বাজার

শুক্রবার, ১৫ জুন ২০১৮

অমল তালুকদার, পাথরঘাটা (বরগুনা) থেকে : বরগুনার পাথরঘাটা পৌরশহর মার্কেট এখন ক্রেতাদের ভিড়ে মুখরিত। এ উপজেলার ছোট-বড় বাজারগুলোতে শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে ঈদের কেনাবেচা। নানা বয়সের নারী-পুরুষ তাদের পছন্দের পোশাকসহ অন্যান্য জিনিসপত্র কিনতে এখন মহাব্যস্ত। মার্কেটগুলোতে দেশি পোশাকের পাশাপাশি চায়না ও ভারতীয় পোশাকের কেনাবেচা চোখে পড়ার মতো। নিজেদের পছন্দসই কাপড় কেনার জন্য ছোট-বড় সব মার্কেটেই ভিড় জমাচ্ছেন ক্রেতারা।

মেয়েদের থ্রি-পিস, সানাসফি, জিফসির দাম ২ হাজার থেকে ৬ হাজার টাকার মধ্যে বেশি বিক্রি হচ্ছে। ৭৫০ টাকা থেকে ৮ হাজার টাকা পর্যন্ত শাড়ির মূল্য রয়েছে। বাচ্চাদের জন্য শার্ট, প্যান্ট, জুতার পাশাপাশি জিন্স ও গ্যাবাডিন প্যান্টের চাহিদা বেশি। প্যান্ট বিক্রি হচ্ছে ১৩শ থেকে আড়াই হাজার টাকার মধ্যে। এদিকে ক্রেতাদের চাহিদা মেটাতে দোকানে দোকানে সাজিয়ে রাখা হয়েছে নানান ডিজাইনের লং কামিজ লেহেঙ্গাসহ নানান ডিজাইনের থ্রি-পিস এবং দেশি-বিদেশি রঙ-বেরঙের পোশাক।

তবে এবার গরমে স্বস্তির জন্য বেশিরভাগ নারী ও তরুণীদের চোখ সুতি, টাঙ্গাইল শাড়ি, কটন, হাতের তৈরি ব্রকের নকশী করা কাপড়ের দিকে। তবে দামে সাশ্রায়ী ও গরমে স্বস্তি পেতে বেশিরভাগ ক্রেতারাই এটা পছন্দ। এদিকে শুধু নারী ক্রেতাই নয় ছেলেরাও ভিড় করছেন বিভিন্ন দোকানে তাদের পছন্দের পোশাক কিনতে। বিভিন্ন দোকান ঘুরে জানা যায়, বেশিরভাগ ছেলেদের পছন্দ বিভিন্ন ব্রান্ডের পাঞ্জাবি, ফরমাল শার্ট, শেরোয়ানি, টি-শার্ট, ফিটিং শার্ট, নিত্যনতুন ডিজাইনের জিন্স, গেবাডিন প্যান্ট, বেল্ট, জুতা ও বিভিন্ন নামিদামি কোম্পানির পারফিউম।

এবারে মেয়েদের পোশাকের মধ্যে বেশি চলছে ভানুমতি, রাখিবন্ধন, গাউনের থ্রি পিস, জলপরী ও সাত ভাই চম্পা। তবে ভারতীয় গাউনের চাহিদা একটু বেশি লক্ষ করা যাচ্ছে। ঈদে কেনাকাটা করতে আসা পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা নওরীন জাহান মীম জানান, গত বছরের চেয়ে এবার নিত্যনতুন ডিজাইনের পোশাক ও শাড়ির সমাহার ঘটেছে কিন্তু দাম অনেক বেশি হওয়ায় তা মধ্যবিত্ত পরিবারের নাগালের বাইরে। আগের তুলনায় এবার সব পণ্যের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধি ঘটেছে বলে অভিযোগ করেছেন ক্রেতারা।

ঈদের কাপড় কিনতে আসা ক্রেতা জাকিয়া আক্তার বলেন, প্রতিবারই ঈদে নিত্যনতুন জামা আসে। ঘুরে ঘুরে দেখছি, পছন্দমতো কিনবো।

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj