স্টেডিয়াম পরিচিতি

শুক্রবার, ১৫ জুন ২০১৮

লুজনিয়াকি স্টেডিয়াম

২০১৮ সালের রাশিয়া বিশ^কাপের উদ্বোধনী ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে লুজনিয়াকি স্টেডিয়ামে। বিশ^কাপের ফাইনাল ম্যাচটিও অনুষ্ঠিত হবে এ স্টেডিয়ামটিতে। তাছাড়া গ্রুপ পর্বের ৪টি ম্যাচ এবং ফাইনালের পাশাপাশি শেষ ষোলোর ১টি ম্যাচ এবং সেমিফাইনালের ১টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে এ স্টেডিয়ামে। সব মিলিয়ে লুজনিয়াকি স্টেডিয়ামে এবারের বিশ^কাপের সর্বমোট ৭টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। ৮১ হাজার দর্শক ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন স্টেডিয়ামটির পূর্ব নাম ছিল সেন্ট্রাল লেনিন স্টেডিয়াম। স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ শুরু হয় ১৯৫৫ সালে। ১৯৫৬ সালের ৩১ জুলাই স্টেডিয়ামটি চালু হয়েছিল। ১৯৬৩ সালের অক্টোবরের ১৩ তারিখ সোভিয়েট ইউনিয়ন এবং ইতালির মধ্যে অনুষ্ঠিত একটি ম্যাচে ১০২৫৩৮ জন দর্শক লুজনিয়াকি স্টেডিয়ামে খেলা দেখতে উপস্থিত হয়েছিল। যা এখন পর্যন্ত স্টেডিয়ামটিতে সর্বোচ্চ দর্শক উপস্থিতি। রাশিয়ার সবচেয়ে বড় এ স্টেডিয়ামটির অবস্থান মস্কোর কামোভনিকিতে এলাকায়। যেসব স্টেডিয়ামে ২০১৮ সালের বিশ^কাপ ফুটবল অনুষ্ঠিত হবে সেগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড় হলো লুজনিয়াকি স্টেডিয়াম। উল্লেখ্য আসন্ন বিশ^কাপ ফুটবলকে সামনে রেখে পুনরায় সংস্কার করা হয়েছে লুজনিয়াকি স্টেডিয়ামকে। বিশ^কাপ ফুটবল উপলক্ষে ২০১৩ সালে স্টেডিয়ামটির সংস্কারকাজ শুরু হয় এবং কাজ সমাপ্ত হয় ২০১৭ সালে। এ কাজে খরচ হয়েছে ৩৫০ মিলিয়ন ডলার। এর আগে ২০০১ সালেও সংস্কার করা হলেছিল এ স্টেডিয়াম। এটি রাশিয়ার জাতীয় স্টেডিয়াম। দেশটির জাতীয় ফুটবল দলের অনুশীলনের জন্য ব্যবহৃত হয় এ স্টেডিয়ামটি। কেবল রাশিয়ারই নয়, ইউরোপের বড় স্টেডিয়ামগুলোর মধ্যেও অন্যতম হলো লুজনিয়াকি স্টেডিয়াম। ১৪ জুন স্বাগতিক রাশিয়া এবং সৌদি আরবের মধ্যকার গ্রুপ পর্বের ম্যাচের মধ্য দিয়ে বিশ^কাপ ফুটবলের ম্যাচ আয়োজনের সাক্ষী হবে লুজনিয়াকি স্টেডিয়াম।

রোস্তব-অন-ডন

যে কয়টি স্টেডিয়ামে রাশিয়া বিশ^কাপের ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে এর মধ্যে সৌন্দর্যের দিক দিয়ে অন্যতম রোস্তভ-অন-ডন স্টেডিয়াম। স্টেডিয়ামটির অবস্থান রোস্তভ অভলাস্টে। বিশ^কাপকে সামনে রেখে রোস্তব-অন-ডন স্টেডিয়ামের নির্মাণকাজ শুরু হয়েছিল ২০১৪ সালে। স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ এখনো চলছে। তবে বিশ^কাপের কয়েকমাস আগেই কাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। স্টেডিয়ামটির দর্শক ধারণ ক্ষমতা ৪৫ হাজার। তবে বিশ^কাপ শেষে এ সংখ্যা কিছুটা হ্রাস পাবে। ২০১৮ সালের বিশ^কাপ ফুটবলের মোট ৫টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে এ স্টেডিয়ামে। ১৭ জুন ব্রাজিল এবং সুইজারল্যান্ডের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে সুন্দর এ স্টেডিয়ামটির বিশ^কাপ যাত্রা শুরু হবে। এছাড়াও রাশিয়া বিশ^কাপের শেষ ষোলোর একটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে স্টেডিয়ামটিতে।

একটেরিনবার্গ অ্যারেনা

স্টেডিয়ামটি সেন্ট্রাল স্টেডিয়াম ইয়েকাটেরিনবার্গ নামেও পরিচিত। স্টেডিয়ামটির অবস্থান রাশিয়ার ইয়েকাটেরিবার্গের ইউলিটসা রেফিনা নামক এলাকায়। একটেরিনবার্গ স্টেডিয়ামটি নির্মিত হয় ১৯৫৭ সালে। তবে ২০০৬ সালে স্টেডিয়ামটির সংস্কারের কাজ শুরু হয় এবং সংস্কার কাজ শেষ হয় ২০১১ সালে। এরপর বিশ^কাপ উপলক্ষ্যে ২০১৪ সালে পুনরায় স্টেডিয়ামটির সংস্কার কাজ শুরু হয় এবং তা শেষ হয় ২০১৭ সালে। একটেরিনবার্গ অ্যারেনার দর্শক ধারণ ক্ষমতা ৩৫৬৯৬ জন। বিশ^কাপের ৪টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে এ স্টেডিয়ামে। ১৫ জুন মিসর এবং উরুগুয়ের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে বিশ^কাপ যাত্রা শুরু হবে স্টেডিয়ামটির।

ক্যাজান অ্যারেনা

ক্যাজান অ্যারেনা স্টেডিয়ামটির যাত্রা শুরু হয় ২০১৩ সালে। বিশ^কাপ ফুটবল উপলক্ষে ২০১০ সালে স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ শুরু হয়েছিল। স্টেডিয়ামটির অবস্থান রাশিয়ার তাতারাস্টানে। ক্যাজান অ্যারেনা স্টেডিয়ামের দর্শক ধারণ ক্ষমতা ৪৫৩৭৯ জন। স্টেডিয়ামটি নির্মাণে খরচ হয়েছে ৪৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০১৮ সালের বিশ^কাপের মোট ৫টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ক্যাজান অ্যারেনায়। ১৬ জুন ফ্রান্স এবং অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে বিশ^কাপের পথচলা শুরু হবে স্টেডিয়ামটির। রাশিয়া বিশ^কাপের কোয়ার্টার ফাইনালের ১টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে এ স্টেডিয়ামে।

নিজনি নবোগড়ড স্টেডিয়াম

মূলত ২০১৮ সালের বিশ^কাপ ফুটবল উপলক্ষেই এ স্টেডিয়ামটি নির্মাণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাশিয়া। নিজনি নবোগড়ড স্টেডিয়ামের অবস্থান রাশিয়ার ইউলিটসনা ডলসহানসকাইয়া এলাকায়। স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ শুরু হয়েছিল ২০১৫ সালে। এ স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ এখনো চলছে। তবে খুব শিগগিরই নির্মাণকাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। ২০১৮ সালের বিশ^কাপ ফুটবল উপলক্ষে তৈরি এ স্টেডিয়ামটির দর্শক ধারণ ক্ষমতা ৪৫ হাজার। রাশিয়া বিশ^কাপের মোট ৬টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে এ স্টেডিয়ামে। এরমধ্যে রয়েছে কোয়ার্টার ফাইনালের ১টি ম্যাচ। ১৮ জুন সুইডেন এবং কোরিয়া প্রজাতন্ত্রের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে যাত্রা শুরু হবে স্টেডিয়ামটির।

সামারা অ্যারেনা

সামারা অ্যারেনা স্টেডিয়ামটি কসমস অ্যারেনা নামেও পরিচিত। বিশেষ করে রামিয়ার জনগণ এ স্টেডিয়ামটিকে কসমস অ্যারেনা বলেই ডাকে। স্টেডিয়ামটির অবস্থান রাশিয়ার সামারা অবলাস্টে। মূলত বিশ^কাপ ফুটবল উপলক্ষেই নির্মাণ করা হয়েছে এ স্টেডিয়ামটি। ২০১৪ সালে নির্মাণকাজ শুরু হওয়া স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ ২০১৭ সালের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এখনো কাজ শেষ হয়নি। তবে খুব শিগগিরই স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছে নির্মাণ কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত কর্তৃপক্ষ। সামারা অ্যারেনা নামক স্টেডিয়ামটির দর্শক ধারণ ক্ষমতা প্রায় ৪৫ হাজার। স্টেডিয়ামটি নির্মার্ণে খরচ হয়েছে ৩২০ মিলিয়ন ডলার। রাশিয়া বিশ^কাপের ৬টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে এ স্টেডিয়ামে। এর মধ্যে রয়েছে কোয়ার্টার ফাইনালের একটি ম্যাচও। ১৭ জুন কোস্টারিকা এবং সার্বিয়ার মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে বিশ^কাপ যাত্রা শুরু হবে এ স্টেডিয়ামটির।

সচি স্টেডিয়াম

সচি স্টেডিয়ামটি ফিস্ট অলিম্পিক স্টেডিয়াম নামেও পরিচিত। স্টেডিয়ামটির অবস্থান রাশিয়ার ক্রাসনোডারস্কি ক্রাই এলাকায়। সচি স্টেডিয়ামটির যাত্রা শুরু হয় ২০১৩ সালে। সুন্দর এ স্টেডিয়ামটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ৭৭৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। স্টেডিয়ামটি দর্শক ধারণ ক্ষমতা ৪৭৬৫৯ জন। তবে বিশ^কাপের পর স্টেডিয়ামটির কিছু অংশের সংস্কার করা হবে। যার ফলে দর্শক ধারণ ক্ষমতা কয়েক হাজার হ্রাস পাবে বলে জানিয়েছে রাশিয়ান ফুটবল সংস্থা। ২০১৮ সালের রাশিয়া বিশ^কাপের সময় এ স্টেডিয়ামটিতে মোট ৬টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। ১৫ জুন পর্তুগাল এবং স্পেনের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে বিশ^কাপ যাত্রা শুরু হবে স্টেডিয়ামটির। এ ছাড়া বিশ^কাপের কোয়ার্টার ফাইনালের ১টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে স্টেডিয়ামটিতে।

মরডোভিয়া অ্যারেনা

২০১৮ সালের বিশ^কাপ ফুটবলকে সামনে রেখে মরডোভিয়া অ্যারেনা স্টেডিয়ামটি তৈরি সিদ্ধান্ত নিয়েছে আয়োজক দেশ রাশিয়া। তবে এখনো স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ পুরোপুরি শেষ হয়নি। মরডোভিয়া অ্যারেনা স্টেডিয়ামটির অবস্থান রাশিয়ার ভলগোগ্রাডস্কিয়াতে। বিশ^কাপ ফুটবলকে সামনে রেখে স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ শুরু হয় ২০১০ সালে। ২০১৭ সালের মধ্যে কাজ পুরোপুরি শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এখনো স্টেডিয়ামটির কিছু অংশের কাজ বাকি রয়েছে। তবে আগামী এপ্রিলের মধ্যে সম্পূর্ণ কাজ শেষ করার কথা জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। মরডোভিয়া অ্যারেনা স্টেডিয়ামটির দর্শক ধারণক্ষমতা প্রায় ৪৫ হাজার। তবে বিশ^কাপ শেষ হওয়া পর কিছু অংশের সংস্কার করা হবে। তখন এ স্টেডিয়ামটির দর্শক ধারণ ক্ষমতা হবে মাত্র ২৮ হাজার। স্টেডিয়ামটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ৩০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০১৮ সালের রাশিয়া বিশ^কাপের ৪টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে এ স্টেডিয়ামে। ১৬ জুন পেরু এবং ডেনমার্কের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে বিশ^কাপ ফুটবলের ম্যাচ আয়োজনের সাক্ষী হবে এ স্টেডিয়ামটি।

স্পার্টাক স্টেডিয়াম

স্পার্টাক স্টেডিয়ামটি অটক্রিটাই অ্যারেনা নামে পরিচিত। বিশেষ করে রাশিয়ানরা স্টেডিয়ামটিকে এ নামেই চিনে। স্টেডিয়ামটির অবস্থান রাশিয়ার মস্কোর থোসিনো অঞ্চলে। ২০১৮ সালের বিশ^কাপ ফুটবল উপলক্ষে স্টেডিয়ামটির সংস্কারের কাজ শুরু হয় ২০১০ সালে। ২০১৪ সালের ৫ সেপ্টেম্বর উদ্বোধন করা হয় স্টেডিয়ামটির। স্পার্টাক স্টেডিয়াম নির্মাণে খরচ হয়েছে ৪৩০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। স্টেডিয়ামটির দর্শক ধারণ ক্ষমতা ৪৫ হাজারেরও বেশি। তবে ২০১৮ সালের বিশ^কাপ চলাকালীন সময়ে কেবল ৪২ হাজার দর্শক বিশ^কাপের ম্যাচ দেখতে গ্যালারিতে উপস্থিত হতে পারবে। আসন্ন বিশ^কাপের মোট ৫টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে এ স্টেডিয়ামটিতে। বিশ^ ফুটবলের অন্যতম পরাশক্তি আর্জেন্টিনা এবং প্রথমবারের মতো বিশ^কাপ ফুটবলের সুযোগ পাওয়া আইসল্যান্ডের মধ্যকার ম্যাট দিয়ে বিশ^কাপ ফুটবলের ম্যাচ আয়োজনের সাক্ষী হবে এ স্টেডিয়ামটি। এছাড়া বিশ^কাপের শেষ ষোলোর একটি ম্যাচও অনুষ্ঠিত হবে স্পার্টাক স্টেডিয়ামে।

সেইন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়াম

সেইন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়ামটি ক্রেস্টবস্কাই স্টেডিয়াম নামেও পরিচিত। এ ছাড়া স্টেডিয়ামটিকে জেনিথ অ্যারেনাও বলা হয়। স্টেডিয়ামটির রাশিয়ার সেইন্ট পিটার্সবার্গ শহরের ক্রিস্টভস্কাই আইল্যান্ডে অবস্থিত। সেইন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়ামের দর্শক ধারণ ক্ষমতা প্রায় ৬৭ হাজার। স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ শুরু হয়েছিল ২০০৭ সালে এবং উদ্বোধন করা হয় ২০১৭ সালে। সেইন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়ামটি নির্মাণে খরচ হয়েছে সর্বমোট ১ বিলিয়ন ডলার। ২০১৮ সালের রাশিয়া বিশ^কাপে স্টেডিয়ামটিতে মোট ৭টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। ১৫ জুন মরক্কো এবং ইরানের মধ্যকার ম্যাচটির মধ্য দিয়ে বিশ^কাপ ফুটবলের ম্যাচ আয়োজনের সাক্ষী হবে এ স্টেডিয়ামটি। এ ছাড়া রাশিয়া বিশ^কাপের সেমিফাইনালের ১টি এবং তৃতীয়স্থান নির্ধারণের ম্যাচটিও অনুষ্ঠিত হবে সেইন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়ামে।

ভলগোগ্রাড অ্যারেনা

ভলগোগ্রাড অ্যারেনা স্টেডিয়ামটির অবস্থান রাশিয়ার ভলগোগ্রাড অঞ্চলে। আসন্ন বিশ^কাপকে সামনে রেখেই স্টেডিয়ামটি নির্মাণ করা হয়েছে। স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে ২০১৫ সালে। ২০১৭ সালের কাজ শেষ হবার কথা থাকলেও এখনো শেষ হয়নি। স্টেডিয়ামটি দর্শক ধারণ ক্ষমতা ৪৫ হাজার। ২০১৮ সালের রাশিয়া বিশ^কাপের গ্রুপ পর্বের ৪টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে এ স্টেডিয়ামে। যার মধ্যে প্রথম ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে জুনের ১৮ তারিখ। এ ম্যাচে মুখোমুখি হবে তিউনিশিয়া এবং ইংল্যান্ড। ম্যাচটি আয়োজনের মধ্য দিয়ে বিশ^কাপ ফুটবলের ম্যাচ আয়োজনের সাক্ষী হবে ভলগোগ্রাড অ্যারেনা স্টেডিয়াম। স্টেডিয়ামটি নির্মাণে খরচ হয়েছে প্রায় ৩৩৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

কিলিনিনগ্রাড স্টেডিয়াম

যে ১২টি স্টেডিয়ামে ২০১৮ সালে রাশিয়া বিশ^কাপের ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে তার মধ্যে আরেকটি স্টেডিয়াম হলো কিলিনিনগ্রাড স্টেডিয়াম। স্টেডিয়ামটির অবস্থান রাশিয়ার অন্যতম প্রসিদ্ধ অঞ্চল কিলিনিনগ্রাডে। কিলিনিনগ্রাড স্টেডিয়ামটি মূলত বিশ^কাপ ফুটবলকে সামনে রেখেই তৈরি করা হয়েছে। ২০১৬ সালে নির্মাণকাজ শুরু হলেও এখনো স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ শেষ হয়নি। তবে চলতি বছরের মার্চের মধ্যে কিলিনিনগ্রাড স্টেডিয়ামের নির্মাণকাজ শেষ হবার ব্যাপারে আশাবাদী কর্তৃপক্ষ। স্টেডিয়ামটির দর্শক ধারণ ক্ষমতা প্রায় ৩৫ হাজার। তবে বিশ^কাপ শেষে পুনরায় সংস্কার করার পর স্টেডিয়ামটির দর্শক ধারণ ক্ষমতা কমে ২৫ হাজারে নেমে আসবে। যেসব স্টেডিয়ামে ২০১৮ সালের বিশ^কাপ ফুটবলের ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে এর মধ্যে সবচেয়ে ছোট হলো এ স্টেডিয়ামটি। স্টেডিয়ামটি নির্মাণে খরচ হয়েছে ২৫৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০১৮ সালের রাশিয়া বিশ^কাপের ৪টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে এ স্টেডিয়ামে। ১৬ জুন ক্রোয়েশিয়া এবং নাইজেরিয়ার মধ্যকার ম্যাচটির মধ্য দিয়ে বিশ^কাপের ম্যাচ আয়োজনের সাক্ষী হবে কিলিনিনগ্রাড স্টেডিয়াম।

আরও সংবাদ...'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj