বিশ্বকাপের ৫০ হ্যাটট্রিক

মঙ্গলবার, ১৭ এপ্রিল ২০১৮

মুকুল মুর্শেদ :: ফিফা বিশ্বকাপ মানেই অন্যরকম একটা অনুভূতি। প্রতি মিনিটেই বুকের মধ্যে ধুকধুকানির সৃষ্টি হয়। এই বুঝি গোল হলো! ১৯৩০ সালে ফিফা বিশ^কাপের প্রথম আসর শুরু হওয়ার পর থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত মোট ২০টি আসর অনুষ্ঠিত হয়েছে। ফিফা বিশ^কাপের ২০তম আসর শেষে বিভিন্ন দেশের মোট ৪৬ জন ফুটবলার মোট ৫০টি হ্যাটট্রিক করতে সক্ষম হন। ১৯৩০ সালে বিশ^কাপে প্যারাগুয়ের বিপক্ষে প্রথম হ্যাটট্রিকটি করেন আমেরিকান ফরোয়ার্ড বার্ট প্যাটেন্ড। আর ২০১৪ সালের বিশ^কাপে সর্বশেষ হ্যাটট্রিকটি করেন সুইজারল্যান্ডের জর্ডান সাকিরি। বিশ^কাপে সবচেয়ে বেশি হ্যাটট্রিক করেছেন জার্মানির ফুটবলাররা। তারা মোট ছয়টি হ্যাটট্রিক করেন। আর্জেন্টিনার ফুটবলাররা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ চারটি হ্যাটট্রিক করেন। আর তিনবার হ্যাটট্রিক করেছে কয়েকটি দেশের খেলোয়াড়রা। দুটি বিশ^কাপে হ্যাটট্রিক করা একমাত্র খেলোয়াড় হলেন আর্জেন্টিনার সাবেক ফুটবলার গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতা। দুটি করে হ্যাটট্রিক করেন চারজন ফুটবলার। তারা হলেন- হাঙ্গেরির সান্ডার কক্সিস, ফ্রান্সের জাস্ট ফনটাইনে, পশ্চিম জার্মানির গার্ড মুলার এবং আর্জেন্টিনার ফুটবল কিংবদন্তি গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতা। এ ছাড়া যারা একটি করে হ্যাটট্রিক করেছেন তারা হলেন- বার্ট প্যাটেন্ড, গুইলেরমো স্টাবিলে, পেড্র সিয়ে, অ্যাঞ্জেলো চেইভো, এমিুন্ড কোনেন, ওলড্রিচ নেজেনডি, আর্নেস্ট উইলিমোসকি, লিওনিদাস, গুস্তাভ ওয়েটারস্টোর্ম, হ্যারি এন্ডারসন, ওস্কার মিগুয়েজ, আদেমির, ইরিচ প্রোস্ট, কার্লোস বোর্গেস, বুরহান সার্জিন, মাক্স মোররোক, থিওডর ওয়েগন্যার, জোসেফ হুগি, পেলে, ফ্লোরিয়েন অ্যালবার্ট, অ্যাসেবিও, জিওফা হার্স্ট, ডুসান বাজেভিক, আদ্রেস সাজারমাস, রব রেনসেনবিক, থিওফিলো কুবিলাস, লাসরো কিস, পাওলো রক্সি, রুমেরিজ, জিগনিউ বোনিয়েক, প্রেবেন ইলেকজার, গ্যারি লিনেকার, এগোর বেনানেভ, ইমিলিও বুট্রাগুইনো, মাইকেল, টমাস স্কুরাভ, ওলেগ সালেনকো, মিরা¯øাভ ক্লোসা, পাওলেটা, গঞ্জালো হিগুয়েন, টমাস মুলার এবং জর্ডান সাকিরি।

সান্ডার কক্সিস : সান্ডার কক্সিস হলেন হাঙ্গেরি জাতীয় দলের সাবেক স্ট্রাইকার। হাঙ্গেরির রাজধানী বুদাপেস্টে ১৯২৯ সালের ২১ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। ফুটবল ক্যারিয়ারে বার্সেলোনা, ভ্যালেন্সিয়াসহ বিভিন্ন ক্লাবের হয়ে মাঠে প্রতিনিধিত্ব করেন। কক্সিস প্রথম খেলোয়াড় যিনি একই বিশ^কাপে দুবার হ্যাটট্রিক করার গৌরব অর্জন করেন। যদিও পরবর্তীতে আরো দুজন ফুটবলার একই বিশ^কাপে দুবার হ্যাটট্রিক করেন। ১৯৫৪ সালের বিশ^কাপে মোট আটটি হ্যাটট্রিক হয়েছিল। তার মধ্যে দুটি করেন তিনি। ওই বিশ^কাপে দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে প্রথম হ্যাট্রটিক করেন কক্সিস। তার হ্যাটট্রিকের সুবাদে দক্ষিণ কোরিয়াকে ৯-০ গোলে হারায় হাঙ্গেরি। গ্রপ পর্বের ম্যাচে পশ্চিম জার্মানির বিপক্ষে দ্বিতীয় হ্যাটট্রিক করেন তিনি। এ ম্যাচে ৮-৩ গোলে জিতে হাঙ্গেরি। তবে ফাইনালে ওই পশ্চিম জার্মানির কাছেই হারে হাঙ্গেরি। ১৯৭৯ সালের ২২ জুলাই স্পেনে শেষ নিঃশ^াস ত্যাগ করেন তিনি।

জাস্ট ফনটাইনে : জাস্ট ফনটাইনে হলেন ফ্রান্সের ফুটবল জগতের উজ্জ্বল নক্ষত্র। তিনি এক বিশ^কাপে সর্বোচ্চ ১৩টি গোল করার গৌরব অর্জন করেন। ১৯৫৮ সালে এ রেকর্ড গড়েন তিনি। এই কিংবদন্তির জন্ম ১৯৩৩ সালের ২২ আগস্ট ফ্রান্সের মারকিচেন শহরে। ১৯৫৮ সালের বিশ^কাপে শিরোপা জিততে না পারলেও নিজেদের আধিপত্য ঠিকই বিস্তার করেছিল ফরাসিরা। ১৯৫৮ সালের প্রথম হ্যাটট্রিকই ছিল ফনটাইনের। প্যারাগুয়ের বিপক্ষে খেলার ২৪, ৩০ এবং ৬৭ মিনিটে গোল করে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন তিনি। ওই ম্যাচে প্যারাগুয়েকে ৭-৩ গোলে হারায় ফ্রান্স। একই বিশ^কাপে জার্মানির বিপক্ষে দ্বিতীয় হ্যাটট্রিকটি করেন ফ্রান্সের এ সাবেক ফরোয়ার্ড। ওই ম্যাচে তিনি মোট ৪টি গোল করেন তিনি।

গার্ড মুলার : জার্মানি ফুটবল দলের সাবেক খেলোয়াড় গার্ড মুলার ১৯৭০ সালে তৃতীয় খেলোয়াড় হিসেবে বিশ^কাপে দুটি হ্যাটট্রিক করেন। মুলার ১৯৪৫ সালের ৩ জুলাই জার্মানির নর্ডলিনজেন শহরে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭০ সালে গ্রুপ পর্বের ম্যাচে বুলগেরিয়ার বিপক্ষে প্রথম হ্যাটট্রিকটি করেন তিনি। ওই দিন ম্যাচে ৫-২ গোলের ব্যবধানে জেতে জার্মানি। গ্রুপ পর্বেই তিনি তার দ্বিতীয় হ্যাটট্রিক পান। এবার প্রতিপক্ষ পেরু। গার্ড মুলারের হ্যাটট্রিকে ৩-১ গোলে জিতেছে জার্মানি। তবে সেবার চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি তারা।

গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতা : আর্জেন্টিনা ফুটবল দলের সাবেক ফুটবলার গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতা একমাত্র খেলোয়াড় যিনি দুটি বিশ^কাপে হ্যাট্রটিক করার যোগ্যতা অর্জন করেন। আর্জেন্টিনার অ্যাভেলেনেদা শহরে ১৯৬৯ সালের ১ ফেব্রুয়ারি এ ফুটবল কিংবদন্তি জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৯৪ সালের বিশ^কাপে গ্রিসের বিপক্ষে প্রথম হ্যাটট্রিকটি করেন বাতিস্তুতা। পরের বিশ^কাপে অর্থাৎ ১৯৯৮ সালে জ্যামাইকার বিপক্ষে তিনি আরেকটি হ্যাটট্রিক করতে সক্ষম হন। তবে দুঃখজনক ব্যাপার হলো এ দুটি বিশ^কাপের কোনো আসরেই শিরোপা জেতেনি আর্জেন্টিনা।

গ্যালারি'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj