ক্যারিয়ারের পরিকল্পনার ৪ ধাপ

রবিবার, ১১ মার্চ ২০১৮

মনের মধ্যে আসতেই পারে যে ক্যারিয়ার পরিকল্পনা বলতে আসলে কী বুঝায়। সহজভাবে বলতে গেলে ক্যারিয়ার নিয়ে পরিকল্পনা হলো নিজেকে জানা, নিজের সম্ভাবনা সম্পর্কে জানা এবং কোনো পেশায় স্বাচ্ছন্দ্য পাওয়া যায়, সেটি খুঁজে বের করে সেভাবে কাজ করা। এর পাশাপাশি নিয়মিতভাবে নতুন কিছু শেখা আর সে অনুপাতে পেশাগত জীবনে পরিবর্তন আনাও ক্যারিয়ার পরিকল্পনারই অংশ বিশেষ।

স্বল্পমেয়াদি পরিকল্পনা

সাধারণত এক বছর থেকে শুরু করে পাঁচ বছর সময়ের জন্য শর্ট টার্ম বা স্বল্পমেয়াদি ক্যারিয়ার পরিকল্পনা তৈরি করা হয়ে থাকে। মূলত এই স্বল্প সময় কাজের অভিজ্ঞতা থেকে এমন কিছু লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয় যা ভবিষ্যতে বাস্তবায়ন করা সম্ভব। এ ক্ষেত্রে ক্যারিয়ার পরিকল্পনা করার আগে সব ধরনের চাপ থেকে নিজেকে মুক্ত রাখতে হবে।

দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা

পাঁচ বছর কিংবা এর থেকে বেশি সময়ের জন্য দীর্ঘমেয়াদি ক্যারিয়ার পরিকল্পনার প্রয়োজন পড়ে। বর্তমানে সব কিছুই প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল। আর তাই আজকে যে পরিকল্পনা গ্রহণ করছেন, আজ থেকে কয়েক বছর পর সবকিছু সেভাবে নাও চলতে পারে। এ ক্ষেত্রে ক্যারিয়ার পরিকল্পনা করতে গেলে বেশ কিছু বিষয় খেয়াল রাখার প্রয়োজন পড়ে।

সফল পরিকল্পনা

একটি সফল ক্যারিয়ারের মূল শর্ত হলো নিজেকে জানা, নিজের ক্ষমতা সম্পর্কে জানা। কোনো কাজটি করতে ভালো লাগে, কোনো কাজে দক্ষ, এ সব বিষয়ে ওয়াকিবহাল থাকতে হবে। ক্যারিয়ার পরিকল্পনার একেবারেই শুরুতেই ঠিক করতে হবে কোথা থেকে শুরু করতে চান। আর এই বিষয়টি নির্ভর করছে এখন কোথায় আছেন, নিজেকে কোথায় নিয়ে যেতে চান এবং আপনি কীভাবে সেই লক্ষ্যে পৌঁছাতে চান তার ওপর। এরপর নিজের আগ্রহ এবং কোনো কাজে ভালো দক্ষতা আছে, সেগুলো জানতে হবে। এই ধাপে কাজ হলো বিভিন্ন ধরনের পেশা সম্পর্কে ধারণা লাভ করা এবং সেগুলো সম্পর্কে খোঁজখবর নেয়া।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj