টুকি-টাকি

শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

কংগ্রেসে বক্তব্য ন্যান্সি পেলোসির নতুন রেকর্ড

কাগজ ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে বক্তৃতার নতুন রেকর্ড সৃষ্টি করেছেন মার্কিন রাজনীতিক ন্যান্সি পেলোসি। তিনি আট ঘণ্টা ধরে যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসী হয়ে আসা নাগরিকদের গল্প বলেছেন বলে খবর বিবিসির।

ন্যান্সি দীর্ঘদিন ধরেই শিশু বয়সে যুক্তরাষ্ট্রে আসা অনিবন্ধিত অভিবাসীদের পক্ষে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন, যারা ‘ড্রিমার’ নামেই বেশি পরিচিত। চলতি সপ্তাহের বাজেট সমঝোতায় ড্রিমারদের সুরক্ষার বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করতে চান তিনি।

বিবিসি জানায়, নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের সংখ্যালঘু অংশের নেতা ন্যান্সি বুধবার সকাল ১০টা ৪ মিনিটে তার বক্তব্য শুরু করেন, যা সন্ধ্যার আগে শেষ হয়নি। শিশু বয়সে আসা ড্রিমাররা বারাক ওবামার আমলে হওয়া ‘ডেফার্ড অ্যাকশন ফর চাইল্ডহুড অ্যারাইভালস’ বিধানের আওতায় যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসের সুযোগ পেয়ে আসছিল। গত বছর ট্রাম্প ওই বিধান বাতিল করে দেন। আইনপ্রণেতাদের উদ্দেশে ন্যান্সি বলেন, প্রতিদিন সাহসী দেশপ্রেমিক ড্রিমাররা তাদের বসবাসের অনুমতি হারাচ্ছে, প্রতিদিন আমেরিকান স্বপ্ন নাগাল থেকে আরেকটু দূরে সরে যাচ্ছে। কংগ্রেসের সদস্য হিসেবে আমাদের নৈতিক দায়িত্ব ড্রিমারদের সুরক্ষায় কাজ করা, যারা কাগজপত্র ছাড়াই আমাদের জাতি ও আমেরিকানদের সবক্ষেত্রে গর্বিত করে যাচ্ছে।

এরপর তিনি বিতাড়নের মুখে পড়া কয়েক ডজন অভিবাসীর জীবনকাহিনী কংগ্রেস সদস্যদের শোনান।

কয়েক ঘণ্টা ধরে দেয়া বক্তৃতার সময় ন্যান্সির খুবই অল্প পরিমাণ পানি পান এবং চার ইঞ্চি লম্বা হিল জুতা পরে দাঁড়িয়ে থাকার বিষয়টিও অনেক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীর নজর কেড়েছে।

ডেমোক্রেট দলের সদস্য ও সমর্থকরা ন্যান্সির বক্তৃতার সময় টুইটে ‘গো ন্যান্সি গো হ্যাশট্যাগ’ লিখে তাকে অভিবাদন জানায় বলে খবর বিবিসির। রিপাবলিকানরাও একই হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে ডেমোক্রেট নেত্রীর সময়ক্ষেপণের সমালোচনা করেছেন।

প্রতিনিধি পরিষদের কোনো সদস্যের বক্তব্য সংক্ষেপ করার নানান কৌশল থাকলেও সংখ্যালঘু অংশের নেতা হিসেবে ন্যান্সি চাইলে যতক্ষণ খুশি ততক্ষণ বক্তৃতা দেয়ার অধিকার রাখেন। ন্যান্সি যখন তার বক্তৃতা শেষ করে আসনে বসছিলেন তখন পরিষদে উপস্থিত ডেমোক্রেট সদস্যরা তখন উল্লাস ও করতালিতে মত্ত হন।

পরে প্রতিনিধি পরিষদের ইতিহাসবিদের দপ্তর ন্যান্সির বক্তৃতাকে মার্কিন নিম্নকক্ষের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ বক্তৃতা হিসেবে অভিহিত করে; এটি ১৯০৯ সালে চাম্প ক্লার্কের দেয়া ৫ ঘণ্টা ১৫ মিনিটের বক্তৃতাকে ছাড়িয়ে গেছে।

আরেক দফা ‘সরকার অচল’ এড়াতে ভূমিকা রাখবে দুই বছরের জন্য এমন একটি বাজেট সমঝোতা নিয়ে রিপাবলিকান ও সিনেট নেতাদের আলোচনার মধ্যে ন্যান্সি এ বক্তৃতা দিলেন। অভিবাসনসহ বেশ কয়েকটি বিষয়ে মতদ্বৈধতা নিয়ে ডেমোক্রেট ও রিপাবলিকানদের মধ্যে বাজেট সমঝোতার এ আলোচনা চলছে।

দুপক্ষের সর্বশেষ সমঝোতায় ড্রিমারদের সুরক্ষায় সুনির্দিষ্ট কোনো ব্যবস্থা নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়নি, তাই ন্যান্সির মতো অসংখ্য ডেমোক্রেট ওই সমঝোতার বিরোধিতা করেছিলেন।

আবারো অচল যুক্তরাষ্ট্র সরকার

কাগজ ডেস্ক : সরকারের অর্থ বরাদ্দ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সিনেট একটি অস্থায়ী বাজেট প্রস্তাবে অনুমোদন দিলেও তা দ্বিতীয়বারের মতো অচলাবস্থা সৃষ্টি আটকাতে পারেনি।

সীমান্ত নিরাপত্তা ও অভিবাসন প্রশ্নে রিপাবলিকান ও ডেমোক্রাটদের মধ্যে সমঝোতা না হওয়ায় জানুয়ারিতে সরকারের অর্থ বরাদ্দ বিল মার্কিন সিনেটে আটকে গিয়েছিল। যার ফলে গত ২০ জানুয়ারি থেকে ফেডারেল সরকারের কার্যক্রম অচল হয়ে পড়েছিল। যদিও তিনদিন পর ফেডারেল বাজেট নিয়ে সিনেট একটি সাময়িক চুক্তিতে উপনীত হলে ওই অচলাবস্থার কেটে যায়। কিন্তু ওই চুক্তিতে মোট ১৯ দিনের জন্য ফেডারেল বাজেট বরাদ্দে সম্মত হয়েছিলেন সিনেটরা। ৮ ফেব্রুয়ারি মধ্য রাতে যে সময় শেষ হয়ে যায় এবং এবারো মতৈক্যে পৌঁছাতে পারেননি রিপাবলিকান ও ডেমোক্রাট সিনেটররা। যে কারণে দ্বিতীয়বারের মতো অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ‘পার্সোনাল ম্যানেজমেন্ট’ কার্যালয় থেকে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বৃহস্পতিবার মধ্যরাতের পর শুক্রবার তাদের কাজে যাওয়ার বিষয়ে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানে আগেই খোঁজ নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

নতুন বাজেট চুক্তি সিনেটে ৭১-২৮ ভোটে অনুমোদন পেয়েছে। যার অর্থ এটা এপর হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভে (নি¤œকক্ষ) যাবে এবং সেখানে ভোট হবে।

যদি শুক্রবার ভোরের আগেই সিনেটের পাঠানো বাজেট প্রস্তাব হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভে অনুমোদন পায় তবে কেন্দ্রীয় সরকারের কার্যক্রম বিশেষ কোনো বাধা ছাড়াই চলবে।

আর যদি তা না হয় তবে কার্যত অচলাবস্থার সৃষ্টি হবে।

ইসরায়েলি সেনাকে চড় : জোরালো হচ্ছে তামিমির মুক্তির দাবি

কাগজ ডেস্ক : ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর গালে থাপ্পড় মেরে কারাবন্দি ফিলিস্তিনের ১৭ বছর বয়সী কিশোরী আহেদ তামিমির মুক্তির দাবি অনলাইনে জোরালো হচ্ছে। ইসরায়েলি সামরিক কারাগারে বন্দি তামিমির মুক্তির দাবিতে এখন পর্যন্ত প্রায় ১৭ লাখ মানুষ একটি অনলাইন পিটিশনে স্বাক্ষর করেছেন।

ইসরায়েলি কারাগারে বন্দি তামিমিসহ ফিলিস্তিনি সব শিশুর মুক্তির দাবিতে গত ডিসেম্বরের শেষের দিকে অনলাইন স্বাক্ষর কর্মসূচি শুরু করেন ওই কিশোরীর বাবা বাসিম। পিটিশনে বলা হয়েছে, ইসরায়েলি কারাগারে বন্দি আহেদ ও অন্যান্য শিশুরা : আমরা তোমাদের পাশে আছি, তোমরা আমাদের হৃদয়ে আছো। তোমরা মুক্তি না পাওয়া পর্যন্ত আমরা ছাড়বো না। তোমরা একা নও।

গত ১৯ ডিসেম্বর রাতে রামাল্লার উত্তরাঞ্চলের নবি সালেহ গ্রামের বাড়ি থেকে আহেদ তামিমিকে ধরে নিয়ে যায় ইসরায়েলি সেনাবাহিনী। ইসরায়েলি এক সেনাকে চড় মারার অপরাধে ফিলিস্তিনি ওই কিশোরীকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সেনাবাহিনীর সদস্যকে চড় মারার ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে ছড়িয়ে পড়ে।

ভিডিওতে পশ্চিম তীরের আল নাবি সালেহ নামের একটি ছোট গ্রামে দুই ইসরায়েলি সেনার মুখোমুখি হতে দেখা গেছে। ভিডিওতে ইসরায়েলি সেনাদের চড়, লাথি, আঘাত করতে দেখা গেছে আল তামিমিকে।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj