পড়বে না মোর পায়ের চিহ্ন

বৃহস্পতিবার, ১ জুন ২০১৭

সময়ের পরিক্রমায় সাতটি আসর পার হয়ে আটে পা রাখছে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি। এর মধ্যে অনেক কিছুর পরিবর্তন ঘটেছে। খেলার ধরন, নিয়ম-কানুন ইত্যাদিতে এসেছে নতুনত্ব। এ সবকিছুর মতোই প্রতিটি দলে যোগ হয়েছে নতুন মুখ। নবীনদের জায়গা দিয়ে সরে গেছে পুরনোরা। এবারের আসরেও এমন কিছু খেলোয়াড় আছেন যাদের হয়তো আর কোনো চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে দেখা যাবে না। বয়সের কারণে নিজেরাই হয়তো সরে দাঁড়াবেন। এমন কিছু তারকাদের নিয়ে আমাদের এ আয়োজন।

মাশরাফি বিন মর্তুজা (বাংলাদেশ)

বাংলাদেশ তারকা মাশরাফি বিন মর্তুজার বর্তমান বয়স ৩৩ বছর। আগামী ৪ বছর পর তার বয়স ৩৭-এ পৌঁছাবে। টাইগার অধিনায়কের হাঁটুর যে অবস্থা তাতে করে সামনের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলবেন কিনা, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। অনেকেই মনে করছেন ২০১৯ বিশ্বকাপ খেলেই অবসরে যাবেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের অন্যতম সেরা এ আইকন। কেননা, ইতোমধ্যে টেস্ট এবং টি-টোয়েন্টি থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন তিনি। ফলে টাইগার অধিনায়কের ভক্ত যারা আছেন তারা বেশ মনোযোগ দিয়ে দেখে নিতে পারেন মাশরাফির পারফরমেন্স। কে জানে, হয়তো পরের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে তিনি গ্যালারিতে থাকবেন। মাশরাফি বাংলাদেশের হয়ে প্রথম মাঠে নামেন সাদা পোশাকে। এ সময় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২০০১ সালে দেশের প্রতিনিধিত্ব করেন তিনি। একই বছর তার ওয়ানডে অভিষেক হয় এবং ২০০৬ সালে টি-টোয়েন্টি খেলা শুরু করেন ৩৩ বছর বয়সী তারকা।

যুবরাজ সিং (ভারত)

শুধু ভারত নয়; ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় তারকা যুবরাজ সিং। বর্তমানে তার বয়স ৩৫ বছর। ফলে চার বছর পর আবার তিনি এ টুর্নামেন্টে মাঠে নামবেন কিনা সেটা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে। আর এ কারণে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির এবারের পারফরমেন্স নিশ্চয়ই ভুলতে চাইবে না তার ভক্তরা। এমনকি টুর্নামেন্টের স্মৃতি হয়তো সংরক্ষণ করতে চাইবেন অনেকেই। যুবরাজ সিং দেশের হয়ে খেলা শুরু করেন ২০০০ সালে। কেনিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে রঙিন জার্সিতে যাত্রা শুরু হয় তার। এর ৩ বছর পর সাদা জার্সিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো খেলতে নামেন এ তারকা। যুবরাজ ভারতের হয়ে এখন পর্যন্ত ২৯৬টি ম্যাচ খেলেছেন। এর মধ্যে ১৪টি সেঞ্চুরি ও ৫২টি হাফ সেঞ্চুরিতে তার মোট রান ৮ হাজার ৫৪০।

মোহাম্মদ হাফিজ (পাকিস্তান)

পাকিস্তানি অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজের বর্তমান বয়স ৩৬ বছর। দীর্ঘদিন ধরে দেশের হয়ে খেলে যাচ্ছেন তিনি। সামনের দু-একবছর খেললেও চার বছর পর হয়তো আর মাঠে দেখা যাবে না তাকে। ফলে এটাই হতে পারে তার শেষ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি। হাফিজ দেশের হয়ে খেলা শুরু করেন ওয়ানডে দিয়েই। ২০০৩ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৫০ ওভারের ম্যাচে প্রথম মাঠে নামেন তিনি। এর কয়েক মাস পর বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক হয় তার। পাকিস্তানি এ অলরাউন্ডার এখন পর্যন্ত ১৮০টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন। এর মধ্যে ১১টি শতক ও ২৯টি অর্ধশতকে তার মোট রান ৫ হাজার ৪৮৪। এ ছাড়া বল হাতে ১২৯টি উইকেট তুলে নিতে সক্ষম হন তিনি। মোহাম্মদ হাফিজ ছাড়া শোয়েব মালিক, আজহার আলী এবং ওয়াহাব রিয়াজেরও এটাই হতে পারে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে শেষ অংশগ্রহণ।

লিয়াম প্লাঙ্কেট (ইংল্যান্ড)

ইংলিশ অলরাউন্ডার লিয়াম প্লাঙ্কেটের বর্তমান বয়স ৩২ বছর। যে কারণে চার বছর পর পরিবর্তনশীল স্কোয়াডে তিনি জায়গা পাবেন কিনা সেটা নিয়ে সংশয় থেকে যাচ্ছে। কাজেই প্লাঙ্কেট ভক্তরা এই আসরের কিছু স্মৃতি তুলে রাখতে পারেন। প্লাঙ্কেট দেশের হয়ে খেলা শুরু করেন টেস্টের মধ্য দিয়ে। ২০০৫ সালের নভেম্বর মাসে সাদা পোশাকে প্রথম মাঠে নামেন তিনি। এর পরের মাসেই রঙিন জার্সিতে খেলা শুরু করেন এ তারকা। লিয়াম প্লাঙ্কেট দেশের হয়ে ১৩টি টেস্ট খেলে মাত্র ২৩৮ রান সংগ্রহ করেন এবং মোট উইকেট তুলে নেন ৪১টি। অন্যদিকে ওয়ানডেতে ৫১ ম্যাচ থেকে ৪৮৩ রানের পাশাপাশি ৭৬ উইকেটের মালিক এ তারকা।

জন হেস্টিংস (অস্ট্রেলিয়া)

অস্ট্রেলিয়ান বোলার জন হেস্টিংসের বর্তমান বয়স ৩১ বছর। তার ওপর নিয়মিত তিনি দলে সুযোগও পান না। সর্বশেষ রঙিন জার্সিতে এ তারকা মাঠে নেমেছিলেন ২০১৬ সালের ৯ অক্টোবর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে। দীর্ঘদিন পর আবার চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি উপলক্ষে দলে ডাক পেলেন। তারপর অনিশ্চিয়তা একটা রয়েই যাচ্ছে। এ সিরিজের পর আবার তিনি সুযোগ পাবেন কিনা, সেটা সময়ই বলে দেবে। তবে চার বছর পর চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে তাকে দেখা যাবেনা বলে সহজেই অনুমান করা যায়। হেস্টিংস দেশের হয়ে খেলা শুরু করেন ২০১০ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডের মধ্য দিয়ে। এরপর আরো ওয়ানডে খেললেও অস্ট্রেলিয়ার হয়ে একবারই সাদা পোশাকে মাঠে নামার সুযোগ হয় তার। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সেই টেস্টে তিনি মাঠে নামেন ২০১২ সালে।

জিতান প্যাটেল (নিউজিল্যান্ড)

নিউজিল্যান্ডের অফ স্পিনার জিতান প্যাটেলের বর্তমান বয়স ৩৭ বছর। ২০০৫ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে অভিষেক হলেও জাতীয় দলে নিয়মিত ডাক পান না তিনি। সে কারণেই কিনা এত বছরের ক্যারিয়ারে দেশের হয়ে মাত্র ৪২টি ওয়ানডেতে মাঠে নেমেছেন এ তারকা। বয়সের ভারে অনেকটা নুয়ে পড়া এ তারকা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলবে না বলেই ধরে নেয়া যায়। অন্যদিকে নিউজিল্যান্ডের বর্তমান উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান লুক রঞ্চির বয়স ৩৬ বছর। কাজেই ৪০ বছর বয়সে তিনিও মাঠে নামবেন না বলেই ধরে নেয়া হচ্ছে। রঞ্চি দেশের হয়ে এখন পর্যন্ত ৭৮টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন। এগুলোর মধ্যে ১টি শতকসহ ৩টি অর্ধশতক রয়েছে তার। এ ছাড়া অন্যতম জনপ্রিয় কিউই তারকা রস টেলরের বর্তমান বয়স ৩৩ বছর। যে কারণে আগামী চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে অনুপস্থিত থাকতে পারেন তিনিও। টেলর একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে এখন পর্যন্ত ১৭টি সেঞ্চুরি এবং ৩৩টি হাফ সেঞ্চুরি করেছেন।

নুয়ান কুলাসেকারা (শ্রীলঙ্কা)

শ্রীলঙ্কার অন্যতম সেরা বোলার নুয়ান কুলাসেকারার বর্তমান বয়স ৩৪ বছর। ফলে আরো চার বছর পর ক্রিকেট খেলাটা কঠিন হয়ে উঠতে পারে তার জন্য। এ কারণেই চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির পরবর্তী আসরে তিনি খেলবেন না বলে অনুমান করা হচ্ছে। কুলাসেকারা দেশের হয়ে খেলা শুরু করেন ওয়ানডের মধ্য দিয়ে। ২০০৩ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে নামেন তিনি।

:: সাদিয়া ইসলাম রূম্পা

আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি-২০১৭'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj