ফেসবুককে রাজতন্ত্রবিরোধী পোস্ট সরাতে বলেছে থাই সরকার

শনিবার, ১৩ মে ২০১৭

কাগজ ডেস্ক : ফেসবুক কর্তৃপক্ষকে থাইল্যান্ডের রাজতন্ত্রের সমালোচনামূলক সব ধরনের পোস্ট সরিয়ে নিতে বলা হয়েছে, নতুবা আইনি ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে থাই সরকার। বিবিসির জানায়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুককে এ জন্য আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে। যদিও ফেসবুক কর্তৃপক্ষ থাই সরকারের অনুরোধ বিবেচনা করবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে। তবে স্থানীয় আইন মেনে চলবেন বলে তারা জানিয়েছেন। থাইল্যান্ডে কঠোর রাষ্ট্রদ্রোহিতা আইনে রাজতন্ত্রের যেকোনো ধরনের সমালোচনায় বিচারের মুখোমুখি হতে হবে। দোষী সাব্যস্ত হলে সর্বোচ্চ ১৫ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে। যে কেউ যে কারো বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা করতে পারবে।

বর্তমান সামরিক সরকার ক্ষমতায় আসার পর এখন পর্যন্ত শতাধিক থাই নাগরিককে এ অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে সাত জনকে গতমাসে দোষী সাব্যস্ত করা হয়।

দোষীদের মধ্যে একজন আইনজীবীও রয়েছেন এবং তাকে সর্বোচ্চ ১৫ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

এ ছাড়া ২০১৫ সালে ফেসবুকে প্রয়াত রাজা ভূমিবল আদুলিয়াদেজ প্রিয় কুকুরকে নিয়ে বিদ্রƒপ করে একটি ছবি পোস্ট করায় এক ব্যক্তিকে ১৫ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়। ২০১৪ সালে অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসা থাইল্যান্ডের সেনা সরকার কঠোর হস্তে রাজতন্ত্রের সমালোচনা দমন করছে। এ কারণে প্রায় হাজারখানেক ওয়েবসাইট নিষিদ্ধ করা হয়েছে। রাজতন্ত্রের সমালোচনামূলক পোস্ট শেয়ার এমনকি লাইক দেয়ার কারণেও লোকজনকে গ্রেপ্তার করে বিচারের মুখোমুখি করা হয়েছে।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ এরই মধ্যে কয়েকটি পাতা বন্ধে সহযোগিতা করেছে বলে বিবিসিকে জানিয়েছে থাইল্যান্ডের জাতীয় সম্প্রচার ও টেলিযোগাযোগ কমিশন। গত বছর থাইল্যান্ডের উপপ্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, অনলাইনে থাই রাজতন্ত্রের অসম্মান করে দেয়া পোস্ট সরিয়ে নিতে সহায়তায় রাজি হয়েছে সার্চ ইঞ্জিন গুগল।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj