ব্যাংকক হসপিটাল- থাইল্যান্ডের চিকিৎসা প্রযুক্তির শীর্ষে

শুক্রবার, ২৬ আগস্ট ২০১৬

মিসেস আহমেদ তার ভাই সেলিমের কাছে জানতে চাইলেন, থাইল্যান্ডের সবচেয়ে ভালো হসপিটাল কোনটি? তিনি তার স্বামীর হার্টের অবস্থা সম্পর্কে খুবই চিন্তিত। জনাব আহমেদ হার্টের অত্যন্ত জটিল সমস্যায় ভুগছেন। তার জীবন রক্ষার জন্য সব ধরনের চেষ্টা করছেন তার পরিবার। তারা বাংলাদেশের দুজন সর্বোচ্চ মানের বিশেষজ্ঞ এবং ভারতের দুটি হসপিটালের পরামর্শ নিয়েছেন। কিন্তু তার অবস্থার কোনো উন্নতি হচ্ছে না। তাই মিসেস আহমেদ তার ভাই সেলিম সাহেবের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। সেলিম সাহেব অনেকদিন ধরে ব্যাংককে থাকেন। খুব তাড়াতাড়ি আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে সেলিম সাহেব বললেন, ‘অবশ্যই ব্যাংকক হসপিটাল। হ্যাঁ, এটিই থাইল্যান্ডের প্রাইভেট হসপিটালগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ভালো।

এটাই যে থাইল্যান্ডের সবচেয়ে ভালো হসপিটাল- তুমি কি করে জানো? পূর্ণ আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে সেলিম সাহেব বললেন, -থাইল্যান্ডে ব্যাংকক হসপিটালের সঙ্গে যুক্ত ‘ব্যাংকক হার্ট হসপিটাল’- হার্টের অসুখের চিকিৎসায় নিবেদিত একমাত্র প্রাইভেট হসপিটাল। এখানে রয়েছে সর্বোচ্চ মানের বিশেষজ্ঞ এবং প্রযুক্তি। হার্টের চিকিৎসায় এমন কিছু উন্নতমানের ও আধুনিক প্রযুক্তি এই হসপিটালে রয়েছে যা থাইল্যান্ডের আর কোনো হসপিটালে নেই। সে জন্য পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে জটিল ও মারাত্মক হৃদরোগে আক্রান্ত রোগীরা এখানে চিকিৎসা নিতে আসেন। দ্বিতীয়বার করোনারি আর্টারি বাইপাস সার্জারির জন্য ব্যাংকক হসপিটাল বিখ্যাত।

মিসেস আহমেদ জানতে চাইলেন, ব্যাংককের অন্যান্য হসপিটাল সম্পর্কে। ‘ও আপা, আমি প্রায়ই আমার আত্মীয়-স্বজনের চিকিৎসা নেয়ার জন্য বিভিন্ন হসপিটালে যাই। এখানে কিছু ভালো মানের হসপিটাল রয়েছে। যেমন সামিতাভেজ, বামরুনগ্রাদ, পিয়াথাই, পিয়াভেট। কিন্তু কোনোটি ব্যাংকক হসপিটালের সঙ্গে তুলনীয় নয়’ বললেন সেলিম সাহেব।

থাইল্যান্ডের হসপিটাল সম্পর্কে আরো গভীরভাবে জানার জন্য আমি ব্যাংকক হসপিটালের ইন্টারনাল মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. শক্তি পালের সঙ্গে কথা বলি। তিনি থাইল্যান্ডে একমাত্র বাংলাদেশি মেডিকেল প্র্যাক্টিশনার। আমি আলোচনা শুরু করলাম এভাবে- ‘আপনি কত বছর থাইল্যান্ডে আছেন?’ ‘৩৫ বছর’- বললেন, শান্ত, সৌম্য, নিপাট ভদ্রলোক ডা. শক্তি। ‘প্রথম ২০ বছর আমি জাতিসংঘের অধীনে বিভিন্ন দেশে কাজ করেছি। কিন্তু আমার পরিবার এখানেই ছিল। তারপর ২০০১ সালে আমি জাতিসংঘ থেকে অবসর নিয়ে ব্যাংকক হসপিটালে যোগদান করি। আমি এবার সরাসরি বললাম, ‘থাইল্যান্ডের সবচেয়ে ভালো হসপিটাল কোনটি এবং কোন কোন বিশেষত্বের ভিত্তিতে একজন সাধারণ রোগী তার জন্য সবচেয়ে ভালো হসপিটালটি খুঁজে নিতে পারবে- আমাকে বুঝিয়ে বলুন’।

ডা. শক্তি আমাকে ভালো হসপিটালের বিশেষত্ব সম্পর্কে একটা বেশ কৌত‚হলোদ্দীপক উত্তর দিলেন। পাঁচতারা হোটেলের মতো, ভালো হসপিটালের বিশেষত্ব সম্পর্কেও আমাদের জানতে হবে। আধুনিক চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় তিনটি বিশেষ স্তম্ভকে তিনি বোঝালেন এভাবে- ১। সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ২। সর্বাধুনিক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত চিকিৎসক/বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এবং ৩। টিমওয়ার্ক ও উচ্চমানের নার্সিং সেবা। এই তিনটি বিষয় বা স্তম্ভ পরস্পর সম্পর্কযুক্ত এবং এর কোনোটি যদি মানসম্পন্ন না হয় তবে সেবাদানের ক্ষেত্রে একটি হসপিটাল কোনোভাবেই সর্বোচ্চ স্তরে পৌঁছাতে পারে না।

আধুনিক ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা-নিরীক্ষা থেকে সুনির্দিষ্ট চিকিৎসা দেয়া সর্বক্ষেত্রেই আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহারই হলো মূল কথা। তুলনামূলকভাবে সস্তা বায়পসি বা সাইটলোজি টেস্ট, যা হয়তো ছোট হসপিটালে করা সম্ভব- অনেক ক্ষেত্রে সঠিক রোগ নির্ণয়ে যথেষ্ট নয়। কিন্তু সত্যিকারের ভালো হসপিটালে, যেমন ক্যান্সার নির্ণয়ে আরো বিস্তৃত হিসটোপ্যাথলজি, হিসটোইমিউনোলজি ও জিন পরীক্ষা ইত্যাদি করা হয়। এর ফলে চূড়ান্তভাবে রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা দেয়ায় অনেক তফাৎ ধরা পড়ে।

সিটি স্ক্যানের ক্ষেত্রেও এ কথা প্রযোজ্য। পুরনো মডেলের যন্ত্রে ৪-১৬ সøাইস সিটি ছবি তোলা যায়। কিন্তু আধুনিক যন্ত্রগুলো ২৫৬ সøাইস বা তারও বেশি নিতে পারে। এর খরচ বেশি। কিন্তু আরো সূ² রেজুলিউশনের ইমেজের কারণে রেডিওলজিস্ট ও চিকিৎসকের পক্ষে তথ্য-উপাত্তগুলো থেকে আরো সুনির্দিষ্টভাবে রোগ নির্ণয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ সহজ হয়। একইভাবে নতুন ৩.৫ টেসলা এম আর আই পুরাতন ১.৫ বা ২.০ টেসলা এম আর আই এর চেয়ে অনেক পরিচ্ছন্ন ছবি দেয়। কিন্তু নতুন প্রযুক্তিগুলো ব্যয়বহুল এবং বেশিরভাগ হসপিটালেই এগুলো নেই।

আধুনিক প্রযুক্তির আর একটা উদাহরণ হলো পিইটি-সিটি (চঊঞ-ঈঞ) নতুন ৪র্থ জেনারেশন ফ্লো-মোশন চঊঞ-ঈঞ পুরনো দ্বিতীয় জেনারেশনের মেশিনের চেয়ে অনেক পরিষ্কার ইমেজ দেয়। পিইটি-সিটি ক্যান্সার নির্ণয়ে ব্যবহৃত হয় এবং অনেক ক্ষেত্রে জীবন ও মৃত্যুর মাঝে নির্ণায়ক ভূমিকা রাখে।

এবার আমি আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের ক্ষেত্রে ব্যাংককের হসপিটালগুলো সম্পর্কে তথ্য জোগাড় করতে শুরু করলাম। অবাক বিস্ময়ে দেখলাম ব্যাংকক হসপিটালে সব ধরনের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহৃত হচ্ছে। কিন্তু এর প্রতিযোগীরা রয়েছে অনেক পিছিয়ে। অথচ চিকিৎসার ক্ষেত্রে এই প্রযুক্তিগুলো কতই না প্রয়োজনীয়।

২৫৬ সøাইস সিটি এনজিওগ্রাম করোনারি আর্টারি ডিজিস নির্ণয়ে চিরায়ত এনজিওগ্রামের বিকল্প হিসেবে খুবই কার্যকর। এই যন্ত্র ব্যবহারে প্রযুক্তিগত ঝুঁকি, হসপিটালে থাকা এবং অতিরিক্ত খরচ এড়ানো যায়। কার্ডিয়াক এরিথমিয়ার সঠিক কারণ নির্ণয় ও চিকিৎসার ক্ষেত্রে চিরায়ত ইপিএস/আর এফ এবেøসানের চেয়ে কার্টওসাউন্ড অনেক ভালো। একই সময়ে দুই ধরনের সার্জারি করা হাইব্রিড ওটির ফলে সার্জনদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে। ‘সুতরাং আধুনিক প্রযুক্তিগুলোর ব্যবহার এই হসপিটালের মান নির্ণয়ের প্রধান স্তম্ভ’- বললেন ডা. শক্তি। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে আপনার ধারণা কি? আমি তাকে প্রশ্ন করলাম। সব হসপিটালেই ভালো চিকিৎসক আছেন কিন্তু থাইল্যান্ডে এখন বিশেষ একটা পরিবর্তন লক্ষ করা যাচ্ছে। যেখানে আধুনিক প্রযুক্তি রয়েছে অনেক চিকিৎসকই আজকাল সেসব হসপিটালে কাজ করতে পছন্দ করছেন। কারণ হলো, উন্নত প্রযুক্তির ব্যবহারে সঠিক রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসার ফলাফলও ভালো হয়। এমনকি নার্স ও টেকনিশিয়ানরাও উন্নত প্রযুক্তি সমৃদ্ধ হসপিটালে কাজ করতে বেশি আগ্রহী। কারণ এতে তাদের কাজ সহজ ও আকর্ষণীয় হয়।

থাইল্যান্ডের প্রাইভেট হসপিটালগুলোর উন্নয়নে কি ঘটেছে বিগত বছরগুলোতে? গত ২০ বছরে এগুলোর অনেক পরিবর্তন হয়েছে। ৩০ বছর আগে সামিটাভেজ হসপিটাল ছিল সবচেয়ে ভালো। ১৯৯৭ সালে ব্যাংকক হসপিটাল এই হসপিটালকে কিনে নেয় এবং এখন এটি ব্যাংকক হসপিটালের ২য় টায়ার হসপিটাল হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ২০ বছর আগে বামরুনগ্রাদ হসপিটাল মানের সর্বোচ্চ চূড়ায় পৌঁছেছিল। হাজার হাজার বিদেশি এখানে চিকিৎসা নিত। কিন্তু ১৯৯৭-এর অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের সময় এই হসপিটালও অর্থনৈতিক দুরবস্থায় পড়ে। তাই এরা বামরুনগ্রাদ রায়ং হসপিটালটি ব্যাংকক হসপিটালের কাছে বিক্রি করে দেয় যা এখন ব্যাংকক রায়ং হসপিটাল হিসেবে চালু আছে। বামরুনগ্রাদ হসপিটালের এখন আর আধুনিক প্রযুক্তির সন্নিবেশ ঘটানোর সামর্থ্য নেই। বর্তমানে বামরুনগ্রাদ হসপিটালের প্রধান শেয়ার অংশীদার ও ব্যাংকক হসপিটাল। পায়াথাই, পাওলো, বিএনএইচ ও থাইল্যান্ডের আরো কয়েকটি হসপিটালও ব্যাংকক হসপিটাল কিনে নিয়েছে।

বর্তমানে ব্যাংকক হসপিটাল আরো ৪৬টি হসপিটালের সমন্বয়ে বিডিএমএস নামে থাইল্যান্ডের সবচেয়ে বড় হসপিটাল গ্রুপের নেটওয়ার্ক গড়ে তুলেছে। সমগ্র দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় সর্ববৃহৎ এই গ্রুপের প্রধান হলো ব্যাংকক হসপিটাল। প্রায় সব ধরনের সর্বোত্তম মানের আধুনিক প্রযুক্তি ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সমাবেশ ঘটেছে এখানে। তাই একে বলা হয়, ব্যাংকক হসপিটাল হেড কোয়ার্টার (বিএইচকিউ)। থাইল্যান্ডের আর কোনো প্রাইভেট হসপিটালই এই মানে পৌঁছাতে পারেনি। সব রোগীই এই নতুন প্রযুক্তির ব্যবহারের গুরুত্ব ও সুবিধাগুলো জানে? ‘বোধহয় না’- বললেন ডা. শক্তি। ‘এমনকি অনেক ডাক্তার সব নতুন প্রযুক্তি সম্পর্কে জানেন না। কারণ চিকিৎসা বিজ্ঞানের খুব দ্রুত উন্নতি হচ্ছে এবং প্রতি বছরই নতুন প্রযুক্তি যোগ হচ্ছে’। অনেক চিকিৎসক যারা নিয়মিত পড়াশোনা ও জ্ঞান আহরণে নিজেকে নিয়োজিত রাখেন না, তাদের পক্ষে চিকিৎসা বিজ্ঞানের অনেক উন্নতিই জানা হয় না। অনেক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক শুধু নিজের বিষয়েই পড়াশোনা করেন। চিকিৎসা বিজ্ঞানের অন্যান্য ক্ষেত্রে বিশেষ পরিবর্তনের খবরও হয়তো তাদের অজানা থাকে। আর অনেক রোগীর পক্ষে এসব পরিবর্তনের খবর জানা ও বোঝা সত্যিই অসম্ভব। তাই সঠিক চিকিৎসার প্রয়োজনে রোগীদের উচিত এ ক্ষেত্রে সব ধরনের বিকল্পের খবর নেয়া ও তারপরেই কোথায় চিকিৎসা নেবেন সে সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেয়া। এর মধ্যে সব কিছু সাবধানে বিচার- বিশ্লেষণ করে মিসেস আহমেদের স্বামী মি. আহমেদ ব্যাংকক হসপিটালে রি ডু বাইপাস অপারেশন করালেন। ‘চিকিৎসকরা এই সার্জারি এত সহজে ও সূ²ভাবে করলেন! অনেক ভয় সত্ত্বেও আমার কোনো জটিলতা হয়নি। এখন আমি বিশ্বাস করি যে, রি ডু সার্জারি বা ২য় বার হার্টের সার্জারির জন্য অনন্য বিশেষজ্ঞ সার্জনসহ ব্যাংকক হসপিটাল সত্যিই একটি উন্নতমানের হসপিটাল।’ -বললেন মি. আহমেদ।

আধুনিক প্রযুক্তি ব্যাংকক হসপিটাল অন্যান্য উন্নতমানের হসপিটাল প্রধান ব্যবহার

সিটি এনজিওগ্রাম ২৫৬ সøাইস ৬৪ সøাইস হৃদরোগ নির্ণয়

এমআরআই ৩.৫ টেসলা ১.৫ টেসলা ইমেজিং

কার্ডিয়াক এম আর আই ৩.৫ টেসলা নেই কার্ডিয়াক ইমেজিং

ওপেন এম আর আই ১.০ টেসলা নেই বন্ধ বা ক্লোজড এম আর আই মেসিনে যারা ভয় পায়

কার্টও সাউন্ড আছে নেই কার্ডিয়াক আরিথমিয়া

হাইব্রিড ওটি আছে নেই একসঙ্গে দুই ধরনের অপারেশনের প্রয়োজনে

পিইটি ৪র্থ জেনারেশন ২য় জেনারেশন ক্যান্সার নির্ণয়ে

নোভালিস আছে নেই ক্যান্সার চিকিৎসায়

ও- আরম আছে নেই মেরুদণ্ডের সার্জারিতে

ধন্যবাদ।

ডা. নিলাঞ্জনা সেন

ম্যানেজিং ডিরেক্টর, ব্যাংকক হসপিটাল

বাংলাদেশ অফিস এন্ড লাইফ এন্ড হেলথ

রোড নং ৭/এ, বাড়ি নং ৭৬/১

ধানমন্ডি, ঢাকা- ১২০৫।

পরামর্শ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj