জাতীয় হিন্দু মহাজোট

মঙ্গলবার, ২১ জুন ২০১৬

জাতীয় হিন্দু মহাজোট নেতারা অভিযোগ করেছেন, নির্যাতন নিপীড়নে ১০০% হিন্দু থেকে আজ ৮.৫%-এসে পৌঁছেছে। প্রতিদিনই বাংলাদেশের কোনো না কোনো স্থানে হিন্দু বাড়িঘর, জমিজমা দখল, ভয়ভীতি প্রদর্শন করে দেশত্যাগে বাধ্যকরণ, হত্যা, হত্যা প্রচেষ্টা, ধর্মান্তরকরণ, মঠ মন্দির প্রতিমা ভাঙচুর ও কিশোরী অপহরণ চলছে। বিভিন্ন অঞ্চলে পুরোহিতরা পূজা-পার্বণ বন্ধ করছে। এ অবস্থায় হিন্দু সমাজ দেশে নিরাপত্তা বোধ করছে না।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি গোলটেবিল মিলনায়তনে জাতীয় হিন্দু মহাজোট এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির নেতারা এসব কথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন হিন্দু মহাজোটের মহাসচিব অ্যাডভোকেট গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিক।

গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিক তার লিখিত বক্তব্যে আরো বলেন, দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অত্যাচার এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, সংখ্যালঘু সম্প্রদায় দলে দলে দেশত্যাগের কথা ভাবছে। এ অবস্থা বজায় থাকলে অল্প দিনের মধ্যেই এ দেশ হিন্দুশূন্য হয়ে যাবে। তিনি বলেন, খুনি চক্রেরও মূলোৎপাটন হচ্ছে না। দেশে সাঁড়াসি অভিযান চলাকালেও তারা একের পর এক খুন করে চলে যাচ্ছে। তিনি সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের অস্তিত্ব¡ রক্ষায় এখনই তাদের মনোবল ফিরিয়ে আনা জরুরি বলে অভিমত ব্যক্ত করেন। অভিযোগ করেন, দেশের দেশের জনগণ বিশ্বাস করতে বাধ্য হচ্ছে সরকার নিজেদের চেয়ার রক্ষা করতে ইচ্ছা করেই এই খুনি চক্রের মূলোৎপাটন করছে না। অপরাধীদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার করতে ও শাস্তি বিধান করতে সরকার ব্যর্থ হয়েছে।

এ অবস্থায় সংখ্যালঘু হিন্দু স¤প্রদায়ের অস্তিত্ব¡ রক্ষায় এখনই তাদের মনোবল ফিরিয়ে আনতে জাতীয় সংসদে ৬০টি সংরক্ষিত আসন ও পৃথক নির্বাচন ব্যবস্থা পুনঃপ্রতিষ্ঠা এবং সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠা করতে হবে বলে তিনি মনে করেন। এর পাশাপাশি দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিত্ব সৃষ্টি হলে সংখ্যালঘু সম্প্রদায় মানসিকভাবে স্বস্তি পাবে। আস্থা মনোবল ফিরে পাবে বলে জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলন থেকে আগামী ১ জুলাই মধ্যে সব অপরাধীকে গ্রেপ্তার এবং দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি বিধান ও খুনি চক্রের মূলোৎপাটনের দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন হিন্দু মহাজোটের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট দীনবন্ধু রায়, সিনিয়র সহসভাপতি ড. অচিন্ত কুমার মণ্ডল, ড. সোনালী দাস, মানিক চন্দ্র সরকার, সুভাষ সাহা, শ্রীমৎ নির্মল ঠাকুর, প্রধান সমন্বয়কারী বিজয় ভট্টাচার্য, বিভাগীয় সমন্বয়কারী সুবির সাহা, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব উত্তম কুমার দাস, লায়ন বিমল কৃষ্ণ শীল, যুগ্ম মহাসচিব সমেন সাহা, সাংগঠনিক সম্পাদক কপিল কৃষ্ণ মণ্ডল, আন্তর্জাতিক সম্পাদক রিপন দে, যুব বিষয়ক সম্পাদক সমিরণ বড়াল, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট প্রতীভা বাগচী, মহিলা মহাজোটের সভাপতি প্রীতিলতা বিশ্বাস প্রমুখ।

সংগঠন সংবাদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj