গ্রন্থমেলায় প্ল্যাটফর্মের স্টলে আগুন

মঙ্গলবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৬

শরীফা বুলবুল : টানাতিনদিন ছুটির কারণে মেলায় প্রচুর লোকসমাগম ছিল। গতকাল সোমবার সেই জনস্রোত না থাকলেও দর্শনার্থী ছিল চোখে পড়ার মতো। কিন্তু কিছুক্ষণের জন্য মেলার স্বাভাবিক ছন্দ হারিয়ে যায়। গ্রন্থমেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে শিশুচত্বরের পাশে প্ল্যাটফর্মের স্টলে আগুন দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। সন্ধ্যা ৬টার পর দুই তরুণ স্টলটিতে আগুন দিয়েছে বলে সিসিটিভি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজে ধরা পড়েছে।

ভিডিও ফুটেজ অনুযায়ী, সন্ধ্যা ৬টা ০৭ মিনিটে দুই তরুণ আগুন লাগানোর চেষ্টা করেছে ওই স্টলটিতে। তারা দাহ্য পদার্থ দিয়ে আগুন ধরায়। সঙ্গে সঙ্গে পেছন থেকে লোকজনের চিৎকারে স্টলের পাশে থাকা লোকজন ও পরে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে আগুন নেভায়।

প্ল্যাটফর্মের বিক্রয়কর্মী প্রসেনজিৎ রায় বলেন, পেছন দিক থেকে আগুন লাগানোর চেষ্টা করেছে কে বা কারা। আমরা পেট্রোলের গন্ধ পেয়েছি। প্রথমে নিজেদের চেষ্টায় ও পরে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা এসে আগুন নিভিয়ে ফেলেন। তবে ক্ষয়ক্ষতি হয়নি তেমন। ক্ষয়ক্ষতির আগেই আগুন নিভিয়ে ফেলা হয়েছে। বইমেলা ইউনিটের ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার সাহেব আলী বলেন, সিসি ক্যামেরায় দেখা গেছে দুই ব্যক্তি ঘোরাফেরা করছিল। তারা পেট্রোল বা কেরোসিন দিয়ে আগুন লাগানোর চেষ্টা করে। এটা ষড়যন্ত্রমূলক হতে পারে, বিষয়টিকে আমরা খতিয়ে দেখব। এ ব্যাপারে বইমেলা পরিচালনা কমিটির সদস্যসচিব ড. জালাল আহমেদ বলেন, ‘সিসি ক্যামেরায় সন্ধ্যা ৬টা ০৭ মিনিটে ধরা পড়েছে, দুই

তরুণ আগুন দেয়ার চেষ্টা করেছে ওই স্টলটিতে। আমরা কেরোসিনের গন্ধ পেয়েছি। নিরাপত্তাকর্মীরা বলেছেন, তারা দ্রুতই এ ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্তদের ধরতে পারবেন।

স¤প্রতি ‘ইসলাম বিতর্ক’ বইটি প্রদর্শনীর জন্য মেলায় ব-দ্বীপ স্টলটি বন্ধ করে দেয় পুলিশ। ব-দ্বীপ বন্ধের এক সপ্তাহ পরই জ্বালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হলো প্ল্যাটফর্মের স্টলটি।

মূলমঞ্চের আয়োজন

বিকেল ৪টায় গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় ‘শাহ্ আবদুল করিম জন্মশতবার্ষিকী’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। এতে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধ্যাপক আবুল হাসান চৌধুরী। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ড. ভীষ্মদেব চৌধুরী, শরদিন্দু ভট্টাচার্য, সাইমন জাকারিয়া। সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক ড. আবুল আহসান চৌধুরী।

প্রাবন্ধিক বলেন, শাহ্ আবদুল করিমের জন্মশতবর্ষ অতিক্রান্তির এ শুভলগ্ন থেকেই তার জীবনকথা ও কৃতী নিয়ে, নির্দয় নিয়তি আর ঘোরতর বৈষম্যমূলক সমাজসৃষ্ট দারিদ্র্যের কষাঘাতে জর্জরিত তার জীবনসংগ্রাম নিয়ে, তার সঙ্গীতমালার বিধৃত বাঙালির লোকসংস্কৃতির নানা উপাদান বিশেষত বহু জাতি-বর্ণ-ধর্ম সমন্বিত ইহবাদী জীবনচেতনা এবং মরমি দর্শন নিয়ে আরো ব্যাপক ও গভীর বিশ্লেষণাত্মক কাজ হওয়া দরকার। তবেই এক মানবপন্থী সংস্কৃতিসাধক হিসেবে বাউল শাহ আবদুল করিমের যথাযথ মূল্যায়ন করা হবে বলে মনে করি।

সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে সাকার মুস্তাফার পরিচালনায় সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘ভাবনগর ফাউন্ডেশন’ এবং সালাউদ্দীন বাদলের পরিচালনায় সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘বাংলাদেশ আওয়ামী শিল্পীগোষ্ঠী’র শিল্পীরা। সঙ্গীত পরিবেশন করেন স্বপ্না রায়, আবু বকর সিদ্দিক, সালমা চৌধুরী, শতাব্দী রায়, মেহেরুন আশরাফ, লাকী সরকার এবং খোকন বাউল।

আজকের আয়োজন

মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে ‘মোহাম্মদ নাসির আলী জন্মশতবার্ষিকী’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। এতে প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন শিশুসাহিত্যিক আলী ইমাম। আলোচনায় অংশগ্রহণ করবেন কবি আসাদ চৌধুরী, শিশুসাহিত্যিক লুৎফর রহমান রিটন এবং শিশুসাহিত্যিক কাইজার চৌধুরী। সভাপতিত্ব করবেন লেখক-গবেষক ড. সৈয়দ মোহাম্মদ শাহেদ।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj