ক্ষমা চাইলেন ইউএনও

মঙ্গলবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৬

বকশীগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি : বকশীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের অব্যবস্থাপনার কারণে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে বিড়ম্বনার শিকার হতে হয় প্রশাসন ও রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা ছাড়াও সাধারণ মানুষকে। এ নিয়ে চাপের মুখে প্রকাশ্যে ক্ষমা চান ইউএনও সুব্রত পাল।

জানা গেছে, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে বকশীগঞ্জ এনএম উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গণে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার পরিচ্ছন্ন করা হয়নি। আলোকিত করা হয়নি শহীদ মিনার এলাকা। এ অবস্থায় রাতের প্রথম প্রহরে শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায় প্রশাসন, রাজনৈতিক দল, বিভিন্ন সংগঠনসহ ও সাধারণ মানুষ। শহীদ মিনারে এ অব্যবস্থাপনা দেখে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন

শ্রদ্ধা জানাতে আসা বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী, মুক্তিযোদ্ধা ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের লোকজন। এ সময় শহীদ মিনারে হ-য-ব-র-ল অবস্থার সৃষ্টি হয়। পরে পরিস্থিতি সামাল দিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুব্রত পাল উপস্থিত লোকজনের কাছে প্রকাশ্যে দুঃখ প্রকাশ করে বলেন আগামী দিনে এ ধরনের অবস্থা আর হবে না।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা আ.লীগের সম্পাদক সাইফুল ইসলাম বিজয় বলেন, উপজেলা প্রশাসনের চরম অবহেলায় শহীদ দিবসের অবমাননা হয়েছে।

এ বিষয়ে মুুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আলহাজ মফিজ উদ্দিন বলেন, শহীদ মিনারের পরিবেশ ছিল নিন্দনীয়, তাই প্রতিবাদের মুখে ইউএনও ক্ষমা চেয়েছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুব্রত পাল জানান, শহীদ মিনার এলাকায় যে সমস্যা হয়েছিল আলোচনা সাপেক্ষে তার সমাধান করা হয়েছে।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj