সিরিয়ায় প্রথম ‘প্রশিক্ষিত জঙ্গি’র চালান পাঠাচ্ছে আমেরিকা

শনিবার, ৪ জুলাই ২০১৫

কাগজ ডেস্ক : সিরিয়ায় প্রথমবারের মতো প্রশিক্ষিত জঙ্গি পাঠাতে যাচ্ছে আমেরিকা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন মার্কিন সেনা কর্মকর্তার বরাত দিয়ে দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্ট এ খবর দিয়েছে।

ওই কর্মকর্তা দৈনিকটিকে বলেছেন, আমেরিকা ও তার মিত্র বাহিনী তুরস্কে তথাকথিত ‘নরমপন্থী’ জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ শেষ করতে যাচ্ছে। প্রথম গ্রুপের এসব জঙ্গির সংখ্যা ১০০ জনের কম এবং তাদের চলতি গ্রীষ্মের শেষদিকে তুরস্কের দক্ষিণ সীমান্ত দিয়ে প্রতিবেশী সিরিয়ায় ঢুকিয়ে দেয়া হবে।

ওয়াশিংটন পোস্ট জানিয়েছে, সিরিয়ার জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ ও সশস্ত্র করে তোলার কাজ কিছুটা ধীরগতিতে এগুচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ, প্রাথমিকভাবে আমেরিকা বছরে ৫ হাজার ৪০০ জঙ্গিকে প্রশিক্ষণ দেয়ার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছিল। ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে এ কাজে ৫০ কোটি ডলার বাজেট বরাদ্দ দেয় মার্কিন কংগ্রেস।

ওই সেনা কর্মকর্তা মার্কিন দৈনিকটিকে বলেন, জঙ্গি প্রশিক্ষণের কাজে ধীরগতি অত্যন্ত হতাশাব্যাঞ্জক। তবে সঠিক পদ্ধতিতে বাছাই করে ‘অনুপযুক্ত’ ব্যক্তিদেরকে প্রশিক্ষণার্থীদের তালিকা থেকে বাদ দেয়ার জন্য এ সময় নিতে হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মার্কিন সেনা কর্মকর্তা বলেন, দীর্ঘমেয়াদে এ পরিকল্পনা সাফল্য পাবে বলে আমরা মনে করি। কারণ, এর গুণগতমান বজায় রেখেছি আমরা। সংখ্যার চেয়ে আমরা গুণগতমানকে প্রাধ্যন্য দিচ্ছি।

গত সপ্তাহে মার্কিন কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, তারা সিরিয়ায় প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য চলতি বছরের শেষ নাগাদ ৩ হাজার ‘নরমপন্থী’ জঙ্গিকে প্রশিক্ষণ দিতে পারবেন। কিন্তু বার্তা সংস্থা এপি জানিয়েছে, প্রশিক্ষণ কর্মসূচির মাঝপথে এসে মার্কিন কর্মকর্তারা বুঝতে পারেন, তারা ভুলপথে এগুচ্ছেন। গত বুধবার পেন্টাগনে মার্কিন সেনাপ্রধান জেনারেল মার্টিন ডেম্পসি বলেন, প্রশিক্ষণের মাঝখানে এসে অনেকে যার যার বাড়ি চলে গেছে। বিশেষ করে রমজান মাস শুরু হওয়ার পর বহু প্রশিক্ষণার্থী পরিবারকে সময় দিতে বাড়ি চলে গেছে।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj