ঠাণ্ডা যুদ্ধের অশনি সঙ্কেত?

শনিবার, ২৭ জুন ২০১৫

কাগজ ডেস্ক : কোনো এক ২২ জুন হিটলারের নাৎসি বাহিনী আক্রমণ করেছিল সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন। চুয়াত্তর বছর পর, অর্থাৎ সেই ২২ জুনই, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এক দীর্ঘমেয়াদ অর্থনৈতিক নিষেধজ্ঞা জারি করল রাশিয়ার ওপর।

এই সমাপতনকে ‘নৈরাশ্যজনক’ হিসেবে তুলে ধরে রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রক বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, আমরা ধরে নিচ্ছি যে এটা নিছকই ঘটনা চক্র। বিশেষ নকশা নয়!

ক‚টনীতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, নাৎসি আক্রমণের সেই দিনটির এই ঐতিহাসিক পুনরাবৃত্তি ‘বিশেষ নকশা’ করে হয়তো তৈরি করা হয়নি। কিন্তু কৃষ্ণসাগরের ওপরের আকাশে এখন বারুদের গন্ধ। পরিস্থিতি ক্রমশ অন্ধকার হয়ে উসকে দিচ্ছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী সময় অর্থাৎ ঠাণ্ডা যুদ্ধের স্মৃতিকে। মস্কোর ইউক্রেন আগ্রাসনকে কেন্দ্র করে আমেরিকা এবং রাশিয়ার মধ্যে অস্ত্রমহড়া ক্রমশ এক চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছাতে চলেছে। উত্তাপকে আরো এক পর্দা চড়িয়ে গতকাল শুক্রবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের পক্ষ থেকে রাশিয়ার ওপর আর্থিক নিষেধাজ্ঞা আগামী বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন একঝাঁক সর্বাধুনিক এফ-২২ ফাইটার জেট মার্কিন বিমানপোত থেকে রাশিয়ার দিকে উড়ে যাওয়া কিছু সময়ের অপেক্ষা মাত্র।

এটা ঘটনা যে ঠাণ্ডা যুদ্ধের সময়কার বিশ্বক‚টনীতি আজ সম্পূর্ণ বদলে গিয়েছে। বিশ্বায়ন পরবর্তী বিদেশ নীতিতে পারস্পরিক নির্ভরশীলতা বেড়ে গিয়েছে অনেকটাই। অর্থনৈতিক এবং নিরাপত্তার কারণে একটি দেশের ভালো-মন্দ নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে অন্য দেশের ওপর। বিভিন্ন দেশ নিজেদের মধ্যে গাঁটছড়া বাঁধছে ব্রিকস, জি-২০, সাংহাই কর্পোরেশন, সার্ক, আশিয়ান—ের মতো অসংখ্য ছোট-বড় গোষ্ঠীর মাধ্যমে। এক দিকে আমেরিকা অন্যদিকে রাশিয়ার বিশ্বের এই দ্বিমেরু কাঠামো থেকে বদল ঘটে, উঠে এসেছে বহুস্বর।

কিন্তু সম্প্রতি দুই পরমাণু শক্তিধর দেশের মধ্যে যে সংঘাতের পরিবেশ দেখা যাচ্ছে, তা সেই দ্বিমেরু সংঘাতকেই মনে করিয়ে দিচ্ছে। আর এই গোটা পরিস্থিতি নয়া দিল্লির জন্য প্রবল অস্বস্তিজনক বলেই মনে করছে ক‚টনীতিক শিবির। গত ইউপিএ সরকারের সময় যখন রাশিয়া ইউক্রেন আক্রমণ করে, অস্বস্তি শুরু হয়েছিল তখন থেকেই। সরকার বদল হয়ে নরেন্দ্র মোদি ক্ষমতায় এলেও সমস্যা কমেনি উল্টে পল্লবিত হয়েছে। আমেরিকাসহ পশ্চিম বিশ্ব পাশে দাঁড়ায় ইউক্রেনের। রাশিয়ার সঙ্গে তাদের ছায়াযুদ্ধে ভারতের পক্ষে কোনো একটি নির্দিষ্ট পক্ষ নেয়া কার্যত অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়। বিদেশ মন্ত্রকের এক কর্তার কথায়, ঠাণ্ডা যুদ্ধের সময় যে জোট নিরপেক্ষ নীতি নিয়ে চলছিল ভারত তা এখন কার্যত বাতিল হয়ে গিয়েছে। ভারত এখন অংশীদারত্বের পথে হাঁটছে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে। এ ক্ষেত্রে রাশিয়া এবং আমেরিকায় উভয় দেশই কৌশলগত ভাবে ভারতের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। রাশিয়া থেকে ভারত বিপুল পরিমাণ সামরিক সরঞ্জাম আমদানি করে। মস্কোর বহু অত্যাধুনিক সামরিক যৌথ প্রকল্প পাইপলাইনে রয়েছে। অন্যদিকে, আমেরিকা এবং পশ্চিমের অন্য অনেক দেশের সঙ্গেই ভারতের কৌশলগত অংশীদারত্ব রয়েছে। তার মধ্যে অসামরিক পরমাণু চুক্তিও পড়ে।

এটা ঘটনা যে ন্যাটো, আমেরিকা বা রাশিয়া কেউ-ই এখনো প্রকৃত যুদ্ধ শুরু করেনি। কিন্তু তোপ দাগা চলছে। পারস্পরিক সংঘাত এবং বাদানুবাদ এমন জায়গায় পৌঁছে গিয়েছে, যে কোনো সময় সামরিক অভিযান বা সেনা প্রত্যাঘাত শুরু হয়ে যেতে পারে। ইউক্রেনের সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত তথা ব্রিকিংস ইনস্টিটিউটের (থিংক ট্যাংক) কর্তা স্টিভেন পাইফার গোটা বিষয়টির জন্য দায়ী করছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনের আগ্রাসী মনোভাবকেই। তার কথায়, গত এক বছরে রাশিয়ার সামরিক বাহিনী যে ভাবে যথেচ্ছ অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে, তাতে সবকিছু গণ্ডগোল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

গত দেড় দুসপ্তাহ ধরে দুদেশেরই সামরিক বাহিনী শঠে শাঠ্যং মনোভাব নিয়ে চলছে। আমেরিকা রাশিয়ারকে মুখের মতো জবাব দেয়ার জন্য পুরোদস্তুর মাঠে নেমে পড়েছে। মার্কিন বায়ু সেনাবাহিনীর প্রধান ডেবোরা জেমস ঘোষণা করেছেন, অত্যাধুনিক বোমারু বিমানের ঝাঁক তারা শিগগিরই ইউরোপ অভিমুখে পাঠাতে চলেছেন। যার প্রাথমিক উদ্দেশ্য, নিজেদের শৌর্র্য জাহির করা। ইতিমধ্যেই গোটা ইউরোপজুড়ে রাশিয়ার আকাশপথ ঘেঁষে চক্কোর মারছে পেন্টাগনের বি-২, বি-৫২ বোমারু বিমান। ঘুরছে ক্ষেপণাস্ত্র সংবলিত এফ-১৫ সি এবং এ ১০ বিমানও। এখনো কোনো অভিযান হয়নি, কিন্তু আগেভাগেই আমেরিকা এই গোটা প্রয়াসের নাম দিয়ে রেখেছে ‘অপারেশন আটলান্টিক রিসলভ’। ন্যাটোর হিসাব অনুযায়ী তাদের র‌্যাডারে গত এক বছরে রাশিয়ার চারশোরও বেশি সামরিক বিমানের অবৈধ গতিবিধি ধরা পড়েছে। গত বছরের থেকে যা নাকি ৫০ শতাংশ বেড়ে গিয়েছে। গতবছর মে মাসে কৃষ্ণসাগরের ওপর আকাশপথে মার্কিন সামরিক বাহিনীর মাত্র ১০ ফুট দূরত্বে চলে এলেছিল রাশিয়ার একটি জেট।

ন্যাটোর হুমকি বা আমেরিকার জোটের আস্ফালনের মুখে এখনো পর্যন্ত অকুতোভয় রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন। সম্প্রতি তার দর্পিত ঘোষণা, কেউ যদি আমাদের ভূখণ্ডে হাত বাড়াতে আসে তা হলে আমরা তো আমাদের সামরিক বাহিনীর দিকেই তাকাব! ন্যাটোই আমাদের সীমান্তে এগিয়ে এসেছে। আমরা যাইনি। সংবাদমাধ্যমে ঝড় তুলে দিয়ে এ কথাও প্রকাশিত হয়েছে যে দেশের পরমাণু অস্ত্র ভাঁড়ারকে আরো কার্যকরী করতে অতিরিক্ত ৪০টি নির্দিষ্ট লক্ষ্যহীন বিশেষ ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করার কথা ভাবছে মস্কো। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের তরফ থেকে বলা হচ্ছে, পূর্ব ইউরোপে ঘাঁটি গাড়ার লক্ষ্যে আমেরিকা ট্যাঙ্ক এবং আর্টিলারি বসাতে পারে। সে দেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের এক শীর্ষ অফিসার ইউরি ইয়াকুবভের কথায়, ঠাণ্ডা যুদ্ধের পর এমন মরিয়া মনোভাব পেন্টাগনের তরফ থেকে আর দেখা যায়নি। এ বার ন্যাটোভুক্ত রাষ্ট্রগুলো নতুন করে সামরিক সংঘর্ষ এবং ধ্বংসমূলক পরিণতির জন্য প্রস্তুত হোক।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj