হেলিকপ্টার থেকে যৌনালাপ সম্প্রচার, বিপাকে কানাডা পুলিশ!

শনিবার, ২৭ জুন ২০১৫

কাগজ ডেস্ক : হেলিকপ্টার থেকে লাউড স্পিকারে অশ্লীল যৌন সংলাপ সম্প্রচার করার পর গত মঙ্গলবার ক্ষমা প্রার্থনা করল কানাডার উইনিপেগ শহরের পুলিশ। গত সোমবার রাতে পুলিশের কয়েকজন কর্মকর্তা হেলিকপ্টারে রুটিন মাফিক টহল দেয়ার সময় অসাবধানতাবশত জনগণের উদ্দেশে কথা বলার জন্য স্থাপিত লাউড স্পিকারটি চালু করে দেয়। এ সময় ওই কর্মকর্তারা নিজেদের মাঝে যৌনতা সংক্রান্ত অশ্লীল ব্যক্তিগত আলাপ-আলোচনা করছিলেন। লাউড স্পিকারটি চালু থাকায় তাদের ওই সংলাপ নিচের বাসিন্দারা শুনতে থাকেন।

কিন্তু ওই কর্মকর্তারা খেয়াল করেননি যে তাদের হেলিকপ্টারে থাকা লাউড স্পিকারটি চালু ছিল। যখন তারা টের পান যে লাউড স্পিকার চালু করা আছে ততক্ষণে যা হওয়ার তা হয়ে গেছে।

উইনিপেগ পুলিশ দপ্তর মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের সংলাপের কিছু অংশ গনশুনানির জন্য একদমই অনুপযুক্ত ছিল। কিন্তু অসাবধানতাবশত তাদের ওই অশ্লীল সংলাপ লাউড স্পিকারে সম্প্রচারিত হয়ে যায়। যখন তারা টের পায় যে তাদের সংলাপ সম্প্রচারিত হচ্ছে তৎক্ষণাৎ তারা লাউড স্পিকারটি বন্ধ করে দেয়।

ওদিকে নিচের স্থানীয় বাসিন্দারা পুলিশের হেলিকপ্টার থেকে অশ্লীল যৌন সংলাপের সংবাদ সামাজিক গণমাধ্যম টুইটারে প্রচার করে এবং পুলিশ বিভাগকে ওই সংলাপ বন্ধে পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানায়। এ নিয়ে সামাজিক গণমাধ্যমে পুলিশকে নিয়ে হাসি-ঠাট্টা ও তামাশামূলক মন্তব্যের ঝড় ওঠে।

একজন টুইট করেন, উইনিপেগ পুলিশের হেলিকপ্টারের পাইলটরা তাদের লাউড স্পিকার চালু রেখেই অশ্লীল যৌনালাপ করছে। তা শুনতে ভালোই কৌতুকবোধ হচ্ছে।

আরেকজন টুইট করেন, উইনিপেগ পুলিশের হেলিকপ্টারে থাকা মাথামোটা পুলিশগুলো কি টের পাচ্ছে না যে শহরের পুরো পশ্চিমাঞ্চলের বাসিন্দারা তাদের খিস্তিখেউড় শুনতে পাচ্ছে। তারা কি বুঝতে পারছে না তারা এই মুহূর্তে ‘বেøা জব’ নিয়ে যে রসালো আলাপ করছে তা নিচের সবাই স্পষ্ট শুনতে পাচ্ছে!’ ওই ব্যক্তি নিজে তার বাড়ির আঙিনায় দাঁড়িয়ে তাদের খিস্তিখেউড় শুনতে পাচ্ছিলেন বলে উল্লেখ করেন।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj