যেখানে কিশোরীর দাম সিগারেটের চেয়েও কম!

শনিবার, ১৩ জুন ২০১৫

কাগজ ডেস্ক : নারী দেহের লোভ দেখিয়ে নিজেদের জঙ্গি বাহিনীতে লোক টানে আইএসআইএস। নীতি-আদর্শ নয়, নারী দেহের টানেই আইএসআইএসে নাম লেখায় হাজারো বিদেশি। আইএসআইএস ত্রয়োদশ শতকের মধ্যপ্রাচ্য ফিরিয়ে আনতে চায়। যেখানে বাজারে ক্রীতদাস হিসেবে দেদার বিকোবে কিশোরী।

ভাগ্য ‘ভালো’ থাকলে হতভাগ্য কিশোরীদের মিলে যাবে রাজপুরুষের সঙ্গ। নতুন নতুন অঞ্চল দখল করে তাই এলাকার কিশোরীদের তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। তাদের অধিকাংশকেই বাজারে বিক্রি করে দেয়া হয়। বাকিদের ব্যবহার করা হয় কমবয়সী বিদেশি পুরুষদের প্রলুব্ধ করতে।

জাতিসংঘের রিপোর্ট জানাচ্ছে, পৃথিবীর প্রায় ১০০ দেশ থেকে আড়াই হাজারেরও বেশি বিদেশি জঙ্গি রয়েছে আইএসআইএসে। এক প্যাকেট সিগারেটের থেকেও কম দামে বিকোচ্ছে কিশোরী। ইরাক এবং সিরিয়ায় আইএসআইএস অধিগৃহীত এলাকা ঘুরে এমনই রিপোর্ট দিয়েছে জাতিসংঘের এক প্রতিনিধিদল।

এপ্রিলে ইরাক এবং সিরিয়া গিয়েছিলেন জৈনাব বাঙ্গুরা। সেই সময় মহিলাদের ওপর আইএসআইএস জঙ্গিদের ভয়ঙ্কর যৌন-নির্যাতন তার চোখে পড়ে। বাঙ্গুরার কথায়, এ যুদ্ধ শুধু মাটিতে হয় না, হয় মহিলাদের শরীরে। আইএসআইএস অধিগৃহীত এলাকা থেকে তুর্কি, লেবানন এবং জর্ডানে পালিয়ে এসে আশ্রয় শিবিরে রয়েছেন বহু মহিলা। প্রতিনিধিদল এই মহিলাদের সঙ্গে কথা বলে দাস ব্যবসা নিয়ে অনেক কিছু জানতে পেরেছে।

জেহাদিরা নিত্যনতুন এলাকা থেকে মেয়ে সংগ্রহ করে। তার পর তাদের বিক্রি করে দেয়।

কতজন মেয়ে এই মুহূর্তে দাস বাজারে রয়েছেন, তার কোনো হিসাব নেই।

তবে সবাইকেই যে বিক্রির জন্য নিয়ে আসা হয় এমন নয়। অনেক ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতি আক্রোশবশত তুলে আনা হয় তাদের মেয়েদের।

আটকে রাখা হয় অপ্রশস্ত ঘরে। এরকমই এক দাস-শিবিরের বর্ণনা দিয়েছেন বাঙ্গুরা। তার কথায়, মেয়েদের এনে একটা ঘরে তালাবন্ধ করে রেখে দেয়া হয়। ছোট বাড়িতে ১০০-এর বেশি মেয়েকে আশ্রয় দেয়া হয়। তার পর নগ্ন করে স্নান করানো হয়।

এক ১৫ বছর বয়সী কিশোরীর বয়ান উঠে এসেছে। তাকে কিনেছিল বছর পঞ্চাশেকের এক শেখ। মেয়েটির দিকে বন্দুক উঁচিয়ে শেখ জিজ্ঞাসা করেছিল, সে কী চায়? উত্তরে কিশোরী বন্দুকের গুলি চেয়েছিল। তাকে ধর্ষণের আগে শেখ বলেছিল, গুলি খাওয়ানোর জন্য তাকে কেনা হয়নি।

তবে আশার কথা এই, হারানো মেয়েদের আবার ফিরিয়ে দেয়ার কাজ করছেন ইয়াজিদি ধর্মীয় নেতারা। খুব শিগগিরই জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে এই মেয়েদের সমস্যা তুলে ধরবেন বলে জানিয়েছেন বাঙ্গুরা।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj