ব্যথা নিরাময়, সহজেই

শুক্রবার, ৫ জুন ২০১৫

চিকিৎসা গল্প-১ :

এ রহমান। চিকিৎসক সন্তানের বাবা ডায়াবেটিক রোগী হলেও ভীষণ পরিশ্রমী। শারীরিক মানসিক দুধরনের পরিশ্রমই করেন সমানতালে। সত্তরের কাছাকাছি বয়সেও মোটরবাইক চালান নিজেই। মোটরবাইক চালাতে গিয়েই ডান কাঁধে সামান্য আঘাত পেয়েছিলেন। আমলে নেননি। প্রারম্ভে অনুভব না করলেও ধীরে ধীরে ব্যথার তীব্রতা টের পাচ্ছিলেন। কার সঙ্গে কথা বলবেন ঠাহর করতে পারছিলেন না। ছেলে নবীন চিকিৎসক, তার চিকিৎসা ক্ষেত্র বা পদ্ধতিকে ঠিক আস্থায় নিতে পারেননি তিনি। একদিন ছেলে তার বাবার কাঁধের অস্বস্তির বিষয়টি বুঝতে পারলেন। জিজ্ঞেস করলেন, বাবা কাঁধ ঝাঁকাচ্ছেন কেন? বাবা লুকাতে গিয়েও লুকাতে পারলেন না। বললেন, কদিন ধরে ডান কাঁধে ব্যথা অনুভব করছি। ছেলে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিলেন এবং শারীরিক পরীক্ষা আর রোগের ইতিহাস নির্ণয় করে বুঝলেন তিনি প্রাথমিক কাঁধ জমে যাওয়া বা ফ্রোজেন সোল্ডারে আক্রান্ত। রহমান সাহেব ডায়াবেটিক রোগী, তাই ব্যথানাশক ওষুধ ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে। চিকিৎসক ম্যানিপুলেশন আর ইলেকট্রোথেরাপির সমন্বিত চিকিৎসা শুরু করলেন। ফল হাতেনাতে। নিবিড় চিকিৎসায় রোগী ১০ দিনের মাথায় পূর্ণ সুস্থ হয়ে গেলেন। তরুণ চিকিৎসক হয়ে উঠলেন আত্মবিশ্বাসী বাবা হলেন ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা আর চিকিৎসা পদ্ধতি সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপন।

কাঁধে ব্যথা বা ফ্রোজেন সোল্ডার ডায়াবেটিক রোগীর খুব কমন একটি সমস্যা। তাছাড়াও চল্লিশোর্ধ্ব যে কারো ফ্রোজেন সোল্ডার বা এই জাতীয় কাঁধ ব্যথা হতে পারে। সাধারণত কাঁধে আঘাত পেলে তা ধীরে ধীরে ফ্রোজেন সোল্ডারে রূপ নেয়। ফ্রাকচার, সারভাইক্যাল স্পন্ডাইলোসি, বাইপাস সার্জারি বা স্ট্যান্টিং এর পরবর্তী জটিলতা হিসেবেও ফ্রেসেজেন সোল্ডার হতে পারে। ব্যথা শুরু হওয়ার তিন থেকে নয় মাসের মধ্যে তীব্র আকার ধারণ করে তা অসহনীয় হয়ে ওঠে। তাই ব্যথা শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ফিজিওথেরাপি শুরু করলে খুব অল্প সময়ে উপশম পাওয়া যায়। কোনো কোনো কাঁধের ব্যথায় ইন্ট্রা-আর্টিকুলার ইনজেকশন থেরাপির প্রয়োজন হতে পারে। তবে সবই নির্ভর করে রোগীর আনুষাঙ্গিক রোগ-জটিলতা, রোগের প্রকারের ওপর। তবে এ কথা অনস্বীকার্য যে কাঁধে ব্যথায় যত তাড়াতাড়ি ফিজিওথেরাপি শুরু করা যায় তত তাড়াতাড়ি উপশম পাওয়া যায়। ব্যথা শুরুর তিন চার মাস পর চিকিৎসা শুরু করলে কাক্সিক্ষত ফল পেতে দীর্ঘ সময় ধরে চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হয়।

চিকিৎসা গল্প-২ :

মিরা, তরুণী ব্যস্ত অভিনেত্রী। দম ফেলার ফুরসত নেই। শুটিং করতে গিয়ে বাম পায়ের গোড়ালিতে আঘাত পেলেন। প্রাথমিকভাবে আঘাত গুরুতর মনে হলেও বরফ চিকিৎসার পর ব্যথা কমে গেল। সারাদিন অল্প ব্যথা নিয়ে শ্যুটিং রাতে তীব্র ব্যথা। ব্যথানাশক নিলেন। টানা দশ দিনের শিডিউল প্যাক করা আছে। বিশ্রামের সামান্যতম সুযোগ নেই। অগত্যা ব্যথানাশক, বরফ চিকিৎসা করেই কেটে গেল সাত দিন। অষ্ঠম দিনে পা ফুলে ঢোল। তীব্র যন্ত্রণায় মাটিতে পা ফেলার উপায় নেই। ব্যথানাশক নিলে ব্যথা সামান্য কমছে কিন্তু হাঁটলেই তীব্র ব্যথা। সবাই পরামর্শ দিলেন দেশের বাইরে গিয়ে চিকিৎসা করাতে। কিন্তু তিনি দেশের চিকিৎসার ওপরই ভরসা রাখলেন। ফিজিওথেরাপি বিশেষজ্ঞের পরামর্শে সিরিয়্যাক্স ম্যানিপুলেশন আর ইলেকট্রোথেরাপি শুরু হলো। এক সপ্তাহেই খুব ভালো ফল পাওয়া গেল। কর্মক্ষম হয়ে উঠলেন অভিনেত্রী। আর বাকি দুই সপ্তাহ পূনর্বাসনের আওতায় থেকে পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠলেন।

আমাদের জীবনে আঘাতজনিত সমস্যা বা স্পোর্টস ইনজুরি খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। কাঁধ, হাঁটু, কুনুই, গোড়ালি যে কোনো জায়গায় আঘাতজনিত ব্যথা হতে পারে। স্পোর্টস ইনজুরিতে ফিজিওথেরাপির ভূমিকা অনবদ্য। তবে গুরুতর আঘাতে হাড় ভেঙে গেলে বা লিগামেন্ট ছিঁড়ে গেলে সার্জারির প্রয়োজন হতে পারে। মৃদু থেকে মাঝারি আঘাতে তিন থেকে পাঁচ দিনের চিকিৎসা প্রয়োজন, সঙ্গে ফিজিওথেরাপি।

মনে রাখা প্রয়োজন :

ফিজিওথেরাপি কোনো উপদেশ বা পরামর্শ নয়। এটি একটি পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসা পদ্ধতি। রোগ নির্ণয়, চিকিৎসা ও চিকিৎসা মূল্যায়ন হলো ফিজিওথেরাপির মূল স্তম্ভ।

হ ডা. মোহাম্মদ আলী

পরিচালক ও চিফ কনসালট্যান্ট হাসনা হেনা পেইন এন্ড ফিজিওথেরাপি রিসার্চ সেন্টার (ঐচজঈ)

বাড়ি-২১, রোড-১০/এ, সেক্টর-১১, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০।

পরামর্শ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj