তালেবানের দেশে আইএস আতঙ্ক!

শনিবার, ৩১ জানুয়ারি ২০১৫

কাগজ ডেস্ক : ইরাক আর সিরিয়া থেকে শেষ পর্যন্ত আফগানিস্তানেও ঢুকে পড়ছে ইসলামিক স্টেট? হালে কালো পোশাক পরা সশস্ত্র লোকদের আনাগোনা দেখে সে আশঙ্কাতেই শঙ্কিত আফগানিস্তানের মানুষ। তাদের মতে, আইএস জঙ্গিরা তালেবানের চেয়েও ভয়ঙ্কর।

তালেবানের দেশ বলে পরিচিত আফগানিস্তানের পশ্চিমাঞ্চলীয় ফারাহ প্রদেশের খাকি সফেদ জেলার অধিবাসী গোল মোহাম্মদ। তিনি নিজে দেখেছেন সে এলাকায় কালো পতাকা হাতে নিয়ে কালো পোশাক পরা কিছু মানুষকে ঘুরে বেড়াতে। লোকগুলোকে দেখেই বোঝা যায় তাদের টাকার অভাব নেই। অস্ত্র নিয়ে দামি গাড়িতে চড়েই ঘোরাফেরা করে তারা। পোশাক এবং পতাকা জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট বা আইএসের মতো বলে এবং লোকগুলো তালেবানের ভাষায় কথা বলে না বলে স্থানীয়রা তাদের সন্দেহের নজরেই দেখছেন। অবশ্য ভয়ও করছে তাদের। গোল মোহাম্মদ বললেন, কালো পোশাকের লোকগুলো তার কাছে তালেবানের চেয়েও ভীতিকর, ‘ওদের আমরা তালেবানের চেয়েও বেশি ভয় পাই। এখনো পর্যন্ত ওদের আমাদের শান্তিতে থাকতে দিয়েছে, তবে কতদিন এ অবস্থা থাকবে কে জানে!’

পশ্চিমের ফারাহ প্রদেশের মতো পূর্বের জাবুল এবং দক্ষিণের হেলমান্দেও দেখা গেছে কালো পোশাকের সন্দেহভাজন মানুষদের। আফগানিস্তানের সাবেক পানি ও জ্বালানিমন্ত্রী এবং সমর বিশেষজ্ঞ ইসমাইল খান মনে করেন, সরকারের এখনই বিষয়টির দিকে নজর দেয়া উচিত, ‘খাকি জেলায় কিছু বিদেশি এসে নিজেদের দলে লোক সংগ্রহ করছে এবং তাদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে। আমার মনে হয়, আগামী বসন্তের আগেই এখানে যুদ্ধ শুরু হবে। সরকারের উচিত আগে থেকেই এমন কিছুর প্রস্তুতি নিয়ে রাখা।

আফগানিস্তানের নতুন সরকার বিষয়টিকে মোটেই হালকা করে দেখছে না। সম্প্রতি ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ আফগানিস্তান সফরে এসেছিলেন। তার সঙ্গে বৈঠকের সময় আফগানিস্তানের প্রধান নির্বাহী আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ বলেছেন, ‘আইএসের বিষয়টিকে কম গুরুত্ব দেয়া দুদেশের জন্যই মারাত্মক ভুল হবে। এ বিষয়টিতে দুদেশের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা আরো বাড়ানো দরকার।’

তবে এখনো কেউ কেউ মনে করেন যে, দুই তালেবান কমান্ডারের মধ্যে দ্ব›দ্ব দেখা দেয়ায় একটি অংশ আইএসে যোগ দিয়েছে। তাদের মতে, আফগানিস্তানের আইএসের অভয়ারণ্য হয়ে ওঠার সম্ভাবনা খুব কম। কিন্তু তাদের কথায় স্থানীয়দের মনের আতঙ্ক কাটছে না।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj