ঠান্ডা দিনের পার্টি সাজ

রবিবার, ২৮ ডিসেম্বর ২০১৪

দাওয়াত বা যে কোনো অনুষ্ঠান মানেই তরুণীদের ভারী গহনা, জমকালো পোশাক আর ভরপুর মেকআপ। বিশেষ করে শীতের সময় দাওয়াতের কথা উঠলেই আপনার মন বিষিয়ে ওঠে মেকি সাজের কথা ভেবে। পাশাপাশি পুরুষদের জন্য পার্টির সাজ পোশাক ক্যাজুয়ালই বেশি মানানসই। কিন্তু যান্ত্রিক সভ্যতার এই যুগে আপনি যতটা সম্ভব হালকা সাজ পোশাকেই নিজেকে উপস্থাপন করতে পারেন তাহলে সাজ পোশাকের বাড়াবাড়ি এড়িয়ে আপনি অনন্যা হয়ে উঠবেন সহজেই…

শীতের সময়টায় পোশাকে পুরুষদের দেহাবরণ ঢাকা পড়ে যায় উষ্ণ শীত পোশাকের আড়ালে। তবে শীতের বিভিন্ন পার্টিতে ছেলেদের সাজ পোশাকের ঝামেলা নেহায়েত কমই বলা যায়। খুব বেশি কর্পোরেট পার্টি না হলে চোখ বন্ধ করে চলে যেতে পারেন ক্যাজুয়াল ফরম্যাটে। শীতে বেøজার, পার্টি স্যু, ক্যাজুয়াল বা ফরমাল শার্ট থাকলেই মানানসই। তবে বেøজারের সঙ্গে শার্ট বা পলো শার্টের রঙয়ের দিকে বাড়তি খেয়াল রাখতে হবে। কোনমতেই একই রঙের যেন না হয় উভয় পোশাক। পাশাপাশি তরুণীদের ক্ষেত্রে সাজ পোশাকে হতে হবে আধুনিক। অনুষ্ঠানে বা যে কোনো দাওয়াতে জবরজং সাজের চেয়ে হালকা সাজে নিজেকে উপস্থাপন করুন। বেনারশি বা কাতান বাদ দিয়ে বেছে নিতে পারেন সুতি, কোটা তাঁত, এন্ডিকটন বা হালকা ধরনের জামদানি কাপড়, আবার শাড়িই পড়তে হবে এমন কোনো কথা নেই। পরিবেশ, অবস্থা, আয় ও আপনার রুচি অনুযায়ী কাপড় পড়ুন। কিন্তু অবশ্যই তা যেন আপনার ব্যক্তিত্বকে বজায় রাখে।

সাজের ক্ষেত্রে হালকা ধরনের মেকআপই আপনাকে অনন্য সাধারণ করে তুলবে। আর যারা নিয়মিত ত্বক এবং চুলের যতœ নেন তাদের জন্য তো কোনো চিন্তাই নেই। শুধু মুখটা ভালো করে ধুয়ে হালকা একটু ফেস পাউডার, কাজল আর হালকা রংয়ের লিপস্টিকই যথেষ্ট। পার্টির আমেজ আনতে চিরচেনা কাজলই একটু গাঢ় করে আপনার সুন্দর চোখে বুলিয়ে নিন। আপনার পোশাকের সঙ্গে মিল রেখে নানা রংয়ের পেন্সিল ব্যবহার করতে পারেন। কিন্তু সবার আগে লক্ষ্য রাখবেন কোন রং আপনাকে মানায়। চোখের বাইরে কাজল দিলে মাশকারা ও আইলাইনার না দিলেও চলবে। তবে অনুষ্ঠান যদি রাতের হয় তবে মাশকারা ও আইশ্যাডো ব্যবহার করুন। আপনার পোশাকের রংয়ের আইশ্যাডো বেøন্ড করেও দিতে পারেন। ভ্রæ পেন ব্যবহার করুন আপনার নিজস্ব স্টাইলে। লিপস্টিকের ক্ষেত্রে প্রথমে একই রংয়ের লিপলাইনার দিয়ে ঠোঁট সুন্দর করে এঁকে নিয়ে লিপস্টিক দিয়ে ভরাট করে দিন। আপনি যদি গøসি পছন্দ করেন তবে এর উপরে নরমাল কালারের লিপগøস ব্যবহার করতে পারেন। চুল আপনার সৌন্দর্যের অনেকখানি জায়গা জুড়ে আছে। তাই চুলের দিকে মনোযোগী হোন। বাড়িতে চুলের যতœ করুন। আর অনুষ্ঠানের জন্য চুলের স্টাইল নির্ভর করবে আপনার পোশাকের উপর। আপনি যদি শাড়ি পরেন তাহলে হাত খোঁপা করে চুলে ফুল লাগাতে পারেন। যা আপনাকে স্নিগ্ধতা এনে দেবে। আর আপনার চুল যদি ছোট হয় তাহলে ছেড়ে দিতে পারেন। এখন চলছে চুল রিবন্ডিং করার ট্রেন্ড। তাই অনুষ্ঠানের আগে ভালো হেয়ার আয়রন দিয়ে চুলটা সোজা করে নিতে পারেন। তবে অবশ্যই বার বার নয়। কারণ এতে চুলের ক্ষতি হয়।

ভারী গহনা বাদ দিয়ে পরতে পারেন মেটাল, এন্টিক ও রূপার গহনা। অন্যরকম লুকের জন্য মাটির গহনাও দারুণ। এছাড়া আপনি সাজতে পারেন ফুলের গয়না দিয়ে। কানে বেলি ফুলের দুল আর হাতে জড়াতে পারেন মালা। যে ফুল ভালোবাসে না তারও নারীর অঙ্গে ফুল দেখে ফুলকে ভালোবাসতেই হবে। শাড়ি অথবা সালোয়ার কামিজের সঙ্গে পরুন চুড়ি অথবা ব্রেসলেট। আপনার কপালের টিপ তো আপনার হয়েই কথা বলবে। তাই পোশাকের সঙ্গে মিল রেখে টিপ পরুন। নিজের তৈরি কম্বিনেশনের টিপ হলে তো কথাই নেই।

এবার আসুন অন্যরকম প্রসঙ্গে। হয়তো দেখা গেলো অফিস শেষেই অনুষ্ঠান। আপনার সাজের সময় সুযোগ একদমই নেই। এ রকম হলে প্রস্তুতি নিন সকালেই। অফিসে যাবার আগে ভালো করে গোসল করুন। তাহলে আপনাকে সতেজ লাগবে। এ সময় শ্যাম্পু করে কন্ডিশনার দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। হাত-পায়ের দিকে নজর দিন। কারণ সবকিছু ঠিকঠাক মতো হলেও হাত পায়ের অযতœ আপনাকে বিব্রত করতে পারে। অনুষ্ঠান বা দাওয়াতে যাবার আগে চুলটা আঁচড়ে নিন। বিয়ে দাওয়াত বা বন্ধুর জন্মদিনে আপনার ব্যক্তিত্ব বুঝে পোশাক নির্বাচন করুন। অনেক গয়নার ঝক্কি বাদ দিয়ে কানে বড় একজোড়া দুল, উৎসবের আমেজ এনে দেবে।

তাহলে সাজুন হালকা সাজে। সাধারণ সাজই আপনাকে এনে দেবে অনিন্দ্য দ্যুতি। মনে রাখবেন, যাই পরুন না কেন তা যেন আপনার ব্যক্তিত্ব, রুচি, সময় ও পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে যায়। ভেঙে ফেলুন ধরাবাঁধা প্রচলিত নিয়ম। নতুন করে সাজুন বাঙালি সাজে।

রাতের সাজ

শীতে অনুষ্ঠানের রকমফের আর বৈচিত্র্য ভেদে সাজটা হয় একটু বেশি। আর তা যদি হয় রাতে, তবে তো কথাই নেই। সাজার আগে নিজের ত্বকের ধরনটা জানতে হবে। সে অনুযায়ী মেকআপ করতে হবে। শীতেও মেকআপে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে। তাহলে সহজেই মেকআপের বেইজ ত্বকে বসে যায়। আবার রুক্ষ ত্বক হলে তরল ফাউন্ডেশন ব্যবহার করতে পারেন। ত্বকে ময়েশ্চারাইজার দেয়ার পাঁচ মিনিট পর কনসিলার লাগাতে হবে।

টিপস

* মেকআপের আগে ফেসওয়াশ লাগিয়ে মুখ ধুয়ে ক্লিনজিং মিল্ক দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন।

* টোনার দিয়ে মুখ ভালো করে মুছে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন।

* লিকুইড ফাউন্ডেশন মুখ-ঘাড়-গলায় ভালো করে বেøন্ড করে লাগান।

* ফাউন্ডেশন দেয়ার পরও মুখে যদি সূ² রেখা বা দাগ থাকে, তাহলে কনসিলার ব্যবহার করুন। ফেস পাউডার দিয়ে ফাউন্ডেশনটা বসিয়ে দিন।

* এবার চোখের মেকআপ শুরু করুন।

পোশাক ও তার রংয়ের ওপর নির্ভর করে মেকআপ করুন।

* পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে চোখে আইশ্যাডো ও গিøটার দিন।

* ব্লুাশন লাগান চিকবোন বরাবর। ব্লুাশন ব্যবহারের সময় সতর্ক থাকুন, যেন উগ্র না হয়ে যায়।

* লিপস্টিক লাগানোর আগে লিপলাইনার দিয়ে ঠোঁট এঁকে নিন। এরপর লিপব্রাশ দিয়ে লিপস্টিক লাগান।

* কপালের আকার অনুযায়ী ছোট-বড় টিপ পরতে পারেন।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj