অফিসের সাজ-পোশাক

রবিবার, ২৮ ডিসেম্বর ২০১৪

অফিসে কাজটাই মুখ্য, সেখানে পোশাকের দিকে অতোটা নজর না দিলেও চলে- এমন ধারণা বর্তমান যুগে অচল। স্মার্ট, পরিচ্ছন্ন গেটআপ আপনাকে করবে আত্মবিশ্বাসী যা অফিসের কাজেও ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। তাই আপনার সাজ-পোশাকও যখন ব্যক্তিত্বের মাপকাঠি হয়ে ওঠে তখন প্রয়োজন এ সম্পর্কে সঠিক ধারণা।

চাকরির প্রথমদিন। যে পোশাক পরে প্রথমদিন কাজে যোগ দিবেন, আপনার অফিসের ধরন বুঝুন এবং তারপর সিদ্ধান্ত নিন। শাড়িতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ না করলে ফরমাল ফুলসিøভ সালোয়ার কামিজ পরতে পারেন অথবা বিজনেস স্যুটেও মেয়েদের বেশ মানিয়ে যায়। যে ধরনের গয়না, জুতা বা ব্যাগ ব্যবহার করবেন তা নিয়েও ভাবনাচিন্তার প্রয়োজন আছে। কর্মক্ষেত্রে সুনাম অর্জন করার জন্য কর্মদক্ষতার সঙ্গে সঙ্গে প্রয়োজন এক সুন্দর পরিশীলিত ব্যক্তিত্ব। মিলেমিশে কাজ করার ক্ষমতা, সমস্যা হ্যান্ডেল করতে পারা। কম সময়ে নিখুঁত কাজ করার ক্ষমতা ছাড়াও আরো যে জিনিসটা সবাই লক্ষ করেন তাহলো আপনার ড্রেসসেন্স। তাই ড্রেসসেন্স নিয়ে কিছু পরামর্শ।

০ অফিসে জয়েন করার আগে দেখে নিন বেশির ভাগ কর্মচারী কী ধরনের পোশাক পরে অফিসে আসেন। যেমন স্কুল বা কলেজে শিক্ষকরা সাধারণত বাঙালি পোশাক (শাড়ি বা সালোয়ার কামিজ) পরেন। আবার কর্পোরেট অফিসের লোকজন বিজনেস স্যুটেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন।

০ আপনার প্রাথমিক পোশাক বাছাইপর্ব এই ভিত্তিতে করুন।

০ খেয়াল রাখবেন অফিসের পোশাক যেন রঙ, ডিজাইন বা কাটের দিক দিয়ে উগ্র বা লাউড না হয়।

০ অফিসে অলংকার পরার ব্যাপারে সংযত থাকুন। চওড়া নেকলেস, ঝুলন্ত দুল, বড় আংটি অফিসে একেবারেই মানায় না। ছোট পাথর বা হীরে বসানো প্লেন আংটি অনেক বেশি শোভনীয়।

০ জুতা এবং ব্যাগের রঙ কাছাকাছি শেডের মধ্যে বাছুন। ল্যাপটপ ক্যারি করতে হলে এমন ব্যাগ বাছুন, যাতে ল্যাপটপের সঙ্গে অন্যান্য জিনিস নিতে পারেন। বেশি পকেট বিশিষ্ট ব্যাগ ব্যবহার করুন। বিভিন্ন পকেটে জিনিস রাখার অভ্যেস করলে জিনিস খুঁজে পেতে সহজ হবে।

০ অফিসে যাওয়ার সময় হালকা ফাউন্ডেশন এবং কম্প্যাক্ট ব্যবহার করুন। আই মেকআপের জন্য কাজল বা আইলাইনারই যথেষ্ট। ঠোঁটে হালকা লিপস্টিক লাগালেই আপনার সাজ কমপ্লিট। তবে বেরুনোর আগে ভালো করে ডিওডোরেন্ট বা পারফিউম লাগাতে ভুলবেন না।

:: মুনতাহা খান আঁচল

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj