ট্রেন্ড : চুলের ফ্যাশনে বব কাট

রবিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৪

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের আগে থেকেই ১৯১০ সালে বব কাটের প্রচলন করে ফ্রান্সের নায়িকা পোলেইয়ার। ১৮৯০ সালে পাশ্চাত্য সমাজে মেয়েদের চুলের এই বব কাটকে অসম্মানের চোখে দেখা হতো।

পুরনো এক বান্ধবীর সঙ্গে দেখা অনেক দিন পর। মৌসুমির মতন কোমর ছাপানো ঝলমলে চুল কোথায় উধাও? বরং সেদিনের বব কাট চুলের সঙ্গে তার ছোট্ট মুখের লাবণ্য আর আত্মবিশ্বাস আমাকে চমকিত করেছে। হেসে বললো, কাটছাঁট জীবনের সঙ্গে মানিয়ে চুলের স্টাইল বেছে নিয়েছি। সারা দিন যে দৌড়ের ওপর থাকি। সময় কই লম্বা কেশের যতেœর?

তারপর থেকেই মাথায় বব কাটের হেয়ার ডু ঘোরাফেরা করছে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের আগে থেকেই ১৯১০ সালে বব কাটের প্রচলন করে ফ্রান্সের নায়িকা পোলেইয়ার। ১৮৯০ সালে পাশ্চাত্য সমাজে মেয়েদের চুলের এই বব কাটকে অসম্মানের চোখে দেখা হতো। ১৯১৪ সালে আমারিকায় ঝড় তুললো নামকরা নৃত্যশিল্পী এবং ট্রেন্ড সেটার আইরিন ক্যাসেল তার ক্যাসেল বব কাট নিয়ে। তারপর থেকেই বব কাটের চল শুরু হয় দুনিয়াজুড়ে। অভিনেত্রী, গায়িকা, ফার্স্ট লেডি, সমাজের সর্বস্তরের মহিলারা এই বব কাটের প্রেমে পড়েন। জ্যাকুলিন কেনেডির সৌন্দর্য তিনগুণ হয়ে যায় তার এই চুলের কাটে। মেরলিন মনরো বব কাটকে কার্লি করে লাইম লাইটে সবাইকে মুগ্ধ করেছে। ম্যাডোনা, রিহানা, ব্রিটনি স্পেয়ার্স থেকে শুরু করে অনেকেই বিভিন্ন কর্নসাটে বা ফোটোশুটে বব চুলের লুকটাকে প্রাধান্য দিয়েছে। হলিউড থেকে বলিউড, স্কুল শিক্ষিকা থেকে ছাত্রী, গৃহিণী থেকে কর্পোরেটে কর্মরত নারী, কে নেই এই লিস্টে যে সহজ জীবনের খোঁজে সহজ বব কাট বেছে নেয়নি। পলিউশেনের যুগে লম্বা চুলের যতœ এক চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এখন আসি বব চুলের রকমফের নিয়ে। সময়ের হাত ধরে এই হেয়ার ডু বিভিন্ন মাত্রা পেয়েছে। এশিয়ান বব নামে পরিচিত যেটা সেটা নেক লাইন স্পর্শ করে ঘুরিয়ে কাটা হয়। এই প্রসঙ্গে জয়পুরের মহারানী গায়ত্রী দেবীর কথা না বললেই নয়, বব কাট চুলে তিনি হয়ে ওঠেন সুন্দর আর আভিজাত্যের অরূপ মিশেল। তারপর এ লাইন বব, মানে হচ্ছে চুল একটু লম্বা থাকবে সামনে। শেগি বব, বাজ কাট বব, শিনগেল বব মেয়েদের মধ্যে চালু হয়েছিল ১৯২৪ সালে। এই কাট নিচের দিকে নেকের কাছে রেজর কাট এবং খুবই ছোট হয়। আরেক অর্থে এটা গ্র্যাজুয়েট বব নামে পরিচিত। সোলডার লেন্থ, চিন লেন্থ বব কাট ইত্যাদি কতো যে শ্রেণী বিভাগ। একটা কথা খুব গুরুত্বপূর্ণ মুখের আদলের সঙ্গে মানিয়ে এই কাটগুলো করা উচিত। একজন হেয়ার স্টাইলিস্ট বলতে পারেন নির্ভুলভাবে কার মুখের সঙ্গে কোন হেয়ার কাট মানিয়ে যাবে। সেজন্য আরেকজনকে খুব ভালো লাগছে বলে আমাকেও ভালো লাগবে তেমন কোনো গ্যারান্টি নেই। তাই চুলের স্টাইল নির্ধারণ করার আগে হেয়ার স্টাইলিস্টের সঙ্গে পরামর্শ করা অত্যন্ত জরুরি। শাড়ি বা সালওয়ার কামিজের সঙ্গে তরুণী, মধ্য বয়সী বা আরো অধিক বয়সী নারীকে দারুণ লাগে এই হেয়ার কাটে। বেøা ড্রাই দিয়ে বা হেয়ার স্ট্রেইটনার দিয়ে চুল সেট করা যায়। তরুণীরা বব কাটের চুলে হাফ হেড হাইলাইট করলে একটা মেট্রো লুক আসবে। বব কাটকে নেক লাইনের কাছে ঘুরিয়ে না কেটে একটু স্ট্রেইট করে কেটে একটা ব্লুান্ট লুক দেয়া যায়। ২০১৪/১৫ তে বব কাট নতুন মোড়কে ভিন্ন ভিন্ন লুকে ইন। যে কোনো বয়সী নারী দেশে, বিদেশে ব্যক্তিত্বময়ী, লাবণ্যময়ী হয়ে উঠতে পারেন চুলের ফ্যাশনের একটু অদল বদল করে। এ যেন রূপ আর জীবনে একটু স্পাইস যোগ করা।

:: তাহমিনা রশিদ

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj