জেনে নিন : চাকরির সম্ভাবনা

রবিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৪

আপনি যদি কোনো চাকরির সন্ধানে থাকেন তাহলে প্রথম কাজ হলো আপনার জীবন বৃত্তান্ত বা সিভিটি সুন্দর ভাবে তৈরি করা। এজন্য তা এমনভাবে তৈরি করতে হবে যেন, অন্যদের থেকে উন্নত ও ভিন্নধর্মী হয়।

১. নিয়োগকর্তার চাহিদা খেয়াল রাখুন : কোনো প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ করার জন্য নিয়োগকর্তা তাদের চাহিদা মেটে এমন ব্যক্তিকেই বেছে নেবে। আর আপনার অন্য গুণ যতই থাকুক, তা নিয়োগকর্তার কাছে বিবেচ্য হবে না। তাই নির্দিষ্ট একটি চাকরির জন্য তাদের প্রতিষ্ঠানের চাহিদা মেটে, বিষয়গুলো যোগ করে সিভি তৈরি করুন।

২. ছোট কিন্তু তথ্যবহুল সিভি : চাকরির জন্য একটি সিভি দেয়া প্রয়োজন। আর এ সিভি অতিরিক্ত বড় করে ফেললে তা নিয়োগকারীর ধৈর্যচ্যুতি ঘটাতে পারে। অন্যদিকে আপনারও প্রয়োজন যথাসম্ভব তথ্য তাতে উপস্থাপন করা। তাই যথাসম্ভব ছোট ও তথ্যবহুল সিভি তৈরি করুন। এতে রাখতে হবে শুধু নিয়োগকর্তার জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য।

৩. নমনীয় হোন : প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতে গেলে কাজের স্বার্থে সেখানকার নানা সুবিধা-অসুবিধা ইত্যাদি সব কর্মী মেনে নেবে, এমনটাই আশা করে নিয়োগকর্তা। এক্ষেত্রে আপনি নমনীয় কি না, তা তারা যাচাই করতে পারে। আর আপনি যদি এসব বিষয় মানতে অসম্মতি জানান, তাহলে নিয়োগকর্তা কখনোই আপনাকে চাকরিতে নেবে না। এজন্য আপনি যদি কাজের স্বার্থে বাড়তি পরিশ্রম, ভ্রমণ ইত্যাদি করতে রাজি থাকেন তাহলে তা নিয়োগকারীকে জানিয়ে দিতে পারেন।

৪. রেফারেন্স দিন : বহু চাকরিই পরিচিত মানুসের মাধ্যমে হয়। আর কোনো চাকরির ক্ষেত্রে যদি আপনার কোনো রেফারেন্স থাকে তাহলে তা ব্যবহার করতে ভুলবেন না। হতে পারে, অতীতে কোনো চাকরিতে আপনার খুব ভালো পারফর্মেন্স ছিল এবং তার সাক্ষী ছিলেন আপনার কোনো বস। এক্ষেত্রে তার রেফারেন্স দিলে চাকরি পাওয়ার বিষয়টি সহজ হতে পারে।

৫. প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব: চাকরি মানে এখন তুমুল প্রতিযোগিতা। আর এক্ষেত্রে প্রতিযোগিতামূলক মনোভাবের বিকল্প নেই। এখানে অন্যদের তুলনায় সিভিতে কিছুটা করে বিষয় উন্নত রাখতেই হবে।

৬. সৎ থাকুন : আপনার নিজের যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতার বিষয়ে সৎ থাকার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। নিয়োগকর্তা ইচ্ছে করলেই আপনার সব যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা যাচাই করে নিতে পারে। তাই এক্ষেত্রে মিথ্যা তথ্য দিলে ধরা পড়ার সম্ভাবনা থাকে।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj