মাশরুম চাষ করে স্বাবলম্বী লক্ষীপুরের লক্ষণ

শনিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৪

সারা দেশ ডেস্ক : লক্ষীপুর পৌরসভার দক্ষিণ মজুপুর এলাকায় মাশরুম চাষ করে ভাগ্য মবদল করেছেন যুবক লক্ষণ চন্দ্র আচার্য। এ সফলতায় উদ্বুদ্ধ হয়ে তার কাছ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে ওই এলাকার আরো অর্ধশতাধিক বেকার যুবক মাশরুম চাষ শুরু করেছেন।

এদের মধ্যে অনেকেই সাফল্য পেয়েছে। লক্ষণ চন্দ্র আচার্য জানান, ২০০৬ সালে তিনি কৃষি ডিপ্লোমা পাস করেন। চাকরি না পেয়ে হতাশাগ্রস্ত এ যুবক ২০০৭ সালে কুমিল্লার শাসনগাছার হর্টিকালচার সেন্টার থেকে মাশরুম চাষে প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজ বসতবাড়ির একাংশে মাশরুম চাষ শুরু করেন। বর্তমানে প্রতি মাসে মাশরুম বিক্রি করে তিনি ৭ থেকে ৮ হাজার টাকা আয় করছেন। লক্ষীপুরের বাজারে বর্তমানে প্রতি কেজি কাঁচা মাশরুম ২শ টাকা এবং প্রতি কেজি পাউডার মাশরুম ২ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মাশরুমের একটি বীজ ২২ টাকা থেকে ২৫ টাকায় কেনার পর আড়াই থেকে তিন মাস এ বীজ থেকে একটানা ফলন পাওয়া যায়। এ পর্যন্ত প্রায় ৫০ বেকার যুবকে তিনি মাশরুম চাষে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন। এদের অনেকেই বর্তমানে মাশরুম চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করছে। সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কিশোর কুমার মজুমদার বলেন, মাশরুম চাষ অত্যন্ত লাভজনক। কেউ চাষ করতে চাইলে আমরা তাদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে দেবো।

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj