শাহজালালে থার্মাল স্ক্যানার স্থাপন : ইবোলা শনাক্তে আরো এগোলো বাংলাদেশ

বৃহস্পতিবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৪

কাগজ প্রতিবেদক : হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইবোলা ভাইরাস শনাক্ত করতে থার্মাল স্ক্যানার স্থাপন করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম গতকাল বুধবার বিমানবন্দরের ভিআইপি টার্মিনালে ১টি ও সাধারণ টার্মিনালে ২টি থার্মাল স্ক্যানার যন্ত্রের উদ্বোধন করেন। এ সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সিঙ্গাপুর থেকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সহযোগিতায় এ থার্মাল স্ক্যানার সংগ্রহ করা হয়েছে। সিঙ্গাপুরের থার্মাল স্ক্যানার অপারেটররাই এটা পরিচালনা করবে। পাশাপাশি আমাদের দেশের অপারেটরদেরও প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। তিনি আরো বলেন, থার্মাল স্ক্যানার স্থাপনের মাধ্যমে দেশের মানুষের শত ভাগ নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হচ্ছে। ইবোলা মোকাবেলায় সবদিক থেকে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। আমরা অনেক কাজ করলেও অনেকেই আমাদের ভালো কাজের প্রশংসা করে না।

এর আগে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্যে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ পরিচালক অধ্যাপক বেনজির আহমেদ বলেন, এ পর্যন্ত ইবোলা আক্রান্ত দেশসমূহ হতে আগত ২১৫ জন যাত্রীকে শনাক্ত করে স্ক্রিনিং করা হয়েছে। তাদের কারো মধ্যে সন্দেহজনক ইবোলা রোগী পাওয়া যায়নি। তিনি বলেন, আগত যাত্রীদের মধ্যে ১৭৭ জনের ২১ দিনব্যাপী পর্যবেক্ষণ সমাপ্ত হয়েছে। তারা সবাই ইবোলামুক্ত আছেন।

এ সময় আরো জানানো হয়, প্রায় ৩৫ লাখ টাকা মূল্যের এ থার্মাল স্ক্যানার সংগ্রহ করা হয়েছে ৭টি। এর মধ্যে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ৩টির পাশাপাশি চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে ১টি, সিলেটের কর্নেল এমএজি ওসমানী বিমানবন্দরে ১টি, বেনাপোল স্থলবন্দরে ১টি থার্মাল স্ক্যানার স্থাপন করা হবে। ১টি স্ক্যানার সংরক্ষণ করা হবে জরুরি প্রয়োজনের জন্য।

সিঙ্গাপুরের ‘ওমনিসেন্স সিস্টেমস প্রাইভেট লিমিটেড’ হতে বাংলাদেশী এজেন্ট ‘ফার্মা এন্ড ফার্ম’ এ স্ক্যানারগুলো সংগ্রহ করে। এ যন্ত্রগুলো শুধু ইবোলা প্রতিরোধ নয়, ভবিষ্যতে অন্যান্য রোগ প্রতিরোধেও সহায়ক হবে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, ইবোলা আমাদের জন্য নতুন অভিজ্ঞতা। এ রোগ প্রতিরোধে ২৭টি টিম কাজ করছে। এর মাধ্যমে প্রমাণ হলো যে কোনো রোগ মোকাবেলায় সরকার ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সক্ষম।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, স্বাস্থ্য সচিব সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপচিালক দীন মোহাম্মদ নূরুল হক ।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj