আল-আকসা নিয়ে জর্দান ইসরায়েলের টানাপোড়েন

শনিবার, ৮ নভেম্বর ২০১৪

কাগজ ডেস্ক : জেরুজালেমের আল-আকসা মসজিদ ও সংলগ্ন প্রাঙ্গণে সৃষ্ট পরিস্থিতি নিয়ে ইসরায়েলের সঙ্গে প্রতিবেশী জর্দানের সম্পর্কে টানাপোড়েন তৈরি হয়েছে। গত বুধবার সকালে ওই প্রাঙ্গণের কাছাকাছি ইসরায়েলি পুলিশের সঙ্গে ফিলিস্তিনিদের সংঘর্ষের পর ইসরায়েল থেকে নিজ রাষ্ট্রদূতকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে জর্দান।

১৯৯৫ সালে ইসরায়েল-জর্দান শান্তি চুক্তি সই হওয়ার পর থেকে এ প্রথম এ ধরনের ঘটনা ঘটলো। ফিলিস্তিনি কর্মকর্তারা দাবি করেছেন, ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনী আল- আকসা মসজিদের ভেতরে প্রবেশ করেছিল।

অভিযোগটি সত্য হলে ১৯৬৭ সালের পর এ প্রথম ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনী মুসলিমদের তৃতীয় পবিত্রতম ওই স্থানে প্রবেশ করলো। তবে ফিলিস্তিনি কর্মকর্তাদের অভিযোগ অস্বীকার করেছে ইসরায়েলি পুলিশ।

আল-আকসা মসজিদকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট উত্তেজনার জের ধরে রাষ্ট্রদূতকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে জর্দান।

প্যারিসে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরির সঙ্গে বৈঠকের প্রস্তুতিকালে জর্দানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী নাসের জুদেহ বলেছেন, আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণের পরিস্থিতির কারণে আম্মান তার রাষ্ট্রদূতকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে। তিনি বলেছেন, ‘আমরা বার বার ইসরায়েলকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে বার্তা দিয়েছি যে, জেরুজালেম রেড লাইন।’

মসজিদে নামাজ পড়তে আসা লোকজনকে বাধা দিয়ে, তাদের হেনস্তা করে, মসজিদ প্রাঙ্গণে ইহুদি মৌলবাদীদের প্রবেশ করতে দিয়ে ইসরায়েল চুক্তি লঙ্ঘন করেছে বলে অভিযোগ করেছেন নাসের। তিনি বলেছেন, এসব লঙ্ঘন বিশ্বব্যাপী মুসলিমদের ক্ষুব্ধ করেছে।

জর্দানের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা পেত্রা জানিয়েছে, জেরুজালেম ও আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে ইসরায়েলের সাম্প্রতিক পদক্ষেপগুলোর বিষয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দায়ের করবে জর্দান। এর প্রতিক্রিয়ায় ইসরায়েলি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইমানুয়েল নাহশন বলেছেন, জর্দান ভুল করছে এবং দেশটির এসব পদক্ষেপ জেরুজালেমের উত্তেজনা নিরসনে কোনো ভূমিকা রাখবে না।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj