বড় ক্ষতিপূরণ দাবি ভারতের

সোমবার, ২০ অক্টোবর ২০১৪

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দল মাঝপথেই সফর ত্যাগ করায় বড় অঙ্কের ক্ষতির সম্মুখীন হতে যাচ্ছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। ক্যারিবিয়ানরা সফর বাতিলের পর শ্রীলঙ্কা ভারত সফরে এলেও বিশাল অঙ্কের ঘাটতি থেকে যাবে। এ ক্ষতির পরিমাণ ঠিক কতো দাঁড়াবে তা এখনো বলা যাচ্ছে না। তবে তা আনুমানিক চারশ কোটি রুপি ছাড়াতে পারে। আগামী বুধবার হায়দ্রাবাদে বিসিসিআইর এক সভা অনুষ্ঠিত হবে। সে সভাতেই বিসিসিআই সিদ্ধান্ত নেবে ডব্লিউআইসিকে তারা এই ক্ষতিপূরণ দিতে বলবে কিনা।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দল ভারতে পাঁচটি ওয়ানডে, একটি টিটোয়েন্টি ও তিনটি টেস্ট খেলার কথা ছিল। কিন্তু ক্যারিবিয়ানরা ধর্মশালায় চতুর্থ ওয়ানডে খেলার পরপরই তারা সফর বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়। ডব্লিউআইসি ব্রাভোদের দাবি-দাওয়া পূরণ করতে না পারায় তারা দেশে ফিরে যায়। ভারতে আরো একটি ওয়ানডে, একটি টিটোয়েন্টি ও তিনটি টেস্ট ম্যাচ খেলার কথার ছিল সফরকারীদের। তাদের পরিবর্তে শ্রীলঙ্কা ভারতে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলবে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ১৭টি ম্যাচ-ডের পরিবর্তে ভারত শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পাচ্ছে মাত্র ৫ দিন। এর ফলে ২০১৪-১৫ মৌসুমে বিসিসিআইকে ১২ দিনের ঘাটতি নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হবে। এ ক্ষতিপূরণ তারা ওয়েষ্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের নিকট দাবি করতে পারে।

এ ঘাটতি প্রসঙ্গে বিসিসিআই সেক্রেটারি সঞ্জয় প্যাটেল ইএসপিএন ক্রিকইনফোকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দল ভারত সফর অসম্পূর্ণ রাখায় আমরা অনেক বড় অঙ্কের ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছি। হায়দ্রাবাদে বিসিসিআইর ২১ অক্টোবরের সভায় এ বিষয়ে আলোচনা করা হবে- কিভাবে এ ক্ষতি পুষিয়ে নেয়া যায়। তাদের অভ্যন্তরীণ সমস্যার কারণে এ সফর বাতিল হয়েছে আর ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছি আমরা। আমরা চেষ্টা করবো আইনগতভাবে এ ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার। এ নিয়ে কমিটি ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার সিদ্ধান্ত নেবে।

২০১৩-১৪ মৌসুমে ভারতে প্রতি ম্যাচ -ডেতে আয়ের পরিমাণ ছিল প্রায় ৩৩ কোটি রুপি। এ বছরও আয়ের পরিমাণ গত বছরের প্রায় সমান। ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে খেলতে না পারায় ১২ ম্যাচ-ডেতে ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াবে ৩৯৬ কোটি রুপি। বিসিসিআইর এই ঘাটতির তালিকায় থাকছে সম্প্রচার মাধ্যমের স্পন্সরশিপ, সিরিজ টাইটল স্পন্সরশিপ, পোশাক স্পন্সরশিপ, সম্প্রচার মাধ্যমের সঙ্গে বিজ্ঞাপন সংস্থার স্পন্সরশিপ ও স্টেডিয়ামে বিজ্ঞাপন সংস্থার সঙ্গে স্পন্সরশিপ। এখানে অন্যান্য চুক্তি ম্যাচ-ডের সঙ্গে সম্পর্কিত থাকলেও পোশাক স্পন্সরশিপটা পুরো সিরিজের জন্য নির্ধারিত। এর মানে পোশাক স্পন্সরশিপের পুরো টাকাই ফেরত দিতে হবে বিসিসিআইকে। শুধু বিসিসিআই নয়, এ ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে ভারতের স্টেট এসোসিয়েশনও। বিসিসিআইযের আয়ের ৭০ ভাগ সমান অংশ করে পায় রঞ্জি ট্রফিতে অংশ নেয়া ২৭টি রাজ্য। ইন্টারনেট।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj