ডি ক্রুইফের শিষ্যদের হংকং পরীক্ষা আজ

সোমবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৪


শামসুজ্জামান শামস : শক্তিশালী আফগানিস্তানকে হারিয়ে আত্মবিশ্বাসের পারদ বেশ ওপরে তোলেছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের। দক্ষিণ কোরিয়ার ইনচনে আজ অগ্নিপরীক্ষায় নামছে মামুনুল-হেমন্তরা। লোডভিক ডি ক্রুইফের শিষ্যদের সামনে ইতিহাস গড়ার হাতছানি। এশিয়ান গেমসের ফুটবলে বাংলাদেশ দল এর আগে দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি। যাদের লালাটে ২২ ম্যাচে মাত্র ৩টি জয়ের রেকর্ড তারা আজ সেই অসাধ্যকে বাস্তবে রূপ দেয়ার দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে মাঠে নামছে। আজ হংকংকে হারাতে পারলে ইতহাসে ঠাঁই পাবেন মামুনুল-ওয়াহিদরা। যারা নিজেদের চেয়ে ৫১ ধাপ ওপরে থাকা আফগানদের হারাতে পারেন তারা চেষ্টা করলে ১৭ ধাপ ওপরে থাকা হংকংকেও হারাতে পারবেন। হংকংকে হারানো মানে ইতিহাস গড়ে শেষ ষোলোতে চলে যাবেন লোডভিক ডি ক্রুইফের শিষ্যরা। এবার এশিয়ান গেমসের ফুটবলে প্রতিটি গ্রুপ থেকে দুটি করে দল কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার সুযোগ পাবে। ‘বি’ গ্রুপ থেকে উজবেকিস্তান এবং হংকং দুই ম্যাচ শেষে চার পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলার সম্ভাবনা জাগিয়ে রেখেছে। বাংলাদেশ দল দুই ম্যাচ থেকে তিন পয়েন্ট নিয়ে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এ চেষ্টায় শতভাগ সফলতা পেতে হলে জয়ের বিকল্প নেই। বাংলাদেশ দলকে যে কোনো মূল্যে হংকংকে হারাতেই হবে। দুই ম্যাচ থেকে চার পয়েন্ট নিয়ে সুবিধাজনক স্থানে থাকা হংকং আজ লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে ড্র করতে পারলেও শেষ ষোলোতে পৌঁছে যাবে। হংকং উজবেকিস্তানের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করলেও পরের ম্যাচে আফগানদের হারিয়েছে। বাংলাদেশ দল আফগানদের হারালেও পরের ম্যাচে উজবেকিস্তানের বিপক্ষে হেরেছে ৩-০ গোলে।

বাংলা মায়ের দামাল ছেলেরা আজ জয়ের ব্যাপারে মরিয়া। অধিনায়াক মামুনুল ইসলাম জানিয়েছেন, আজ আমরা জয়ের জন্যই নামবো। সবাই প্রতিজ্ঞা করেছিলাম আফগানিস্তানকে হারাবো, হারিয়েছি। আমাদের এবারের টার্গেট হংকং। দলটিকে হারালে আমরা উঠবো শেষ ষোলোতে।

সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকবে হংকংকে হারানোর। সবাই মানসিকভাবে প্রস্তুত আছি। গত গুয়াংজু এশিয়ান গেমস ফুটবলেও বাংলাদেশ গ্রুপে ছিল হংকং। বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ ফুটবল দল হংকং অনূর্ধ্ব-২৩ ফুটবল দলের বিপক্ষে ৪-১ গোলে হেরেছিল। সদ্য প্রকাশিত ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের মতো হংকংও পিছিয়েছে। এশিয়ান গেমস শুরু আগে হংকংয়ের র‌্যাঙ্কিং ছিল ১৬১ আর বাংলাদেশের ছিল ১৭০। এখন বাংলাদেশের অবস্থান ১৮১তম স্থানে হংকং রয়েছে ১৬৪তম স্থানে। রেকর্ড ঘেঁটে দেখা গেছে বাংলাদেশ ফুটবল দল এ পর্যন্ত হংকংকে হারাতে পারেনি। ম্যাচ ড্রয়ের নজির স্থাপন করেছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা।

আজ হংকংকে হারানো সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। এই সুযোগ লোডভিক ডি ক্রুইফের শিষ্যরা সদ্ব্যবহার করতে পারলে ৫৬ হাজার ৫৯৮ বর্গমাইলে আনন্দের জোয়ার বইবে। এই আনন্দের জোয়ার বাংলাদেশের চৌহদ্দি ছাড়িয়ে বিশ্বের আনাচে-কানাচে পৌঁছে যাবে। ১৯৭৫ সালে মালয়েশিয়ার অনুষ্ঠিত মারদেকা কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে হংকং বাংলাদেশকে ৯-১ গোলে হারিয়েছিল। ২০০৩ সালে হংকংকে ২-২ গোলে রুখে দিয়েছিল লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। গত এক সপ্তাহে ফুটবল অনুরাগীরা সুসংবাদ পেয়ে আসছেন। মামুনুলরা ইনচনে আফগানদের হারানোর পর কলম্বোয় শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র মঙ্গোলিয়ার আর্চিম ক্লাবকে হারিয়েছে। লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা আজ ইনচন থেকে আবারো জাতিকে শুভ সংবাদ দেবে এমনটাই সকলের প্রত্যাশা।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj