দেপোর্তিভোয় রিয়ালের রুদ্রমূর্তি : রিয়াল মাদ্রিদের ৮ গোলে রোনালদোর ৩

সোমবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৪

লিগের শুরুটা মোটেই ভালো হয়নি স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদের। সবেমাত্র শুরু হয়েছে লিগ। এর মধ্যেই টানা দুটি ম্যাচ হেরে বসে আছে রিয়াল। এই জন্যই একটু তেতে ছিলেন রোনালদোরা। রিয়ালের সেই উত্তাপেই পুড়ে ছারখার হয়ে গেলো দেপোর্তিভো লা করুনা। শনিবার ৮-২ গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে রিয়াল। রিয়ালের আট গোলের জয়ে হ্যাটট্রিক করেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। দুটি গোল করেন গ্যারেথ বেল ও জ্যাভিয়ের হার্নান্দেজ। অন্য গোলটি করেন হামেস রদ্রিগেজ।

দেপোর্তিভোর মাঠে শুরু প্রতিপক্ষের জাল খুঁজে পেতে একটু সময় নেয় রিয়াল মাদ্রিদ। ২৯ মিনিটে দেপোর্তিভোর গোলমুখ আলগা করে দেয়ার কাজটি করেন রোনালদো। আলভারো আলবেরোয়ার ক্রসে হেড করে দেপোর্তিভোর জাল খুঁজে নেন পর্তুগালের এই তারকা। সাত মিনিট পর ব্যবধান দ্বিগুণ করে ফেলেন রদ্রিগেজ। কলম্বিয়া তারকার বাঁকানো শটে জালে জড়ানোর সময়ও বোঝা যায়নি কী অপেক্ষা করছে স্বাগতিকদের সামনে। ৪১ মিনিটে দেপোর্তিভোর গোলরক্ষকের ভুলে স্কোর লাইন ৩-০ করেন রোনালদো। ডিফেন্ডাররা থাকলেও এগিয়ে এসে করিম বেঞ্জামাকে বাধা দিতে চেয়েছিলেন স্বাগতিক গোলরক্ষক। তিনি পারেননি, বল পেয়ে যান রোনালদো। ফাঁকা জালে বল পাঠাতে কোনো ভুল করেননি তিনি।

৩-০ ব্যবধানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয়ার্ধ শুরু করা দেপোর্তিভোকে আরো পাঁচবার নিজেদের জাল থেকে বল কুড়িয়ে আনতে হয়েছে। তবে এই সময়ে দুবার ইকার কাসিয়াসকেও পরাস্ত করে স্বাগতিকরা। ৫১ মিনিটে পেনাল্টি থেকে ব্যবধান কমান হ্যারিস মেদুনজানিন। তবে বেশিক্ষণ সেই স্বস্তি থাকেনি স্বাগতিক শিবিরে। ৬৬ ও ৭৪ মিনিটে দুবার দেপোর্তিভোর জালে বল পাঠান ওয়েলস তারকা বেল। প্রথমটিতে অবদান রাখেন মার্সেলো আর দ্বিতীয়টিতে ইসকো। বেলের দ্বিতীয় গোলটির চার মিনিটের মধ্যে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন রোনালদো। রদ্রিগেজের পাস থেকে নির্ভুল নিশানায় বল পাঠিয়ে ম্যাচে নিজের তৃতীয় গোলটি আদায় করে নেন ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলার। ৮৪ মিনিটে গোলে ব্যবধান খানিকটা কমায় দেপোর্তিভো। তবে দেপোর্তিভোর দুঃস্বপ্ন আরো প্রলম্বিত করেন ৭৭ মিনিটে বেলের বদলে নামা এর্নানদেস। ৮৮ ও যোগ করা সময়ে দুবার স্বাগতিকদের জালে বল পাঠিয়ে রিয়ালের বড় জয় নিশ্চিত করেন চলতি মৌসুমেই ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড থেকে আসা এই স্ট্রাইকার।

রিয়ালের গোলউৎসবের দিনে ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়ে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। সেল্টা ভিগোর বিপক্ষে তাদের ম্যাচটি ২-২ গোলে শেষ হয়।

অ্যাটলেটিকোর মাঠ ভিসেন্তে ক্যালদেরনে ১৯তম মিনিটে এগিয়ে যায় সেল্টা ভিগো। আর্জেন্টিনায় জন্ম নেয়া চিলির মিডফিল্ডার পাবলো এর্নানদেসের ফ্লিক জালে জড়ালে নীরবতা নেমে আসে স্টেডিয়ামে। সমতা ফেরাতে বেশি সময় নেয়নি অ্যাটলেটিকো। ৩১তম মিনিটে কোকের ফ্রি-কিক থেকে মিরান্দার ভলি অতিথিদের জাল খুঁজে পায়।

১০ মিনিট পর দিয়েগো গদিনের গোলে এগিয়েও যায় অ্যাটলেটিকো। গ্যাব্রির কর্নার থেকে গদিনের হেড লক্ষ্যে পৌঁছলে স্বস্তি ফেরে স্বাগতিক শিবিরে। ৫৩তম মিনিটে নলিতোর সফল পেনাল্টিতে সমতা ফেরায় সেল্টা। মিরান্দা প্লানাসকে ফাউল করলে পেনাল্টি পায় অতিথিরা। তিন পয়েন্টের মরিয়া স্বাগতিকরা সেল্টার রক্ষণভাগের ওপর প্রচণ্ড চাপ তৈরি করে। কিন্তু অতিথিদের জমাট রক্ষণ ভাঙা সম্ভব হয়নি অ্যাটলেটিকোর খেলোয়াড়দের। ইন্টারনেট।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj