ম্যানইউয়ের হতাশার পরাজয়

সোমবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৪

প্রথমার্ধ শেষ হয়েছিল ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে। শেষ পর্যন্ত এগিয়ে থাকা দলই হারলো ৫-৩ ব্যবধানে! প্রিমিয়ার লিগের এক দুর্ভাগ্যজনক ম্যাচে লেইচেস্টার সিটির বিপক্ষে দুর্দান্ত খেলেও এই বড় ব্যবধানে হেরেছে। সবাইকে বিস্মিত করে দেয়া স্কোরলাইনের এই ম্যাচে ম্যানইউ দুই পেনাল্টি গোলের পাশাপাশি হজম করেছে একটি লাল কার্র্ডও।

ম্যাচের শুরু থেকেই দাপট দেখিয়ে খেলতে থাকে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। লেইচেস্টারের অ্যাটাকিং থার্ডে বারবার বিপজ্জনকভাবে হানা দিচ্ছিলেন ডি মারিয়া-ফ্যালকাও-পার্সিরা। এবং ম্যাচের ১২ মিনিটেই এগিয়ে যায় ম্যানইউ। ফ্যালকাও দুর্দান্তভাবে বল বের করে নিয়ে এসে ভ্যান পার্সির দিকে বাড়িয়ে দেন। দুর্দান্ত হেডে লেইচেস্টারের গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন পার্সি। এর মাত্র চার মিনিটের মধ্যে আবারো সেন্টার বক্স থেকে রুনির বাড়িয়ে দেয়া বল থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ডি মারিয়া। অবশ্য এর ফিরতি বল থেকেই লিওনার্দো ওলোয়া লেইচেস্টারের হয়ে প্রথম গোলটি করেন। প্রথমার্ধে আরো দুই পক্ষেই আরো আক্রমণ হলেও এগিয়ে থেকেই প্রথমার্ধ শেষ করে ম্যানইউ। তখনও বোঝা যাচ্ছিল দ্বিতীয়ার্ধে কী পরিমাণ বিস্ময় অপেক্ষা করছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও দর্শকদের জন্য। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুর দিকে ডি মারিয়ার বাড়িয়ে দেয়া বল থেকে দুর্দান্ত এক ফ্লিকে বলের গতি পরিবর্তন করে দিয়ে ম্যানইউকে এগিয়ে নিয়েছিলেন অ্যান্ডার হেরেরা। ম্যানইউয়ের জয় মনে হচ্ছিল তখন শুধু সময়ের ব্যাপার। আর ঠিক এর পরের থেকেই যেন সবকিছু গোলমাল হয়ে যেতে থাকে। ৬১ মিনিেেট রাফায়েল লেইচেস্টার সিটির জেমস ভার্ডিকে ফাউল করে পেনাল্টি পাইয়ে দেন তাদের। ডেভিড নানজেন্ট সেই পেনাল্টি থেকে গোল করে ম্যানইউয়ের সঙ্গে ব্যবধান কমিয়ে আনেন। এর দুই মিনিটের মধ্যেই জেমস ভার্ডির শট থেকে লেইচেস্টারকে সমতায় ফেরান এস্তেবান ক্যাম্বিয়াসো। এর আগের দুই গোলে পরোক্ষভাবে অবদান রাখা জেমস ৭৪ মিনিটে নিজেই গোল করে লেইচেস্টারকে এগিয়ে নিয়ে যান। রিচি ডা লেটের বাড়িয়ে দেয়া বল নিয়ে সবাইকে পেছনে ফেলে দেয়া এক দৌড়ে স্বাগতিকদের এগিয়ে দেন তিনি। ম্যানইউয়ের খেলোয়াড় ও সমর্থকরা নিশ্চয় অধিক শোকে পাথরে পরিণত হয়েছেন। তাদের আরো বেশি হতাশায় ডুবিয়ে আবারো জেমসকে পেনাল্টি অঞ্চলে ফাউল করেন টাইলার বেøকেট। এবার পেনাল্টির পাশাপাশি বেøকেটকে লাল কার্ডও হজম করতে হয়। আর এর প্রতিবাদ করতে গিয়ে মাথা গরম করে বচসা করতে গিয়ে হলুদ কার্ড দেখেন অধিনায়ক ওয়েইন রুনি। পেনাল্টি থেকে লিওনার্দো ওলোয়া নিজের দ্বিতীয় গোলটি করে স্বাগতিক সমর্থকদের উচ্ছ¡াসে ভাসান। ম্যানইউ অ্যাওয়ে ম্যাচে জিততে জিততেও হেরে গেলো ৫-৩ ব্যবধানে। ইন্টারনেট।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj