হারের বৃত্তে লিভারপুল

সোমবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৪

ইংলিশ লিগে রানার্সআপ লিভাপুল হারের বৃত্ত থেকে বের হতে পারছে না। আগের ম্যাচে ঘরের মাঠে অ্যাস্টন ভিলার হারের পর আবারো হারতে হলো অল রেডদের। শনিবার তারা ওয়েস্ট হ্যামের বিপক্ষে ৩-১ গোলে হার মানে। এ হারের ফলে শেষ চার ম্যাচের তিনটিতেই হারের স্বাদ নিতে হলো ব্রেন্ডন রজার্সের শিষ্যদের। একই দিন অ্যাস্টন ভিলার বিপক্ষে ৩-০ গোলে জয় পায় আর্সেনাল। এই জয়ের ফলে ভিলা পার্কে আর্সেনালের গর্বও অটুট থাকলো। ১৯৯৮ সালের পর এ মাঠে হারেনি তারা।

আপটন পার্কে ওয়েস্ট হ্যামের বিপক্ষে খুঁজেই পাওয়া যায়নি আগের বছরের দুর্দান্ত লিভারপুলকে। ম্যাচ শুরুর দুই মিনিটের মাথায় উইস্টন রিডের গোলে পিছিয়ে পড়ে লিভারপুল। এরপর মাত্র ৭ মিনিটেই শিরোপা প্রত্যাশী লিভাপুলকে হজম করতে হয় দ্বিতীয় গোল। এবার দিয়াফ্রা সাখোর দুর্দান্ত ভলি লিভারপুল গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে ডানপাশের গোলবারে কোনা দিয়ে চলে যায় জালে। ম্যাচের ২৬ মিনিটে লিভাপুলের স্ট্রাইকার মারিও বালোতেল্লির শট ব্লুক করে দেন ওয়েস্ট হ্যামের ডিফেন্ডাররা। ফিরতি বলে জোরালো শটে রহিম স্টার্লিং গোল করে খেলায় ফিরে আসার ইঙ্গিত দেন। কিন্তু প্রথমার্ধে কোনো দলই আর গোল না করায় ২-১ গোলে পিছিয়ে থেকে বিরতিতে যায় লিভারপুল।

দ্বিতীয়ার্ধে গোল পরিশোধে মরিয়া লিভারপুল ক্লাব ছেড়ে যাওয়া লুই সুয়ারেজের অভাব যেন ভীষণভাবে মিস করছিল। একের পর এক গোলের সুযোগ তৈরি হলেও গোল করতে ব্যর্থ হয় লিভারপুল। ম্যাচের শেষ বাঁশি বাজার আগে ৮৮ মিনিটে বদলি খেলোয়াড় মরগান আমালফিতানো দলের হয়ে তৃতীয় গোলটি করে লিভারপুলের ম্যাচে ফেরার আশা গুড়িয়ে দেন।

ভিলা পার্কে ৩২ মিনিটে এগিয়ে যায় আর্সেনাল। ড্যানি ওয়েলব্যাকের বাড়ানো বল ঠাণ্ডা মাথায় কোনাকুনি শটে জালে জড়িয়ে দেন মেসুত ওজিল। ৭৯ সেকেন্ড পরই ব্যবধান বাড়ায় আর্সেনাল। এবার বাম দিক থেকে ওজিলের মাপা ক্রস আলতো টোকায় জালে পৌঁছে দেন ফাঁকায় দাঁড়িয়ে থাকা ওয়েলব্যাক। অ্যাস্টন ভিলার হতাশা আরো বাড়ে ৩৫ মিনিটে। আর্সেনালের কিরন গিবসের ক্রসে অ্যালেক্স অক্সলেইড-চেম্বারলিন পা ছোঁয়ানো রুখতে দিয়ে নিজেদের জালে বল ঠেলে দেন অ্যালি সিসোকো।

দ্বিতীয়ার্ধে ম্যাচের গতি কিছুটা কমে যায়। তিন গোলে এগিয়ে থাকা আর্সেনালের আক্রমণে তেমন ধার ছিল না। অন্যদিকে পিছিয়ে থাকা অ্যাস্টন ভিলাও গোলের খুব ভালো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি। শেষ পর্যন্ত ৩-০ স্কোরলাইনেই জয় তুলে নেয় আর্সেন ওয়েঙ্গারের দল। ইন্টারনেট।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj