ইংলিশ ক্লাবের খারাপ দিন

শুক্রবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৪

এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শুরুটা ভালো হলো না ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার সিটি ও চেলসির। চেলসি তবুও ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়ে; হেরেই বসে তাদের স্বদেশী ক্লাব ম্যানচেস্টার সিটি। আর ম্যানসিটির বিপক্ষে মধুর প্রতিশোধ নিয়ে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের অভিযান শুরু করেছে বায়ার্ন মিউনিখ। জার্মানির ক্লাব শালকের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছে ২০১১-১২ মৌসুমের চ্যাম্পিয়নরা। ‘ই’ গ্রুপের অন্য ম্যাচে সিএসকেএ মস্কোকে ৫-১ গোলে হারিয়েছে রোমা।

বুধবার ‘ই’ গ্রুপের ম্যাচের শেষ দিকে জেরোম বোয়াটেংয়ের গোলে আলিয়াঞ্জ অ্যারেনায় গত মৌসুমে হারের বদলা নেয় পেপ গার্দিওলার শিষ্যরা। ইউরোপ সেরার লড়াইয়ে গত মৌসুমেও একই গ্রুপে পড়েছিল বায়ার্ন ও সিটি। সেবার দুই লেগের মুখোমুখি লড়াইয়ে দুটি দলই প্রতিপক্ষের মাঠে জিতেছিল।

প্রথম মিনিটেই গোলের সুযোগ তৈরি করে পেপ গার্দিওলার শিষ্যরা। আর জো হার্টের লড়াইয়ের শুরু তখন থেকেই। নব্বইতম মিনিটে বোয়াটেং জাল খুঁজে নেয়ার আগ পর্যন্ত টমাস মুলার, মারিও গোটজেদের একের পর এক আক্রমণ ব্যর্থ করে দেন ইংল্যান্ডের গোলরক্ষক হার্ট। শুরু থেকেই অতিথিদের রক্ষণভাগের ওপর প্রচণ্ড চাপ তৈরি করে বায়ার্ন। নিষেধাজ্ঞার কারণে নির্ভরযোগ্য ডিফেন্ডার পাবলো সাবালেতার অভাব ভালোই অনুভব করেছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের চ্যাম্পিয়নরা। অতিথিদের রক্ষণ ভেঙে মাঝেমধ্যেই বিপজ্জনক জায়গায় পৌঁছে যাচ্ছিলেন রবের্ত লেভানডোভস্কি, ডেভিড আলাবারা। কিন্তু হার্টকে পরাস্ত করা কিছুতেই সম্ভব হচ্ছিল না। পাল্টা আক্রমণ থেকে সুযোগ পেয়েছিলেন এদিন জেকো, হেসুস নাভাসরাও। কিন্তু কোনো সুযোগই কাজে লাগাতে পারেননি তারা। যখন মনে হচ্ছিল হার্টের দৃঢ়তায় এক পয়েন্ট পেতে যাচ্ছে সিটি, তখনই স্বাগতিকদের উল্লাসে মাতান বোয়াটেং। ৯০ মিনিটে গোটজের পাস থেকে তার শটে বল বারে লেগে জালে জড়ালে জার্মান চ্যাম্পিয়নদের তিন পয়েন্ট নিশ্চিত হয়ে যায়। জয় দিয়েই তাই শিরোপা পুনরুদ্ধারের অভিযান শুরু হলো ২০১২-১৩ মৌসুমের চ্যাম্পিয়নদের। বুধবার নিজেদের মাঠ স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে নবম মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারতো চেলসি। দিদিয়ের দ্রগবার ক্রসে ডি বক্সের মধ্যে ফাঁকায় বল পেয়েছিলেন মিডফিল্ডার রামিরেস। দারুণভাবে নিয়ন্ত্রণেও নেন কিন্তু ঠিকভাবে শট নিতে পারলেন না। দুই মিনিট পরেই সে হতাশা দূর করেন এই মৌসুমে চেলসিতে যোগ দেয়া সেস ফ্যাব্রিগাস। ডি বক্সের মধ্যে এডেন হ্যাজার্ডের বাড়ানো বল আয়ত্ত্বে নিয়ে কিছুটা এগিয়ে গিয়ে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন স্পেনের এই মিডফিল্ডার। ম্যাচের শুরুতে এগিয়ে গিয়ে আত্মবিশ্বাসী হয়ে ওঠা চেলসি আরো আক্রমণাত্মক খেলা শুরু করে। তাদের একের পর এক আক্রমণ প্রতিহত করতেই ব্যতিব্যস্ত হয়ে ওঠে অতিথি দলটি। মাঝে মধ্যে পাল্টা আক্রমণে যাচ্ছিল শালকে কিন্তু তেমন কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারছিল না। ৩৭ মিনিটে ব্যবধান বাড়াতে পারতো স্বাগতিকরা; কিন্তু ডি বক্সের মধ্যে অরক্ষিত অবস্থায় বল পেয়েও ফ্যাব্রিগাস লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নিলে বেঁচে যায় শালকে।

প্রথমার্ধের শেষ মুহূর্তে ভালো একটা সুযোগ পেয়েছিল শালকেও; কিন্তু সেটা কাজে লাগাতে ব্যর্থ হন জার্মানির মিডফিল্ডার উলিয়ান ড্রাক্সলার। দ্বিতীয়ার্ধের ১৫ মিনিটে আবারো সুযোগ নষ্ট হয় চেলসির। হ্যাজার্ডের লম্বা পাস ধরে ডি বক্সের মধ্যে ডান দিক ঢুকে কোনাকুনি শট নিয়েছিলেন দ্রগবা। গোলরক্ষক সম্পূর্ণ পরাস্ত হন কিন্তু বল গোলপোস্টের কয়েক ইঞ্চি দূর দিয়ে বাইরে চলে যায়। এর দুই মিনিট পরেই সমতায় ফেরে শালকে। ড্রাক্সলারের পাস ধরে ডি বক্সের মধ্যে থেকে ডান পায়ের শটে বল জালে জড়ান নেদারল্যান্ডসের ফরোয়ার্ড ক্লাস-ইয়ান হুন্টেলার। শেষ ১০ মিনিটে আক্রমণ পাল্ট আক্রমণে লড়াই জমে ওঠে।

এদিকে পর্তুগালের ক্লাব স্পোর্টিং ও স্লোভেনিয়ার দল এনকে মারিবোরের মধ্যে ‘জি’ গ্রুপের অন্য ম্যাচটিও ১-১ গোলে ড্র হয়েছে। ইন্টারনেট।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj