কালিয়ায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে চরমপন্থী নেতা নিহত

শুক্রবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৪

কালিয়া (নড়াইল) প্রতিনিধি : উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী ও কথিত চরমপন্থী নেতা সেকেন সরদার ওরফে স্যান সেকেন নিহত হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ২টি আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করেছে। গত বুধবার গভীর রাতে উপজেলার মাথাভাঙ্গা গ্রামে ওই বন্দুকযুদ্ধে তিন পুলিশ আহত হয়েছে। আহতদের কালিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ওই ঘটনায় কালিয়া থানায় মামলা হয়েছে। এদিকে সেকেন নিহত হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকার নির্যাতিত মানুষেরা নফল নামাজ আদায়সহ মিষ্টি বিতরণ করেছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, কালিয়া উপজেলার হরিশপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রহিম সরদারের পুত্র পুলিশ ও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী পূর্ববালা কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল) কথিত স্থানীয় নেতা একাধিক মামলার আসামি সেকেন সরদার ওরফে স্যান সেকেনকে (৩৮) গত বুধবার বিকালে বড়নাল ফাঁড়ির পুলিশ পার্শ্ববর্তী চোরখালি গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করে কালিয়া থানায় সোপর্দ করে। রাতেই ওই থানা পুলিশের একটি দল তাকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে বের হয়ে রাত দেড়টার দিকে মাথাভাঙ্গা গ্রামের তারা মিয়ার মেহগনি গাছ ও বাঁশবাগানের কাছে পৌঁছালে সেকেনের সহযোগীরা বাগান থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলিবর্র্ষণ শুরু করলে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এতে সেকেন গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। সন্ত্রাসীদের ছোড়া গুলিতে এএসআই নজরুল ইসলাম, সিপাহি টিপু সুলতান ও আশরাফুল ইসলাম আহত হন এবং ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ১টি শুটারগান ও ১টি পাইপগান, ৫ রাউন্ড বন্দুকের গুলি ও ২ রাউন্ড রাইফেলের গুলি উদ্ধার করেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, সেকেন অস্ত্র মামলার ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্তসহ হত্যা, ডাকাতি ও মারামারির ৬টি মামলার পলাতক আসামি। কালিয়া থানার ওসি মোঃ মতিয়ার রহমান বলেন, ওই ঘটনায় এসআই ফারুক হোসেন মৃধা বাদী হয়ে কালিয়া থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেছেন।

উল্লেখ্য, এলাকার চরমপন্থী সন্ত্রাসীদের কর্মকাণ্ডে বাধা হয়ে দাঁড়ানোর কারণে ২০১১ সালের ১০ জুলাই গভীর রাতে দৈনিক সমকালের কালিয়া প্রতিনিধি ও কালিয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি মশিউল হক মিটুর বাড়িতে কলাবাড়িয়া গ্রামের মৃত জহুর মোল্যার পুত্র হাসনাত মোল্যার নেতৃত্বে একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী গুলি ও বোমা হামলা চালায়।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj