কাঁটাতারের দু’পারে স্বজনদের ভিড়

আগের সংবাদ

মধ্য আফ্রিকার কঙ্গোতে জঙ্গি হামলায় নিহত ১৮

পরের সংবাদ

গুলশানে মনোনয়ন বঞ্চিতদের বিক্ষোভ

প্রকাশিত হয়েছে: ডিসেম্বর ৭, ২০১৮ , ১০:১৯ অপরাহ্ণ | আপডেট: ডিসেম্বর ৭, ২০১৮, ১০:১৯ অপরাহ্ণ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২০৬ আসনে চূড়ান্ত প্রার্থী ঘোষণার পর বিএনপির মনোনয়ন বঞ্চিতদের সমর্থকরা বিক্ষোভ করেছেন।

আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় প্রার্থী তালিকাঘোষণার পরপরই গুলশানে বিএনপি চেয়ারপার্সনের রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে বঞ্চিতরা বিক্ষোভ শুরু করেন। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কার্যালয় থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় তাকে উদ্দেশ্য করে প্রতিবাদী স্লোগান দেয় কর্মীরা।

ঘোষিত তালিকা পরিবর্তনের দাবিতে বিক্ষোভ করছে বিভিন্ন মনোনয়ন প্রত্যাশীর সমর্থকরা।

এর মধ্যে রয়েছে পিরোজপুর-২ আসনের প্রার্থী আহম্মদ সোহেল মনজুর (সুমন), নরসিংদী-৩ আসনে বিএনপির আইন সম্পাদক সানাউল্লাহ মিয়া, কুষ্টিয়া-৩ আসনের সাবেক এমপি সোহরাব উদ্দিন ও নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে গিয়াস উদ্দিন।

সানাউল্লাহ মিয়ার সমর্থকরা বলছেন, সানাউল্লাহ মিয়া বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবী। তিনি বহু বছর ধরে বেগম খালেদা জিয়াসহ বিএনপি নেতাকর্মীদের আইনি সহায়তা দিয়ে চলেছেন। তাকে দলের মনোনয়ন বঞ্চিত রাখা মানা যায় না। সানাউল্লাহ মিয়াকে মনোনয়ন অবশ্যই দিতে হবে।

কুষ্টিয়া-৩ আসন থেকে ইঞ্জিনিয়ার জাকির হোসেন সরকারের নাম ঘোষণার পর পরই বিক্ষোভ শুরু করেন নেতাকর্মীরা। বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য সোহরাব উদ্দিন কুষ্টিয়া-৩ আসনের জন্য মনোনয়নপত্র তুলেছিলেন। তিনি কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এবং বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের কেন্দ্রীয় কমিটির স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক।

এর আগে, শুক্রবার সন্ধ্যায় বিএনপির ২০৬ প্রার্থীর নাম দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বাকি ৯৪ জন প্রার্থীর ব্যাপারে মির্জা ফখরুল বলেন, আপিলের শুনানিতে যেসব প্রার্থী প্রার্থিতা ফিরে পাবেন, তাঁদের থেকে এবং ২০ দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে আলোচনা করে শনিবার ৩০০ আসনের চূড়ান্ত প্রার্থী ঘোষণা করা হবে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমরা অনেক যাচাই-বাছাই ও বিবেচনা করে আজকে এই প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করছি। আমাদের স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সাথে আলোচনার পর প্রার্থী দিয়েছি। আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়া ও ও তারেক রহমান সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন, নির্বাচনকে আন্দোলনের অংশ হিসেবে নিয়ে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। এখানে যেন কোনো দ্বন্দ্ব না থাকে। যাকে প্রার্থী করা হয়েছে তার পক্ষ নিয়ে চূড়ান্ত বিজয়ের জন্য কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন বেগম খালেদা জিয়া এবং আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ফিরে পেতে জনগণকে বিএনপির সঙ্গে থাকার আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল। বাকি ৯৪ আসন সম্পর্কে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের আপিল নিষ্পত্তির পর বাকি আসনগুলোর বিষয়ে জোট ও ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে আলোচনা করে শনিবার সিদ্ধান্ত জানানো হবে।’

প্রার্থীদের নাম ঘোষণার পর মনোনিত প্রার্থীদের সমর্থকেরা গুলশান কার্যালয়ের বাইরে স্লোগান দিয়ে উল্লাস প্রকাশ করেন। তারা সবাই একে অন্যের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করছেন। কেউবা আবার দীর্ঘদিন পর ঘনিষ্ঠ কাউকে পেয়ে বুকে জড়িয়ে ধরছেন। সবমিলে গুলশানের বিএনপি অফিস এখন সরগরম।

প্রার্থী ঘোষণার সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসনের ব্যক্তিগত সচিব এ বি এম আবদুস সাত্তার।