হাওলাদারের বিরুদ্ধে তদন্ত করবে জাপা: রাঙ্গা

আগের সংবাদ

রেজা কিবরিয়া, গোলাম মওলা রনিসহ ৮২ জনের আপিল

পরের সংবাদ

মার্কিন গাড়ির উপর শুল্ক প্রত্যাহারে সম্মত চীন: ট্রাম্প

প্রকাশিত হয়েছে: ডিসেম্বর ৩, ২০১৮ , ৭:০০ অপরাহ্ণ | আপডেট: ডিসেম্বর ৩, ২০১৮, ৭:০০ অপরাহ্ণ

যুক্তরাষ্ট্র থেকে গাড়ি আমদানির ওপর চীন যে শুল্ক আরোপ করেছিল তা ‘কমাতে ও প্রত্যাহার’ করতে তারা সম্মত হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতির দুই দেশ বাণিজ্য যুদ্ধে বিরতি দেয়ার ব্যাপারে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে ঐকমত্যে পৌঁছানোর একদিন পর রোববার এই একথা জানান ট্রাম্প।

জানুয়ারি থেকে তিন মাস ওয়াশিংটন ও বেইজিং নতুন করে একে অপরের ওপর শুল্ক আরোপ করবে না এই খবরে এশিয়ার শেয়ার মার্কেটগুলোতে স্টকের দাম বেড়েছে। এই সময় তারা বিস্তারিত একটি চুক্তি চূড়ান্ত করবে।

‘যুক্তরাষ্ট্র থেকে থেকে চীনে আসা গাড়ির শুল্ক কমাতে ও প্রত্যাহার করতে সম্মত হয়েছে চীন। বর্তমানে এই শুল্কের পরিমাণ ৪০ শতাংশ,’ টুইটারে জানান ট্রাম্প।

শনিবার একে অপরের ওপর পাল্টাপাল্টি শুল্ক আরোপ বন্ধের বিষয়ে একমত হয় চীন ও যুক্তরাষ্ট্র। ট্রাম্প এই ঐকমত্যকে ‘অবিশ্বাস্য’ চুক্তি বলে অভিহিত করেন।

জি২০ সম্মেলনের আগে ট্রাম্প বলেছিলেন তিনি ২০০ বিলিয়ন ডলার সমমানের চিনা পণ্যের ওপর শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ২৫ শতাংশ করবেন জানুয়ারি মাস থেকে।

এই পদক্ষেপ ৯০ দিনের জন্য স্থগিত করা হয়েছে বলে জানায় হোয়াইট হাউজ। কিন্তু এই সময়ের মধ্যে দুই পক্ষ ঐকমত্যে পৌঁছাতে না পারলে ১০ শতাংশ শুল্ক বাড়িয়ে ২৫ শতাংশ করা হবে।

একই সঙ্গে তারা জানায়, চীন ‘খুবই উল্লেখযোগ্য’ পরিমাণে কৃষি, জ্বালানি, শিল্প ও অন্যান্য ধরনের পণ্য কিনতে সম্মত হয়েছে। কিন্তু সেটা কি পরিমাণে তা তারা জানায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের কোনও গাড়িগুলোর ওপর শুল্ক কমানো হবে এবং কোনগুলো থেকে শুল্ক প্রত্যাহার করা হবে তা টুইটে স্পষ্ট করেননি ট্রাম্প।

জুলাই মাসে চীন গাড়ি আমদানির ওপর শুল্ক ২৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১৫ শতাংশে নিয়ে আসে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাণিজ্য যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর তারা মার্কিন গাড়ি আমদানির ওপর অতিরিক্ত ২৫ শুল্ক আরোপ করে।

যুক্তরাষ্ট্রের অনেক প্রতিষ্ঠান চীনে তাদের গাড়ি নির্মাণ করলেও, শুল্ক আরোপের পর তাদের গাড়ির বিক্রি কমে যায়।

মার্কিন কোম্পানি টেসলার গাড়ির বিক্রি কমে যাওয়ার পর তারা জানায় ক্রেতাদের ওপর থেকে শুল্কের বোঝা কমাতে তারা নিজেরা লাভের পরিমাণ কিছুটা কমিয়ে।

জার্মান গাড়ি নির্মাতা বিএমডব্লিউ ও ফোর্ডের লিঙ্কন ব্র্যান্ডও এই শুল্কের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাদের কিছু গাড়ি যুক্তরাষ্ট্রে তৈরি করা হয় চীনে বিক্রির জন্য।

সম্প্রতি জানা যায়, ট্রাম্প ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে গাড়ি আমদানির ওপর শুল্ক বৃদ্ধির কথা ভাবছেন। এমন পরিস্থিতিতে চীনে গাড়ি রপ্তানিতে শুল্ক কমার খবর পাওয়া গেল।

মঙ্গলবার ভক্সওয়াগন, ডাইমলার ও বিএমডব্লিউর প্রধান কর্মকর্তারা জ্যেষ্ঠ মার্কিন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে।