কটন ট্রাউজার রপ্তানি বেড়েছে যুক্তরাষ্ট্রে

আগের সংবাদ

সংবিধানের বাইরে যাবো না : ওবায়দুল কাদের

পরের সংবাদ

ভ্যাট অনলাইন প্রকল্পে নিবন্ধন বাড়লেও বাড়েনি রিটার্ন জমা

প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ৭, ২০১৮ , ২:৪৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: নভেম্বর ৭, ২০১৮, ২:৪৫ অপরাহ্ণ

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর) যুগোপযুগী করে তুলতে ভ্যাট অনলাইন প্রকল্প হাতে নেয় প্রতিষ্ঠানটি। অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধনের (ই-ভিআইএন) এই প্রকল্পে করদাতাদের আগ্রহ থাকলেও অংশগ্রহণ তেমন একটা বাড়েনি। এর কারণ হিসেবে এনবিআর বলছে অনেকে ব্যবসা ছেড়ে দিয়েছেন। এদের ই-ভিআইএন সক্রিয় নয়। তাই নিবন্ধন বাড়লেও রিটার্ন জমা বাড়ছে না। এনবিআর সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
সূত্র জানায়, গত বছর ব্যবসা করার ক্ষেত্রে অনলাইন সনদ বাধ্যতামূলক করার পর এনবিআরে ভ্যাট অনলাইনে নিবন্ধনের হিড়িক পড়ে। ঘরে বসে এনবিআরের এই সেবা পেতে আগ্রহী করদাতারা। ডিজিটালাইজেশনের যুগে কোনো ধরনের হয়রানি ছাড়াই এনবিআরের সেবা পেতে নিবন্ধন করেন করদাতারা। কিন্তু উল্লেখযোগ্য হারে ভ্যাট নিবন্ধন বাড়লেও বাড়েনি রিটার্ন জমাদানকারীর সংখ্যা। অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধনের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৪০ হাজার। গত বছর থেকে এখন পর্যন্ত অনলাইনে সমসংখ্যক ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ভ্যাট নিবন্ধন করেছে। আর চলতি অর্থবছরেই (২০১৮-১৯) তা ২ লাখে পৌঁছতে পারে। ইলেক্ট্রনিক ভ্যাট আইডেন্টিফিকেশন নম্বর বা ‘ই-ভিআইএন’ ব্যবহার করে ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানকে বর্তমানে ভ্যাটের টাকা পরিশোধ করতে হয়। মূলত এনবিআরকে ডিজিটাল করতে সনাতনী পদ্ধতির পূর্বের ভ্যাট নিবন্ধন নম্বর (ভিআইএন) অকার্যকর করা হয়েছে। ফলে ব্যবসা পরিচালানায় ই-ভিআইএন এখন বাধ্যতামূলক। দেশে গত বছর থেকে অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধন শুরু হয়। এর আগে, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর করতে চেয়েছিল সরকার। তবে, একক (১৫ শতাংশ) হারে ভ্যাট আদায়ের বিষয়টি নিয়ে আপত্তি তোলেন ব্যবসায়ীরা। ব্যবসায়ীদের ব্যাপক আপত্তির মুখে দুই বছরের জন্য ভ্যাট আইন স্থগিত করে সরকার। পরে অনেকটা ভুল-বোঝাবুঝির মধ্যেই অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধন কার্যক্রম এগিয়ে চলতে থাকে। প্রথম থেকেই এনবিআর বলে আসছে, নতুন আইন কার্যকর করতে অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধন চালিয়ে যেতে হবে। ফলে পুরনো আইনে সংশোধন এনে নিবন্ধনের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা হয়। সনাতনী পদ্ধতিতে দেশে ভ্যাট নিবন্ধনকারী প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ছিল সাড়ে ৮ লাখ। বর্তমানে এ সংখ্যা দেড় লাখ ছুঁই ছুঁই। তবে, মাত্র ৩৭ হাজার প্রতিষ্ঠান ভ্যাট রিটার্ন জমা দেয়। তাই, ভ্যাট থেকে রাজস্ব বাড়াতে সচেতনতার বিকল্প নেই বলে মনে করেন এনবিআরের কর্মকর্তারা। এ বিষয়ে জানতে চাইলে এনবিআর সদস্য (ভ্যাটনীতি) রেজাউল হাসান ভোরের কাগজকে বলেন, অনেকের নামেই পুরনো ভ্যাট নিবন্ধন রয়েছে, যারা এখন ব্যবসা করে না। ফলে তাদের অনেকের নিবন্ধনও অকার্যকর হয়ে গেছে। আমার মতে, নিবন্ধন খুব একটা বাড়বে না। তবে অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধন নিয়ে ভালোই সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। তবে অনেকের মধ্যে এখনো ভুল বোঝাবুঝি রয়ে গেছে। নতুন ভ্যাট আইন দুই বছরের জন্য স্থগিত করায় অনেকেই ভাবে ই-ভিআইএন নেয়ার দরকার নেই। কিন্ত পুরাতন আইনেও ই-ভিআইএন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।