গঙ্গা-যমুনা উৎসবে সৈয়দ শামসুল হকের ‘চম্পাবতী’

আগের সংবাদ

গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে আনন্দ মিছিল, মিষ্টি বিতরণ

পরের সংবাদ

আসন রক্ষা ও পুনরুদ্ধারে লড়াই জমবে দুশিবিরের

প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ১১, ২০১৮ , ১:৩৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: অক্টোবর ১১, ২০১৮, ১:৩৫ অপরাহ্ণ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মৌলভীবাজার-১ (বড়লেখা ও জুড়ী) আসনটি রক্ষা ও পুনরুদ্ধারের লড়াই জমে উঠবে দুই শিবিরেই। বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট ২০০৮ সালের নির্বাচনে হাতছাড়া হওয়া আসনটি পুনরুদ্ধারে প্রাণপণ চেষ্টা চালাবে। অপরদিকে ধারবাহিকতা ধরে রাখতে প্রচেষ্টা চালাবে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন জোট। এমনটিই জানালেন উভয় দল ও জোটের নেতাকর্মীরা।
এ আসনে আওয়ামী লীগের তিনবার নির্বাচিত এমপি মো. শাহাব উদ্দিন জাতীয় সংসদের হুইপের দায়িত্ব পালন করা ছাড়াও এলাকার ব্যাপক উন্নয়নে ভ‚মিকা রাখেন। ফলে তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীসহ সাধারণ জনগণের মাঝে তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। অনেকের মতে এ আসনে আওয়ামী লীগের শক্তিশালী প্রার্থী তিনি। নমিনেশন পেলে বিজয়মালা তার গলায়ই পরবে বলে অভিমত দলের নেতাকর্মীদের। অপরদিকে বিএনপি থেকে রয়েছেন দলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট এবাদুর রহমান চৌধুরী, মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির সহসভাপতি ও বিশিষ্ট শিল্পপতি নাসির উদ্দিন মিঠু, বড়লেখা উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক দারাদ আহমদ, সাবেক মেয়র ও জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক ফখরুল ইসলাম এবং কাতার প্রবাসী যুবদলের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল হক সাজু।
জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন বড়লেখার এডভোকেট আফজল হোসেন ও আহমেদ রিয়াজ এবং জুড়ী উপজেলা জাপার সভাপতি এডভোকেট মাহবুবুল আলম শামীম। এদিকে নির্বাচনকে সামনে রেখে কৌশলে প্রস্তুতি নিচ্ছে জামায়াত। জামায়াত নেতা ও ব্যবসায়ী মাওলানা আমিনুল ইসলামকে প্রার্থী হিসেবে নিয়ে দলটি অগ্রসর হচ্ছে।
২০০৮ ও ২০১৪ সালের নির্বাচনে মো. শাহাব উদ্দিন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরে প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদায় জাতীয় সংসদের হুইপের দায়িত্ব পান। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও মো. শাহাব উদ্দিন প্রার্থী হচ্ছেন। বড়লেখা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, এ আসনে দলের একক প্রার্থী শাহাব উদ্দিন। গত দুই মেয়াদে তিনি বড়লেখা ও জুড়ী উপজেলায় ২১টি স্কুল এমপিওভুক্তকরণ, সুজানগর পাথারিয়া কলেজ প্রতিষ্ঠা, ৮০টি প্রাইমারি স্কুলের ভবন নির্মাণ, ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে জুড়ী-বড়লেখা-চান্দগ্রাম সিএন্ডবি সড়ক সংস্কার ও ৫০টি ব্রিজ নির্মাণ করেন। ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে মাধবকুণ্ড ইকোপার্ক এবং সাড়ে ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ৪ তলাবিশিষ্ট আধুনিক রেস্ট হাউস, ৮ কোটি টাকা ব্যয়ে কাঁঠালতলী-মাধবকুণ্ড রাস্তা সংস্কার করেন। বড়লেখা ও জুড়ীতে প্রায় ৫০০ কিলোমিটার বিদ্যুৎ লাইন স্থাপন করেন। বড়লেখা ও জুড়ী দুই উপজেলায় ৫০ শয্যাবিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, বড়লেখা থানার আধুনিক ভবন, প্রায় ৭০০ কোটি টাকা ব্যয়ে বিগত জোট সরকারের আমলে বন্ধ হওয়া কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেললাইনেরও নির্মাণকাজ শুরু করাসহ দুই উপজেলার সর্বত্র উন্নয়নের ফিরিস্তি তুলে ধরেন আনোয়ার উদ্দিন।
এ ব্যাপারে মো. শাহাব উদ্দিন এমপি বলেন, দেশে আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্য দলের কোনো অর্জন নেই। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ দেশ উপহার দিয়েছেন আর তার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ দেশকে নিয়ে গেছেন এক অনন্য উচ্চতায়। তাই তিনি পুনরায় আওয়ামী লীগকে বিজয়ী করতে নৌকা মার্কায় ভোট দেয়ার জন্য নিজ এলাকা তথা দেশের জনগণকে আহ্বান জানান।
এ আসনটিতে দলীয় মনোনয়ন পেতে বিভিন্ন দলের প্রার্থীরা বিগত দুমাস ধরেই নিজ দলের তৃণমূল থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত চালাচ্ছেন জোর লবিং। তা ছাড়া বিএনপি ও আওয়ামী লীগ জোটবদ্ধ নির্বাচন করলে কমে আসবে দলীয় প্রার্থীর সংখ্যা।