টিআইবির প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে পুলিশ

আগের সংবাদ

প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে ৯৭৬৭ জন চূড়ান্ত

পরের সংবাদ

সেমিফাইনালে নেপাল-মালদ্বীপ মুখোমুখি

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮ , ১০:৩৪ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮, ১০:৩৪ অপরাহ্ণ

সাফের আগের ১১ আসরে একবারও শিরোপা জেতা হয়নি নেপালের। তবে এবার তারা বদ্ধপরিকর। চোখ ফাইনালে, স্বপ্ন শিরোপা জয়ে। তাদের এবারের দলটিও বেশ ভারসম্যপূর্ণ। প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে দুর্ভাগ্যজনকভাবে হারলেও পরের দুটি ম্যাচ দাপটের সঙ্গে জিতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনালে এসেছে।

অন্যদিকে ভাগ্য পরীক্ষা দিয়ে সেমিফাইনালে এসেছে ২০০৮ এ শিরোপা জেতা মালদ্বীপ। সাফের দ্বাদশ আসরে দুই ম্যাচ খেলে একটিতেও জয় পায়নি তারা। প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ড্র করেছে। আর পরের ম্যাচে ভারতের কাছে হার মেনেছে ২-০ ব্যবধানে। শ্রীলঙ্কা ও মালদ্বীপের পয়েন্ট সমান ১ হলেও ভাগ্য পরীক্ষায় উতরে যায় মালদ্বীপ।

তরুণ এই দলটি নিয়ে গ্রুপপর্বে সুবিধা করতে না পারলেও সেমিফাইনালে দেখিয়ে দেওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন মালদ্বীপের জার্মানির কোচ সেগ্রেট পিটার। সেমিফাইনাল পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘গ্রুপ পর্বে আমরা সুবিধা করতে পারিনি। সেটা নিয়ে নেপালের সাংবাদিকরা অনেক সমালোচনা করেছেন। নানান রকম গল্প লিখেছেন পত্রিকায়। আমি এখনো মালদ্বীপের কোচ। মালদ্বীপের ফুটবল ফেডারেশনের প্রেসিডেন্টের এখনো আমার প্রতি আস্থা আছে। সেমিফাইনালে ৯০ মিনিট কিংবা ১২০ মিনিট কিংবা টাইব্রেকার। সবকিছুর জন্যই আমরা প্রস্তুত আছি। প্রতিপক্ষ নেপাল হোক আর যাই হোক, আমরা ফাইনালে যাবই। যদিও নেপাল ফেভারিট বাংলাদেশকে হারিয়ে সেমিফাইনালে এসেছে। তারা বেশ শক্তিশালী। তবে আমরা ছেড়ে কথা বলব না।’

সাফে মালদ্বীপ একবার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পাশাপাশি তিনবার রানার্স-আপ হয়েছে। বুধবার নেপালকে হারাতে পারলে পঞ্চমবারের মতো সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে উঠবে তারা।

এদিকে নেপালের কোচ প্রথমবারের মতো দলকে ফাইনালে তুলতে আত্মবিশ^াসী। আত্মবিশ^াসী তার খেলোয়াড়রাও। বুধবার মালদ্বীপকে হারিয়ে নতুন ইতিহাস গড়তে চায় হিমালয়ের দেশটি। নেপালের কোচ বাল গোপাল মহারাজন সেমিফাইনাল পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘আমাদের দলে কোনো ইনজুরি নেই। আমরা ভালো অবস্থানে আছি। আগামীকালকের সেমিফাইনাল খেলতে প্রস্তুত। আমরা নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণ করেছি গ্রুপ পর্বে। কালও আরেকবার নিজেদের প্রমাণ করব। সর্বশেষ আমরা দুই ম্যাচে মালদ্বীপকে হারিয়েছি। কালকে ম্যাচে জয়ী হয়ে আমরা ফাইনাল খেলার ব্যাপারে আত্মবিশ^াসী। আগামীকাল নেপালী ফুটবলের জন্য একটি নতুন ইতিহাস রচনা করতে সক্ষম হব।’

নেপালের অধিনায়ক বিরাজ মহারাজনের কণ্ঠেও আত্মবিশ^াসের সুর, ‘কাল আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ দিন। আশা করি দেশের জন্য কিছু একটা করে দেখাতে পারব। এ জন্য আমরা রোমাঞ্চিত এবং আত্মবিশ্বাসী। তবে অতিমাত্রায় আত্মবিশ্বাসী নই।’

সাফে অবশ্য মালদ্বীপের বিপক্ষে নেপালের পরিসংখ্যান ভালো নয়। সবশেষ চারবারের মুখোমুখিতে দুইবার জিতেছে মালদ্বীপ। দুটি ম্যাচ হয়েছে ড্র। সবশেষ ২০১১ সালে সাফে মুখোমুখি হয়েছিল দল দুটি। সেখানে অবশ্য কেউ জয় পায়নি। ১-১ গোলের সমতা নিয়ে শেষ হয় ম্যাচ। তবে সেমিফাইনালে ড্র হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। একটি দলকে হারতেই হবে। জয় পাবে একটি দল। সেই দলটি কে হয় জানতে অপেক্ষা করতে হবে বুধবার সন্ধ্যা পর্যন্ত।