যাত্রীদের ভোগান্তি চরমে

আগের সংবাদ

পাঁচ বাংলাদেশিরবিরুদ্ধে ভারতে মামলা

পরের সংবাদ

‘থাকতে ভালো লাগে না’

আবাসন কেন্দ্রের ১৭ কিশোরীর পলায়ন

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৮ , ১:৪৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৮, ১:৪৫ অপরাহ্ণ

গাজীপুরে মহিলা, শিশু ও কিশোরী হেফাজতিদের নিরাপদ আবাসন কেন্দ্র থেকে ১৭ নিবাসী পালিয়ে গেছেন। বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে পালিয়ে যাওয়া ১৪ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেল পর্যন্ত নিখোঁজ ছিলেন তিনজন। গত শুক্রবার রাতে গাজীপুর মহানগরীর মোগরখাল এলাকার ওই কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্তÍ কমিটি গঠন করা হয়েছে। খবর পেয়ে শনিবার দুপুরে মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। উদ্ধার হওয়া কয়েকজনের কাছে পালানোর কারণ জানতে চাইলে তারা শুধু এখানে ভালো লাগে না বলে এ প্রতিবেদককে জানান। বিস্তারিত কিছু বলতে রাজি হননি তারা।
মহিলা ও শিশুবিষয়ক অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক শাহ নওয়াজ দিলরুবা জানান, ওই আবাসন কেন্দ্রের দোতলায় জানালার গ্রিল ভেঙে এবং খাটের বিছানা দিয়ে ছাদের সঙ্গে বাউন্ডারি ওয়াল পর্যন্ত সিঁড়ি তৈরি করে একে একে ১৭ জন নিবাসী পালিয়ে যান। রাত পৌনে ১২টার দিকে কেন্দ্রের লোকজন টের পেয়ে দুজনকে ছাদ থেকে আটক করেন এবং বাকিরা পালিয়ে যান। খবর পেয়ে জয়দেবপুর থানার পুলিশ কেন্দ্রের আশপাশের এলাকা থেকে আরো চারজনকে উদ্ধার করা হয়। শনিবার সকালে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর থানার পুলিশ উদ্ধার করে ৮ জনকে। কেন্দ্রের কর্মকর্তারা গাজীপুর থেকে পুলিশ নিয়ে মির্জাপুর থানা থেকে আটক ৮ জনকে ফেরত আনার ব্যবস্থা করেন। বিকেল ৪টা পর্যন্ত পলাতক তিন নিবাসীর সন্ধান পাওয়া যায়নি।
তিনি আরো জানান, ঘটনা তদন্তে মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকির নির্দেশে সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপপরিচালক ম্যাজিস্ট্রেট ফরিদা ইয়াসমিনকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
নিরাপদ আবাসন কেন্দ্রের সহকারী হোস্টেল সুপার পারভীন আক্তার জানান, কেন্দ্রে ৩৪ জন নিবাসী রয়েছে। এদের মধ্যে ৩২ জন নারী ও কিশোরী এবং দুজন শিশু।
কেন্দ্র পরিদর্শনে প্রতিমন্ত্রী : মহিলা, শিশু ও কিশোরী হেফাজতিদের নিরাপদ আবাসন কেন্দ্র থেকে নিবাসী পালিয়ে যাওয়ার খবর পেয়ে গতকাল দুপুর ১২টার দিকে মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় মহিলা ও শিশুবিষয়ক অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক শাহ নওয়াজ দিলরুবা, গাজীপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান এস এম মোকছেদ আলম উপস্থিত ছিলেন।