বিভিন্ন দলের প্রার্থিতা নিয়ে চলছে নানা হিসাব-নিকাশ

আগের সংবাদ

তামাদি হচ্ছে লাখ লাখ জীবন বিমা পলিসি

পরের সংবাদ

নির্বাচনের আগে গ্রামীণ উন্নয়নে জোর দিচ্ছে সরকার

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৮ , ৪:৪৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৮, ৪:৪৫ অপরাহ্ণ

সরকার আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে বিভিন্ন উপজেলা শহরের (নন-মিউনিসিপ্যাল) মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়ন, গ্রামীণ অবকাঠামো ও দারিদ্র্যবিমোচনে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে। প্রায় এক বছর ধরে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগ থেকে আসা উন্নয়ন প্রকল্পগুলো অনুমোদন দেয়া হচ্ছে। একের পর এক অনুমোদন দেয়া এসব প্রকল্পের অনেকগুলোই চলমান রয়েছে। বিশাল অঙ্কের এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে অর্থের জোগান আসবে সরকারের নিজস্ব তহবিলের পাশাপাশি বাইরের দাতা সংস্থা থেকে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
সূত্র জানায়, দেশের ৪৯২টি উপজেলার মধ্যে ৩০৯টি উপজেলা শহরকে বিভিন্ন ক্যাটাগরির পৌরসভায় উন্নীত করা হয়েছে। পৌরসভাগুলোর বিভিন্ন অবকাঠামো উন্নয়নের মাধ্যমে পৌরবাসীর জীবনযাত্রার মান বৃদ্ধির জন্য মোট এক হাজার ২৫৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০১১ সালের জানুয়ারি থেকে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক অবকাঠামো উন্নয়ন নামে প্রকল্প চলমান আছে, যা স্থানীয় সরকার বিভাগ বাস্তবায়ন করছে। এ ছাড়া বর্তমানে ওই সব পৌরসভার অবকাঠামো উন্নয়নের লক্ষ্যে মোট তিন হাজার ৪৬৫ কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে চলতি ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে দ্বিতীয় পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক অবকাঠামো উন্নয়ন নামে প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন রয়েছে, যা আগামী ২০২১ সালের ডিসেম্বরে সমাপ্ত হবে। এ ছাড়াও বৈদেশিক সাহায্যপুষ্ট কিছু প্রকল্পের মাধ্যমে পৌরসভাগুলোর ভৌত অবকাঠামোর উন্নয়ন প্রকল্পও অব্যাহত রয়েছে।
সূত্র আরো জানায়, প্রতিটি উপজেলা শহরের শুধু মাস্টারপ্ল্যান তৈরির জন্যই ৪৮ লাখ টাকা এবং অবকাঠামো উন্নয়নে ৬ কোটি ৩৭ লাখ টাকা প্রাক্কলন করা হয়েছে। এ প্রকল্পের আওতায় কাজগুলো হলো ১৮৩টি মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়ন, ৫৬০ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ বা পুনর্নির্মাণ, ৯১৫ মিটার ব্রিজ নির্মাণ, ২৭৪.৫০ কিলোমিটার ড্রেন নির্মাণ বা পুনর্নির্মাণ, ১৮৩টি কাঁচাবাজার, ১৮৩টি কসাইখানা নির্মাণ এবং ৫৪৯টি পাবলিক টয়লেট নির্মাণ। এর জন্য ১০ একর ভ‚মি অধিগ্রহণ করতে হবে। প্রতি একর ৫ কোটি টাকা ধরে ১০ একর জমি অধিগ্রহণে ব্যয় বরাদ্দ ৫০ কোটি টাকা, প্রতি কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ বা পুনর্নির্মাণে ৯০ লাখ টাকা ধরে ৫৬০ কিলোমিটারে ব্যয় হবে ৫০৪ কোটি টাকা। প্রতি মিটার ব্রিজ নির্মাণে ১০ লাখ টাকা ধরে ৯১৫ মিটারের জন্য সাড়ে ৯১ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।
উপজেলা শহরগুলোতে ২৭৪.৫০ কিলোমিটার ড্রেন নির্মাণ করা হবে। এ জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ২৭৪ কোটি ৫০ লাখ টাকা। প্রতি কিলোমিটারে ব্যয় হবে এক কোটি টাকা। এ প্রকল্পের আওতায় ৫৪৯টি পাবলিক টয়লেট তৈরি করা হবে। এতে ব্যয় হবে ৯৮ কোটি ৮২ লাখ টাকা। প্রতিটি টয়লেট নির্মাণে ব্যয় বরাদ্দ ১৮ লাখ টাকা। ১৮৩টি কসাইখানা নির্মাণে ব্যয় হবে ২৭ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। প্রতিটি কসাইখানার জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ১৫ লাখ টাকা। আর ১৮৩টি কাঁচাবাজার নির্মাণে মোট ব্যয় হবে ১৭৯ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। প্রতিটি কাঁচাবাজার তৈরিতে ব্যয় হচ্ছে ৯৮ লাখ টাকা।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ভোরের কাগজকে বলেন, মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নে গ্রামীণ রাস্তাঘাট, ব্রিজ, কালভার্ট ও হাটবাজার উন্নয়নে কাজ চলছে। আমরা গ্রামীণ জনপদ থেকে শুরু করে উপজেলাগুলো থেকে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।