শারাপোভা-ফেদেরারের বিদায়

আগের সংবাদ

গৌতম ঘোষ এবার বানাবেন হিন্দি সিনেমা

পরের সংবাদ

ব্রণ প্রতিরোধের ঘরোয়া পদ্ধতি

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৮ , ২:৪৬ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৮, ২:৪৬ অপরাহ্ণ

ব্রণ প্রতিরোধের কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি :

  • মধু আর দারুচিনির গুঁড়া মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে পিম্পলে লাগান এবং সকালে গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। পরপর দুই সপ্তাহ এই পেস্ট পিম্পলে লাগান,
    পিম্পল আর থাকবে না।
  • ১০০ গ্রাম আলু চটকে নিয়ে ৫ফোঁটা গ্লিসারিন, ৫ মিলি গোলাপজল মিশিয়ে একটা প্যাক তৈরি করুন।গোসলের আগে মুখে এই প্যাকটি লাগান এবং ২০ মিনিট লাগিয়ে রাখুন।
  • ১০ মিলি গ্লিসারিন, ১০ মিলি গোলাপজল এবং ৫মিলি লেবুর রস মিশিয়ে একটি প্যাক তৈরি করুন। মুখের যে জায়গায় প্রয়োজন সেখানে গোসলের এক ঘণ্টা আগে প্যাকটি লাগান এবং ম্যাসেজ করুন আলতোভাবে।
  • পেঁপের রস পিম্পলের জন্য খুবই উপকারী। পিম্পলের উপর পেঁপের রস লাগালে ভালো ফল পাওয়া যায়।
  • রসুন পিম্পলের জন্য খুবই উপকারী। রসুনের আটটি কোষ ভালোভাবে পেস্ট করে নিয়ে চোখের অংশটা বাদ দিয়ে মুখে লাগান। পনের মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন এবং পরে গরম কাপড় দিয়ে এটা মুখ থেকে ধুয়ে ফেলতে হবে।
  • আপেল কুঁচি কুঁচি করে কেটে নিয়ে মধুর সাথে মিশিয়ে মুখে লাগালে দারুণ কাজে আসে। মুখে ১৫-২০ মিনিট এই প্যাকটি লাগিয়ে রাখতে হবে।তারপর হাল্কা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে।
  • পিম্পল চলে যাওয়ার পরমুখে যে দাগ থেকে যায় সেখানে চালের গুঁড়া, দই, এক চিমটি হলুদ মিশিয়ে পেস্টকরে লাগান। হাল্কাভাবে ঘষুন এবং ১০ মিনিট পর ধীরে ধীরে এই প্যাকটি মুখ থেকে উঠিয়ে ফেলুন।
  • মেথি ভালো করে পেস্ট করে নিয়ে প্রতি রাতে মুখে লাগান এবং ১০-১৫ মিনিট রাখুন। কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বককে যে কোনো ধরণের দাগ, পিম্পল, ব্ল্যাকহেড,বলিরেখা ইত্যাদি থেকে দূরে রাখে।
  • পুঁদিনা পাতার রস প্রতি রাতে মুখে লাগান।এতে মুখের যে কোনো দাগ এবং পিম্পলের দাগ দূর হবে। সব কিছুর পরেও হাতকে মুখ থেকে দূরে রাখুন। এতে আপনার ত্বকের কোনোই লাভ হবে না।আপনার যদি খুশকির সমস্যা কিংবা তৈলাক্ত ত্বক থাকে তাহলে এগুলোকে পরিষ্কার রাখুন। যদি আপনার তৈলাক্ত চুল মুখে লাগে তা হলে এটি আরো বেশি তৈলাক্ত হয় এবং খুশকি পিম্পলের সৃষ্টি করে নিশ্চিতভাবেই।দিনে অন্তত তিনবার মুখ ভালো কোনো ক্লিনজার দিয়ে পরিষ্কার করুন। প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন।ফলমূল,শাকসবজি বেশি করে খাবার চেষ্টা করুন। রিল্যাক্স থাকুন এবং দিনে অন্তত আট ঘণ্টা ঘুমান।