‘চন্দ্রগ্রহণ’ পরীক্ষার অপেক্ষায় বঙ্গবন্ধু-১

আগের সংবাদ

বটতলার এক দশক

পরের সংবাদ

১৭ কিলোমিটার রাস্তার দুর্ভোগে নন্দীগ্রামবাসী

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ৩১, ২০১৮ , ৪:১৮ অপরাহ্ণ | আপডেট: আগস্ট ৩১, ২০১৮, ৪:১৮ অপরাহ্ণ

সংস্কারের অভাবে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার কাথম-কালিগঞ্জ সড়কের ১৭ কিলোমিটার রাস্তা। সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন শত শত যানবাহন চলাচল করে। সড়কের বিভিন্ন স্থানে ছোট-বড় খানাখন্দ চোখে পড়ার মতো। সামান্য বৃষ্টি হলেই গর্তগুলো পানিতে ডুবে যায়।
সরেজমিন দেখা গেছে, কাথম-কালিগঞ্জ সড়কের বেহাল দশায় সীমাহীন জনদুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে। মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে ভারী যানবাহন। ফলে যে কোনো মুহূর্তে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে স্থানীয়দের আশঙ্কা। গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি দীর্ঘদিন আগে কার্পেটিং করা হয়েছিল। তা উঠে গিয়ে যান চলাচলে ঝুঁকির সৃষ্টি হয়েছে। কয়েক দিনের বৃষ্টিতে গর্তে পানি জমে ভারী যানবাহন আটকে থাকতে দেখা যায়। এতে যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। নি¤œমানের কাজ হওয়ার কারণেই সড়কটির বেহাল দশা বলে মন্তব্য করেছেন এলাকাবাসী। নামুইট গ্রামের আব্দুল কালাম ও দলগাছা গ্রামের ইউপি সদস্য আল-আমীন বলেন, কাথম-কালিগঞ্জ সড়কটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। মাঝে মধ্যে সড়ক উন্নয়নে কাজ শুরু করা হলেও সঠিকভাবে কাজ শেষ করা হয় না। ফলে সড়কের অসংখ্য স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তাটি সংস্কার আর রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে।
এলাকাবাসী জানান, সড়ক ও জনপথ বিভাগের কাথম-কালিগঞ্জ সড়কটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আষাঢ়-শ্রাবণ মাসে কাদা-পানিতে সড়কটি থৈ থৈ করে। বৃষ্টির পানিতে অনেক জায়গা মিনিপুকুরে পরিণত হয়। সড়কটি দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে অসুস্থ ও গর্ভবতী মায়েদের কষ্টের শেষ থাকে না। প্রতিদিন শত শত বাস, ট্রাক, সিএনজি, ভটভটিসহ বিভিন্ন যানবাহন চলাচল করে। সড়কটি ভেঙে যাওয়ায় প্রায় দিনই লোকজন ছোটখাট দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন। এ বিষয়ে বগুড়ার সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুজ্জামান বলেন, কাথম-কালিগঞ্জ সড়কটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। দু-একদিনের মধ্যেই ইট-বালি দিয়ে গর্তগুলো পূরণ করা হবে। কিছুদিনের মধ্যেই টেন্ডার করে কার্পেটিংয়ের কাজ শুরু হবে।