বাড়ি নির্মাণে সাংসদের প্রতিশ্রুতি

আগের সংবাদ

ব্রুনাকে রেখে চীনে নেইমার

পরের সংবাদ

নারী রেসলারদের সংখ্যা বাড়ছে

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ৪, ২০১৮ , ১:২৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: আগস্ট ৪, ২০১৮, ১:৩০ অপরাহ্ণ

রেসলিং কি কোনো খেলা নাকি নিছক অভিনয়- এ নিয়ে নানা বিতর্ক রয়েছে। তবে সে যাই হোক না কেন, বর্তমান প্রজন্ম তা বেশ উপভোগ করছে। বিগ শো, রোমান রেইন্স, আশুকা, নিক্কি বেলা এবং অ্যালেক্সা ব্লিসদের প্রভাব দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের ক্ষুদ্র রাষ্ট্র বাংলাদেশেও পড়েছে। অতীতে নারী রেসলিং ততটা প্রচলিত না থাকলেও সম্প্রতি বিশ্বব্যাপী এর জনপ্রিয়তা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ডব্লিউডব্লিউই শুরুর সময়ে নারী রেসলাররা এতে তেমন অংশ নিত না।

মাত্র ৮-১০ জন তারকাকে দিয়ে প্রতিযোগিতা চালানো হতো। কিন্তু চলমান বিশ্বে এতে নারীদের অংশগ্রহণের মাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে। নারী রেসলারদের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ৫৪ জনে।এ ছাড়া তালিকাভুক্ত আরো অনেক তারকা রয়েছে। নারী রেসলারদের মধ্যে র‌্যাঙ্কিংয়ে এক নম্বরে রয়েছেন জাপানীজ বংশোদ্ভুদ আমেরিকান তারকা আশুকা। আমেরিকান প্রফেশোনাল তারকা অ্যালেক্সা ব্লিস আছেন দ্বিতীয় স্থানে।

এ ছাড়া কয়েকজন জনপ্রিয় নারী রেসলার হলেন- রুন্ডা রশ্মি, সার্লোট ফ্লায়ের, রুবি রিওট, কাইরি সানে, পাইজে, সারাহ লোগান এবং এমবার মুনরা। নিক্কি বেলা আর বিক্কি বেলারাও সম্প্রতি ভালো করছেন।

রেসলিং খেলা অনেক পুরনো। তবে প্রথমদিকে এটা তেমন প্রভাব বিস্তার করতে পারেনি। আর নারী রেসলিং তো আরো নয়। ১৯৮০ সালের দিকে আনুষ্ঠানিকভাবে নারী রেসলিং শুরু হয়। ১৯৮৩ সালে প্রথম চ্যাম্পিয়নশিপের আয়োজন করা হয়। এরপর ধারাবাহিকভাবে বিভিন্ন দেশের জনপ্রিয় রেসলাররা তাদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হয়। আর এখন নারী রেসলিংয়ে যিনি রাজত্ব করছেন তিনি হলেন জাপানীজ তারকা আশুকা। তবে তিনি প্রতিনিধিত্ব করছেন আমেরিকার হয়ে। ১৯৮১ সালের ২৬ সেপ্টম্বর জাপানের ওসাকা শহরে জন্মগ্রহণ করেন। ছোটবেলা থেকেই মারামারি করা পছন্দ করতেন তিনি।

শৈশবে মেয়ে হোক কিংবা ছেলেই হোক না কেন নিজে থেকেই কলহে লিপ্ত হতেন। সেই থেকে রেসলিংয়ের শখ শুরু হয়। জাপানের স্থানীয় এক রেসলিং ক্লাবে প্রশিক্ষণ নেয়া শুরু করেন। প্রশিক্ষণ শেষে জাতীয় পর্যায়ে খেলা শুরু করেন। ক্রমেই অভাবনীয় সাফল্য লাভ করেন। হয়ে যান দেশের সেরা নারী রেসলিং তারকা। দেশ জয়ের পর বিশ্ব জয়ের নেশা লাগে।

২০১১ সালে আমেরিকায় পাড়ি জমান। সে বছরের অক্টোবর মাসে সিম্যার উইমেন অ্যাথলেটে তার অভিষেক হয়। ক্যারিয়ারের প্রথম টুর্নামেন্টে আশানুরূপ সাফল্যও পান।

২০১২ সালে যোগ দেন রেসলিং নিউ ক্লাসিক প্রতিযোগিতায়। আর সর্বশেষ ডবিøউডবিøউই-তে অভিষেক হয় ২০১৫ সালে। প্রথম পর্যায়ে খেলেন এনএক্সটি উইমেন চ্যাম্পিয়নশিপে। ২০১৫ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত খেলেন রয়্যাল রাম্বালে। আর চলতি বছরের শুরুর দিকে স্মাক ডাউনের ক্যারিয়ার শুরু হয়।

রেসলিং ক্যারিয়ারে ৫ বার উইমেন আইরন ম্যান হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করেন। রেইনা বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে একবার শিরোপা জিততে সক্ষম হয়েছেন। দিবা চ্যাম্পিয়নশিপে দুবার এবং দিবা চ্যাম্পিয়নশিপ টুর্নামেন্টে একবার সেরা রেসলার নির্বাচিত হন।

২০১৭ সালে এনএক্সটির শিরোপা জিতেছেন। আর চলতি বছর ডব্লিউডব্লিউই প্রতিযোগিতায় অভিষেক হওয়ার পরই জিতেছেন রয়্যাল রাম্বাল ট্রফি। যেখানে রেসলিং মঞ্চে শীর্ষ প্রতিযোগীদের এক সঙ্গে অংশ নিতে হয়। আর যে রেসলার শেষ পর্যন্ত টিকে থাকতে পারে সেই বিজয়ী ঘোষিত হয়।

  • আরও পড়ুন
  • লেখকের অন্যান্য লেখা