তিন সিটি নির্বাচনে জয়-পরাজয়ের নেপথ্যে

আগের সংবাদ

ফ্রান্সের বিখ্যাত রেনল্ট ব্র্যান্ডের গাড়ি চট্টগ্রামে

পরের সংবাদ

কক্সবাজারে নতুন ১৫ প্লাটুন র‌্যাব

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ১, ২০১৮ , ১১:৩৯ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: আগস্ট ১, ২০১৮, ১১:৩৯ পূর্বাহ্ণ

মিয়ানমার থেকে প্রতিদিন দেশে ঢুকছে ইয়াবাসহ নানা মাদক। বিভিন্ন উপায়ে দিনের পর দিন ছড়িয়ে পড়ছে দেশের নানা প্রান্তে। প্রতিনিয়ত বাড়ছে ইয়াবা আসক্তের সংখ্যা। যার সিংহভাগই তরুণ-তরুণী।

তাই দেশের পরবর্তী প্রজন্মকে মাদকের ভয়াল থাবা থেকে রক্ষায় শুরু হয়েছে মাদকবিরোধী যুদ্ধ। গত ৪ মে থেকে ‘চলো যাই যুদ্ধে, মাদকের বিরুদ্ধে’ স্লোগানে সারাদেশে চলমান মাদকবিরোধী এ অভিযানে মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রায় দু’শতাধিক মাদক সংশ্লিষ্ট লোকজন নিহত হয়েছেন।

কিন্তু এরপরও থামছে না ইয়াবার আগ্রাসন। দেশের কোথাও না কোথাও মাদক ব্যবসায়ী বা বাহক ধরা পড়ছে প্রতিদিন। কিন্তু মূল ব্যবসায়ী, গডফাদার ধরা না পড়ায় টেকনাফের নাফনদ, বঙ্গোপসাগর এবং স্থলভাগ পেরিয়ে প্রতিদিনই ঢুকছে ইয়াবা। ইয়াবা প্রবেশ রোধে টেকনাফে নতুন করে র‌্যাবের ৫টি অস্থায়ী ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। এতে কাজ করছে ১৫ প্লাটুন র‌্যাব সদস্য।

কক্সবাজার শহর ও টেকনাফের বরইতলীতে স্থান নেয়া আগের ২টি এবং নতুন ৫টি ক্যাম্পের পথযাত্রা হিসেবে মঙ্গলবার কক্সবাজার শহর, রামু ও টেকনাফের মহাসড়কসহ মেরিন ড্রাইভে টহল দিয়েছে র‌্যাব সদস্যরা। মঙ্গলবার বিকেলে শহরের কলাতলীর সুগন্ধা পয়েন্ট থেকে শতাধিক গাড়িযোগে টহলটি শুরু হয়ে রামুর মহাসড়ক হয়ে মেরিনড্রাইভ সড়ক দিয়ে টেকনাফ গিয়ে শেষ হয়।

র‌্যাব সূত্র জানায়, মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নিয়ে মাঠে নেমেছে র‌্যাব। নানা কৌশলে তারা দেশ থেকে ইয়াবা নির্মূল করতে কাজ করছে। এজন্যই ইয়াবার ট্রানজিট শহর হিসেবে পরিচিত টেকনাফে র‌্যাবকে শক্তিশালী করতে নতুন ক্যাম্পগুলো স্থাপন করা হয়েছে। কক্সবাজার সদর উপজেলার বিসিক শিল্প নগরী ও টেকনাফের বরইতলী ক্যাম্পের পাশাপাশি টেকনাফ উপজেলার শাহপরীর দ্বীপ, সাবরাং, টেকনাফ পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড, বাহারছড়া ও হোয়াইক্যংয়ে নতুন ক্যাম্পগুলো স্থাপন করা হয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সূত্র জানায়, টেকনাফের তালিকাভূক্ত শীর্ষ ২০ ইয়াবা ব্যবসায়ী সারাদেশের মোট ইয়াবা ব্যবসার ৮০ ভাগ নিয়ন্ত্রণ করে। এ কারণে ট্রানজিট পয়েন্টে নজরদারি বাড়ানো খুব জরুরি। ইয়াবা আগ্রাসন বন্ধ করতেই নতুন ক্যাম্পগুলো বসানো হয়েছে। সূত্র মতে, জেলায় ১ হাজার ১৫১ জন ইয়াবা ব্যবসায়ী আছেন, যাদের মধ্যে টেকনাফ সদরে তালিকাভুক্ত বড় ইয়াবা ব্যবসায়ীর সংখ্যা ১৯৩ জন। তালিকার সবাই ইয়াবা ব্যবসার সঙ্গে সরাসরি জড়িত বলে তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে।