নির্বাচন বানচালে বিএনপি অপপ্রচার চালাচ্ছে : লিটন

আগের সংবাদ

শিল্পকলায় মঞ্চস্থ হলো উদীচীর ‘হাফ আখড়াই’

পরের সংবাদ

দলীয় কোন্দল আর জোটের নিষ্ক্রিয়তায় বিপাকে বুলবুল

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ২২, ২০১৮ , ২:৪৩ অপরাহ্ণ | আপডেট: জুলাই ২২, ২০১৮, ২:৪৩ অপরাহ্ণ

রাজশাহী সিটি করপোরেশন (রাসিক) নির্বাচন উপলক্ষে চলছে জমজমাট প্রচার-প্রচারণা। জমে উঠেছে রাজনৈতিক দলগুলোর বাগযুদ্ধ। আওয়ামী লীগের প্রচারণা যখন সরব, তখন অনেকটাই ঢিমেতালে বিএনপি-জামায়াত। পাশাপাশি মহানগর বিএনপি, যুবদলের মধ্যে ক্ষোভ ও কোন্দল শেষ পর্যন্ত কোনদিকে গড়ায় সেটি নিয়েও শঙ্কিত দলটির নেতাকর্মীরা। এদিকে নির্বাচনকে ঘিরে জামায়াতের প্রকাশ্যে কোনো কর্মকান্ড নেই।
দলীয় সূত্রমতে, মহানগর বিএনপির কমিটি ঘোষণা করা হয় ২০১৬ সালের ২৬ ডিসেম্বর। রাসিক মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকে সভাপতি ও শফিকুল হক মিলনকে সাধারণ সম্পাদক করে ১২ সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয় কেন্দ্র থেকে। কিন্তু ওই কমিটি গঠনের পর মহানগর বিএনপি অফিসে ভাঙচুর, তালা দেয়াসহ নানা অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। তখন থেকে চলছে বিএনপির অন্তর্কোন্দল।
কয়েক দিন আগে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনের মঞ্চেও মাইক ছোড়াছুড়ির ঘটনা ঘটে। মহানগর বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আসলাম সরকারের নাম ঘোষণাকে কেন্দ্র করে সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন মঞ্চে উঠে মাইক ছুড়ে মারেন। তবে ওই ঘটনার পরও একসঙ্গে বসে মহানগর নেতাকর্মীরা আলোচনা সভাসহ নানা কর্মসূচিতে যোগ দিচ্ছেন। কিন্তু ভেতরে ভেতরে এখনো আছে চরম কোন্দল।
তবে দলের মধ্যে কোনো কোন্দল নেই বলে দাবি করেন মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন। তিনি বলেন, এই মুহূর্তে আমাদের মধ্যে কোনো কোন্দল নেই। যারা বলছে সেটি তাদের নিজস্ব মতামত। বিএনপি এখন সংগঠিত দল। কিন্তু আমাদের নির্বাচনে মাঠে নামতে দেয়া হচ্ছে না। এ কারণে আমরা কোনো প্রচার-প্রচারণা চালাতে পারছি না। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের বর্তমান মেয়র ও মহানগর বিএনপির সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল বলেন, আমাদের মধ্যে কোনো কোন্দল নেই। কিন্তু আমাদের তো মাঠে নামতেই দেয়া হচ্ছে না। আমার ব্যানার, পোস্টারগুলোও ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে। প্রচার-প্রচারণা চালাতে গেলেও পুলিশ দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে আমরা কীভাবে নির্বাচনে অংশ নেব? এদিকে রাজশাহী মহানগর জামায়াতের এখন পর্যন্ত কোনো তৎপরতা দেখা যায়নি। নির্বাচনকেন্দ্রিক কোনো সভা ও প্রচারণার খোঁজ পাওয়া যায়নি। রাজশাহী মহানগর নায়েবে আমির আবু মোহাম্মদ সেলিম বলেন, রাজশাহীতে বুলবুলের পক্ষে নামা না নামা কোনো বিষয় না। কারণ, এখানে আমাদের কোনো প্রার্থী নেই। আর কেন্দ্রীয়ভাবে ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী আছেন রাজশাহী মহানগর বিএনপির সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। রাজশাহীতে আমাদের নেতাকর্মীরা বাড়িতেই থাকতে পারছে না। কীভাবে নির্বাচনের মাঠে থাকবে? কাউন্সিলর পদে যারা দাঁড়িয়েছেন তারাও তো প্রচার-প্রচারণা চালাতে পারছেন না। তাহলে মেয়র পদে কীভাবে মাঠে নামবে?