কুড়িগ্রাম-৩ আসনের উপ-নির্বাচন স্থগিত চেয়ে হাইকোর্টে রিট

আগের সংবাদ

শাপলা জাতীয় ফুল হলেও ইদানিং তেমন চোখে পড়ে না

পরের সংবাদ

শিক্ষিকাদের যৌন হয়রানির অভিযোগে অভিযুক্ত শিক্ষক বরখাস্ত

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ১৮, ২০১৮ , ১০:০১ অপরাহ্ণ | আপডেট: জুলাই ১৮, ২০১৮, ১০:০১ অপরাহ্ণ

ময়মনসিংহের ত্রিশালে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে তিন শিক্ষিকাকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে নাট্যকলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রুহুল আমিনকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে অভিযোগকারী তিন শিক্ষিকাও একই বিভাগে পড়ান। তারা উপাচার্য এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান বরাবর লিখিত অভিযোগ দেয়ার পর এই ব্যবস্থা নেয়া হয়।

তিন শিক্ষিকা তাদের অভিযোগে ওই শিক্ষকের আচরণে বিরক্ত হয়ে তার সঙ্গে একাডেমিক কার্যক্রমে অংশ নেওয়া থেকেও বিরত থাকার ঘোষণা দিয়েছিলনে। ।

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ে নানা সমালোচনার পর বুধবার দুপুরে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

নাট্যকলা বিভাগের এক নারী শিক্ষক বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে তিনি (রুহুল আমিন) আমাদের নানাভাবে হয়রানি করে আসছেন। তার অঙ্গভঙ্গিও নোংরা।’

‘প্রায় দেড় মাস আগে আমরা রেজাল্টের কাজ করছিলাম। তিনি (রুহুল আমিন) নম্বর বলছিলেন, আমি পোস্টিং দিচ্ছিলাম। তখন একজন ডেমনোস্ট্রেটরও সেখানে ছিলেন। হঠাৎ তিনি আমার চুল ছুঁয়ে বলেন, ম্যাডাম চুলগুলো অনেক সুন্দর। তাৎক্ষণিক আমি তাকে সাবধান করি।’

‘মঙ্গলবার (১৭ জুলাই) দুপুরে একাডেমিক সভা শেষে পরীক্ষা কমিটির কাজ করার সময় রুহুল আমিন আমার দিকে খারাপ দৃষ্টিতে তাকিয়ে টিপ্পনি কাটেন। আমি সবার সামনেই এই ঘটনার প্রতিবাদ করি। তিনি ক্ষমা চান।’

‘এর কিছুক্ষণ পরই ওই শিক্ষক বিষয়টি আপস-মীমাংসা করতে এসে আমাকে বলেন, ‘আমি রিয়েলি আপনার প্রেমে পড়ে গেছি। এজন্যই বারবার এমন হয়ে যায়। এছাড়া তিনি বিভিন্ন সময় আমার ছবি এডিট করে কুরুচিপূর্ণভাবে পাঠান এবং অশ্লীল কথাবার্তা টেক্সট করেন।’

ভুক্তভোগী শিক্ষিকা বলেন, ‘আমাদের বর্তমান বিভাগীয় প্রধানের সঙ্গেও তিনি একই রকম কাণ্ড ঘটানোর পর আমরা তিন নারী শিক্ষক তার বিরুদ্ধে উপাচার্যের কাছে মঙ্গলবার বিকেলে লিখিত অভিযোগ করেছি।’

এসব বিষয়ে অভিযুক্ত রুহুল আমিনের সঙ্গে মোবাইলে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার হুমায়ুন কবির বলেন, ‘শিক্ষক রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে তিন নারী শিক্ষকের লিখিত অভিযোগ আমরা পেয়েছি। এ অভিযোগ পাওয়ার পর তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। একই সঙ্গে এ অভিযোগ তদন্তের জন্য ৩ সদস্যের একটি কমিটি করে দেওয়া হয়েছে।’

হুমায়ুন কবির বলেন, ‘তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হলে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুযায়ী স্থায়ীভাবে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’