খালেদার রিভিউ আবেদন মুলতবি

আগের সংবাদ

শুক্রবার ঢাকায় আসছেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

পরের সংবাদ

সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচন

উৎসবের আমেজে রাতারাতি পোস্টারের নগরী সিলেট

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ১২, ২০১৮ , ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: জুলাই ১২, ২০১৮, ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ

সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে ঘিরে সিলেটে এখন উৎসবের আমেজ। প্রতীক বরাদ্দের পর মেয়র প্রার্থীদের পাশাপাশি কাউন্সিলর প্রার্থীরাও আঁটঘাট বেঁধে নেমে পড়েছেন প্রচারণায়। একরাতের মধ্যেই নগরীর প্রতিটি অলি-গলি ছেয়ে গেছে প্রার্থীদের পোস্টারে। প্রতিটি সড়ক বিভাজক, বৈদ্যুতিক খুঁটিতে টানানো হয়েছে ব্যানার-ফেস্টুন। ভোর হতে না হতেই এ যেন অন্য নগরী!
গতকাল বুধবার নগরীর কয়েকটি ওয়ার্ড ঘুরে দেখা যায়, অলি-গলি ছেয়ে গেছে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের পোস্টারে। এর পাশাপাশি চলছে মাইকিংও- নানা ঢং-এ সুরে সুরে চলছে প্রার্থী বন্দনা। এদিকে পাড়ায়-মহল্লায় গণসংযোগে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন প্রার্থীরা। এবারই প্রথম দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হওয়ায় মেয়র প্রার্থীদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতারাও। স্থাপন করা হয়েছে মেয়রপ্রার্থীদের প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ও।
গতকাল বুধবার বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী সিলেট নগরীর কোর্ট পয়েন্ট ও বন্দর বাজার এলাকায় গণসংযোগ করেছেন। এসময় তার সাথে ছিলেন সিলেট বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা ডা. শাখাওয়াত হোসেন জীবন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা খন্দকার আবদুল মুক্তাদির, সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপিনেতা কলিম উদ্দিন আহমদ, হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র জিকে গউস, সিলেট মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী হোসেন, মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক আজমল বখত সাদেকসহ বিএনপির অঙ্গসহযোগী সংগঠনসমূহের নেতারা। কোর্ট পয়েন্ট থেকে ৪টি দলে বিভক্ত হয়ে বিএনপির নেতাকর্মীরা লিফলেট বিতরণ ও গণসংযোগ করেন।
অন্যদিকে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী বদর উদ্দিন কামরান প্রচারণা চালান নগরীর রিকাবীবাজার, মধুশহীদ ও কাজলশাহ এলাকায়। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ, ওয়ার্ড কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মইনুল হক ইলিয়াছসহ অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। এসময় তারা নৌকা প্রতীকে কামরানের পক্ষে লিফলেট বিতরণ করেন।
এদিকে প্রার্থীদের থেকেও কয়েকগুণ বেশি ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন ছাপাখানার মালিক-শ্রমিকরা। দিন নেই রাত নেইÑ একটানা চলছে পোস্টার-লিফলেট ছাপার কাজ। কথা বলারও যেন ফুরসৎ নেই তাদের। ছাপাখানা ব্যবসায়ী মেহেদী কাবুল জানান, প্রার্থীদের প্রতীক পাওয়ার পর থেকেই একরকম হুমড়ি খেয়ে পড়েছেন সবাই।
নিয়মিত শ্রমিকে কুলিয়ে উঠতে না পেরে বাইরে থেকেও কয়েকজনকে আনানো হয়েছে, তবুও দম ফেলার সময় নেই। ছাপা শেষ হওয়ার আগেই প্রার্থীদের লোকজন এসে পোস্টারের জন্য তাগাদা দিচ্ছেন। ভোটের আগের দিন পর্যন্তই এরকম অবস্থা চলবে।