সেমিফাইনালে জমবে চার পরাশক্তির লড়াই

আগের সংবাদ

যুক্তরাজ্যের ব্রেক্সিট বিষয়ক মন্ত্রীর পদত্যাগ

পরের সংবাদ

হারলেও খুশি প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী

রাশিয়ায় কান্নার রোল

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ৯, ২০১৮ , ১১:২৫ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: জুলাই ৯, ২০১৮, ১১:২৫ পূর্বাহ্ণ

বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে পড়েছে রাশিয়া। এখানকার সমর্থকদের কাছে আসরের রং কিছুটা হলেও হারিয়েছে। থেমে গেছে স্বাগতিকদের উল্লাস। রাশিয়া বিশ্বকাপে আর থাকবে না লড়াকু ফুটবলের ঝলক। বলা যায়, অনেকটা ভাগ্যদেবীর কাছে হার মেনেছে রাশিয়া। ম্যাচ শেষে গ্যালারির সমর্থকরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। রাশিয়াজুড়েই কান্নার রোল পড়ে যায়। খেলা শেষে একজন আরেকজনকে জড়িয়ে কেঁদেছেন। পরস্পরকে সান্ত্বনা দেয়ার ভাষা ছিল না তাদের। অন্যরকম এক আবেগে ভেসেছে পুরো রাশিয়া।
খেলার পুরো সময় আনন্দ করেছে রাশিয়ানরা। রাস্তায় নেমে এসে দলকে উৎসাহ দিয়েছেন। ঢোল বাজিয়ে, নেচে গেয়ে পুরো আসর মাতিয়েছেন সমর্থকরা। রাশিয়া প্রথম পর্বেই বাদ পড়বে এমনটাই মনে করেছিলেন রাশিয়ান সমর্থকরা। তবে একের পর এক চমক দিয়ে শেষ আটে উঠে আসে দলটি। আর তাতেই সমর্থকদের প্রত্যাশার পাল্লাটা ভারি হতে থাকে।
কিন্তু শেষ পর্যন্ত বিদায়ে কান্নার রোল পড়ে যায় সমর্থকদের মধ্যে।
মস্কোর গণমৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ছেন বাংলাদেশি ছাত্র স্বরূপ দেব। পাঁচ বছর ধরে রাশিয়াতে আছেন তিনি। ক্রোয়েশিয়ার সঙ্গে হেরে যাওয়ার পর জানালেন, রাশিয়াকে এতটা ভালোবাসি তা আগে কখনো অনুধাবন করতে পারিনি। খেলায় হারের পর সেটা বুঝতে পারলাম। প্রিয় দল আর্জেন্টিনার হারের জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত ছিলাম। তাই ওই রকম কষ্টও পাইনি। কিন্তু কালকে আরেক প্রিয় দল রাশিয়া হারবে সেটা ভাবিনি। তাই মন থেকে মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে।
চমক দেখিয়ে বিশ্বকাপের চলতি আসরে নজর কেড়েছিল স্বাগতিক রাশিয়া। তবে কোয়ার্টার ফাইনালে ক্রোয়েশিয়ার কাছে টাইব্রেকারে হেরে গেছে। কিন্তু হারলেও দলের অর্জনে রুশদের পাশাপাশি গর্বিত দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ। মাঠে বসেই ম্যাচটি দেখেন প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ। শক্তিশালী ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে সমানে সমান লড়াই করায় ভীষণ খুশি রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী।
ম্যাচ শেষেই নিজ দেশের খেলোয়াড়দের অভিনন্দন জানাতে তিনি ছুটে যান। সশরীরে গিয়েই রাশিয়ার কোচ স্তানিসলাভ চেরশেসভ ও খেলোয়াড়দের ধন্যবাদ জানান তিনি। আর প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন কোচ এবং খেলোয়াড়দের অভিনন্দন জানিয়েছেন টেলিফোনে। ম্যাচের আগে ও পরে কোচ স্তানিসলাভ চেরশেসভকে দুবার টেলিফোন করেছেন পুতিন। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে প্রেসিডেন্ট-প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন জানানোর কথা জানিয়ে কোচ চেরশেসভ বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী ড্রেসিংরুমেই এসেছিলেন। আর প্রেসিডেন্ট পুতিন দারুণ একটা ম্যাচ খেলার জন্য আমাদের সবাইকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।
কোচের সঙ্গে টেলিফোনে প্রেসিডেন্ট পুতিনের কি কথা হয়েছে? সে বিষয়ে বলেন, প্রেসিডেন্ট বলেছেন, আমরা মাঠে দারুণ দৃঢ়তা দেখিয়েছি। কিন্তু আমি তাকে বলেছি, আমরা হতাশ। তিনি বলেছেন, আমাদের চোখ খোলা রাখতে হবে এবং পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে হবে।
একটু পেছনে ফেরা যাক। ১৯৫৮ থেকে ১৯৭০। টানা চার বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছিল সোভিয়েত ইউনিয়ন। কিন্তু ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে যাওয়ার পর রাশিয়া কখনই উঠতে পারেনি কোয়ার্টার ফাইনালে। তবে এবার স্বাগতিক দেশ হিসেবে গ্যালারি ভর্তি দর্শককে হতাশ করেননি রুশ ফুটবলাররা। রীতিমতো চমক দেখিয়ে ৪৮ বছর পর উঠে এসেছিল শেষ আটের লড়াইয়ে।