আর্থিক খাতের সংস্কার বাস্তবায়নই মূল চ্যালেঞ্জ

আগের সংবাদ

জায়গা দখল করে দিতে কোটি টাকার চুক্তি করে পুলিশ!

পরের সংবাদ

নিউইয়র্কে আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের গোলটেবিল বৈঠক

প্রকাশিত হয়েছে: জুন ৯, ২০১৮ , ১১:৪০ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: জুন ৯, ২০১৮, ১১:৪০ পূর্বাহ্ণ

শামীম আহমেদ

শামীম আহমেদ

যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি নিউইয়র্ক থেকে

মিডিয়ার মধ্যে রেষারেষি নয়, পেশাগত প্রতিযোগিতা বাড়ুক। ব্যক্তির প্রতিযোগিতা দেখতে চাই না। সাংবাদিকদের দায়িত্বশীল সাংবাদিকতাই দেখতে চায় সকলে। কমিউনিটি সাংবাদিকতায় অনেক প্রতিবন্ধকতা আছে। নানা প্রতিবন্ধকতা উত্তরণে সাংবাদিক তথা মিডিয়া কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়া জরুরি। বক্তারা আরো বলেন, পাঠকদেরও উচিত ভাল-মন্দ সাংবাদিকতার বিচার করা। সমাজে পরিশীলিত ও বুদ্ধিবৃত্তিক সংবাদপত্র পাঠকের মান ও মনন বাড়াতে সাহায্য করে। এই কথাগুলো আলোচিত হয়েছে আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের গোল টেবিল বৈঠকে। গত ৫ জুন বিকেলে নিউইয়র্কে উডসাইডে গুলশান ট্যারেস মিলনায়তনে এই গোল টেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত অধিকাংশ পত্রিকার সম্পাদক-মিডিয়া কর্মী এবং কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ ও পেশাজীবী মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন। ঢাকা থেকে আগত বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও ঢাকা মহানগর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালাম এবং যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান কমিউনিটি সাংবাদিকতার ওপর বক্তব্য রাখেন। এই গোল টেবিল বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভাপতি দর্পণ কবীর এবং সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক শওকত ওসমান রচি। গোল টেবিল বৈঠকের বিষয় ছিল-কমিউনিটি সাংবাদিকতার দায়িত্ব ও প্রতিবন্ধকতা।
প্রতিপাদ্য বিষয়ের ওপর প্রথম বক্তব্য রাখেন আজকাল পত্রিকার সম্পাদক ও প্রবীণ সাংবাদিক মনজুর আহমদ। এরপর বক্তব্য রাখেন বাংলা পত্রিকার সম্পাদক ও টাইম টিভির সিইও আবু তাহের, জেবিবিএ’র সভাপতি শাহ নেওয়াজ, আজকাল পত্রিকার প্রধান সম্পাদক জাকারিয়া মাসুদ জিকো, ঠিকানা পত্রিকার সম্পাদক মÐলীর সভাপতি ও ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক এবং সাবেক সাংসদ এম.এম. শাহীন, বাংলাদেশ পত্রিকার সম্পাদক ও নিউইয়র্ক বাংলাদেশ পত্রিকার সভাপতি ডা. ওয়াজেদ এ খান, জন্মভূমি পত্রিকার সম্পাদক রতন তালুকদার, পরিচয় পত্রিকার সম্পাদক ও আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি নাজমুল আহসান, এটর্নী মীর মিজানুর রহমান, প্রবাস পত্রিকার সম্পাদক মোহাম্মদ সাঈদ ও যুক্তরাষ্ট্র বিএনপ ‘র নেতা গিয়াস আহমেদ। আলোচনা সভার পর ইফতার পূর্ব দোয়া পরিচালনা করেন দেশকণ্ঠ পত্রিকার সম্পাদক মÐলীর সভাপতি আবু জাফর মাহমুদ। কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তি ও সুধীজন এ সভায় উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে মনজুর আহমদ বলেন, বিগত দিনের চেয়ে বর্তমান সময়ে নিউইয়র্কে মিডিয়া জগতে উত্তরণ ঘটেছে। পাঠক বেড়েছে. পত্রিকা বেড়েছে, বিজ্ঞাপন বেড়েছে। পত্রিকা প্রকাশনার কাজ সহজ হয়েছে এবং স্থানীয় লেখকও বেড়েছে। একইসঙ্গে নিম্নমানের পত্রিকাও বের হচ্ছে। পাঠককে ভাল ও মন্দ মানের পত্রিকা সম্পর্কে সচেতন হতে হবে। ভালকে গ্রহণ ও খারাপকে বর্জন করতে হবে। তিনি আরো বলেন, সমাজ পরিবর্তনে সাংবাদিকদের দায়িত্ব অনেক। পরিশীলিত ও বুদ্ধিবৃত্তিক সাংবাদিকতা কমিউনিটিতে বেশি প্রয়োজন। এ ধরনের সাংবাদিকতা বা মিডিয়া পাঠকের মান ও মনন বাড়াতে পারে। তিনি বলেন, নিউইয়র্কের সাংবাদিকদের বেতন কাঠামো ও ছুটি-ছাটা নির্ধারণ করা উচিত।
আবু তাহের বলেন, কমিউনিটিতে সাংবাদিকের দায়িত্ব মিল বা অমিল এবং ভাল বা খারাপ তুলে ধরা। গঠনমূলক সাংবাদিকতায় জনমত গঠন করেন সাংবাদিকরা। বিবেকের দায়বদ্ধতা থেকে সাংবাদিকরা এ কাজ করছেন। তিনি আরো বলেন, সাংবাদিকতার প্রতি মমত্ববোধ থাকতে হবে। এই মহৎ পেশায় শুধু অর্থ খুঁজলে হবে না।
এম. এম. শাহীন বলেন, নিউইয়র্কে বাংলাদেশি কমিউনিটিকে এগিয়ে নিয়ে যাবার দায়িত্ববোধ থেকে পত্রিকা বের করেছিলাম। সে সব দিন ছিল অনেক দুঃষহ, কষ্টদায়ক। অনেক প্রতিবন্ধকতা ছিল। এতো বছর পর আমরা কী দেখছি? দেখছি রেষারেষি। তিনি বলেন, কমিউনিটি সাংবাদিকতায় পেশাগত প্রতিযোগিতা দেখতে চাই। ব্যক্তির প্রতিযোগিতা দেখতে চাই না। মিডিয়ায় অশুভ প্রতিযোগিতা চলছে। তিনি আরো বলেন, নিউইয়র্কে আমরা সাংবাদিকতার প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেখতে চেয়েছিলাম। এখন তা আছে কিনা, জানি না।
ডাঃ ওয়াজেদ এ খান বলেন, কমিউনিটি সাংবাদিকতাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হলে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। একে-অন্যের বিরুদ্ধে কথা বলা উচিত নয়। নানা প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে কমিউনিটিতে সাংবাদিকরা তাদের দায়িত্ব পালন করছেন। আমাদের বিভিন্ন সময় নানা সমস্যা বা প্রতিবন্ধকতা মোকাবেলা করতে হচ্ছে। পত্রিকা বেশি হওয়ায় বিজ্ঞাপনের বাজার সীমিত হয়ে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, মিডিয়ার কারণে ব্যবসা ও শিক্ষার প্রসার ঘটছে।
রতন তালুকদার বলেন, এই কমিউনিটির কাছে সাংবাদিকরা জিম্মি। সাংবাদিকদের অনেক সতর্কতার সঙ্গে পা ফেলতে হয়। অনেক কিছু ভেবে-চিন্তে লিখতে হয়। বিজ্ঞাপন দাতাদের সঙ্গে সখ্যতা রাখতে হয়। আবার সিরিয়াস কোন ছাপা হলে হুমকি পান সাংবাদিকরা। নানা প্রতিবন্ধকতা রয়েছে কমিউনিটি সাংবাদিকতায়।
মোহাম্মদ সাঈদ বলেন, কমিউনিটিতে সাংবাদিকতায় আমাদের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। প্রতিবন্ধকতাও রয়েছে। এই প্রতিবন্ধকতা মোকাবেলা করতে হলে আমাদের আত্ম-সমালোচনা করতে হবে।
বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা আব্দুস সালাম বলেন, নিউইয়র্কে সাংবাদিকদের এক রকম সমস্যা, আর বাংলাদেশের সাংবাদিকদের আরেক রকম সমস্যা। অনেক কষ্ট করে এই প্রবাসে বিভিন্ন মিডিয়া গড়ে উঠেছে। আমি মনে করি, যত প্রতিবন্ধকতা হোক, সাংবাদিকরা দায়িত্ব পালনে অটল থাকবেন।
যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, অনেক সময় কমিউনিটিতে মিডিয়া বিভক্তিতে ইন্ধন যোগায়। এক সময় দুটি পত্রিকা প্রকাশ হতো নিউইয়র্কে। ঐ দুটি পত্রিকার কারণে ফোবানা খন্ডিত হয়েছিল। এর দায়ভার আমারও রয়েছে।
অনুষ্ঠানে আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহ-সভাপতি বেলাল আহমেদ (বর্তমান বাংলা), যুগ্ম সম্পাদক মনজুরুল হক মনজু (প্রথম আলো,) কোষাধ্যক্ষ মশিউর রহমান মজুমদার (বর্ণমালা), নির্বাহী সদস্য আবু বকর সিদ্দিক (আজকাল) ও রফিকুল ইসলাম রফিক (টিবিএন-২৪ টিভি), সদস্যদের মধ্যে শাহাব উদ্দিন সাগর (আজকাল), শামীম আল আমীন (টিবিএন-২৪ টিভি), এ হাই স্বপন (আজকাল), তাওহিদা সুমি (আজকাল), এস. এম. সারোয়ার (প্রবাস), মল্লিকা খান মুনা (অননিউজ২৪.কম), পাপিয়া বেগম (প্রবাস), আলমগীর হোসেন (বাংলাদেশ পত্রিকা), তফাজ্জল লিটন (প্রথম আলো), সীমা সুস্মিতা (দেশকণ্ঠ), তাপস কুমার সাহা (দেশকণ্ঠ)।
এ ছাড়া মিডিয়া কর্মীদের মধ্যে নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শিবলী চৌধুরী কায়েস ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবিএম সালাহউদ্দিন, সৈয়দ ইলিয়াস খসরু, হাসানুজ্জামান সাকি, কানু দত্ত এবং কমিউনিটি-রাজনৈতিক ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সভাপতি নার্গিস আহমেদ ও তাঁর স্বামী ফার্মাসিষ্ট মোশতাক আহমেদ, রিয়েল স্টেট ইনভেস্টর মো: আনোয়ার হোসেন ও মইনুল ইসলাম, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ, ব্যবসায়ী ও জেবিবিএ’র সভাপতি শাহ নেওয়াজ, বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমীন সিদ্দিকী,বিএনপি নেতা গিয়াস আহমেদ, যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সভাপতি জাকির এইচ চৌধুরী, শাহ. জে চৌধুরী, প্রকৌশলী নির্মল পাল, চিকিৎসক শান্তা পাল, এটর্নী মীর মিজানুর রহমান, দোহার উপজেলা সমিতির সভাপতি দুলাল বেহেদু, কাজী আশরাফ হোসেন নয়ন, মূলধারার রাজনীতিবিদ মোর্শেদ আলম, ড্রামা সার্কেলের সভাপতি আবীর আলমগীর প্রমুখ।