নির্বাচনকেন্দ্রিক রাজনৈতিক বাজেট : সালেহউদ্দিন আহমেদ

আগের সংবাদ

বাজেট বাস্তবায়ন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ : মোস্তাফিজুর রহমান

পরের সংবাদ

প্রস্তাবিত বাজেট গতানুগতিক ধারার : জাহিদ হোসেন

প্রকাশিত হয়েছে: জুন ৮, ২০১৮ , ১২:০৪ অপরাহ্ণ | আপডেট: জুন ৮, ২০১৮, ১২:০৪ অপরাহ্ণ

বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশ অফিসের প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন বলেছেন, গতানুগতিক ধারায় এবারের প্রস্তাবিত বাজেট। কারণ বরাবরের মতো এবারের বাজেটেও কিছু লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে, কিছু সংস্কারের কথা বলা হয়েছে যার কোনো সময়সীমা নেই, নেই কোনো প্রতিশ্রæতি। গতকাল বৃহস্পতিবার বাজেট প্রতিক্রিয়ায় ভোরের কাগজকে তিনি এসব কথা বলেন।
ড. জাহিদ হোসেন বলেন, সঞ্চয়পত্র থেকে ঘাটতি পূরণের কথা প্রস্তাব করা হয়েছে। কিন্তু সঞ্চয়পত্রের কিছু সংস্কারের কথা বলা হয়েছেÑ যা সুস্পষ্ট নয়। সঞ্চয়পত্রের সুদহার বেশি হওয়ায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি বিক্রি হয়। এতে সরকারের ঋণের বোঝা বাড়ে।
তিনি বলেন, করপোরেট কর কমানোর কথা আলোচনায় ছিল। কিন্তু শুধু ব্যাংক খাতে করপোরেট কর আড়াই শতাংশ হারে কমানো হয়েছে। এই করহার শুধু ব্যাংকের জন্য কেন কমানো হলো তা সুস্পষ্ট নয়। করপোরেট হার সাধারণত কমানো হয় বিদেশি বিনিয়োগ আর্কষণ করার জন্য। আমাদের দেশে ব্যাংকের সংখ্যা অনেক বেশি। সে তুলনায় ব্যাংক খাতে বিদেশি বিনিয়োগের প্রয়োজন নেই। বর্তমানে ব্যাংকিং খাতে লুটপাট চলছে, যার সঙ্গে স্বয়ং ব্যাংকের পরিচালকরা জড়িত। এই অবস্থায় শুধু ব্যাংক খাতে করপোরেট কর কমানো কতটা যৌক্তিক তা নিয়েও প্রশ্ন উঠতে পারে।
তিনি বলেন, বাজেট বাস্তবায়নের বিষয়ে ছোটখাটো সমস্যাগুলোর কথা বলা হয়েছে। তাও সুস্পষ্ট নয়। এ ছাড়া বাস্তবায়নে আরো বড় বড় সমস্যা রয়েছে যেগুলো চিহ্নিত করা হয়নি। তবে বাজেটে বিদেশি অর্থায়নের যে প্রাক্কলন ধরা হয়েছে তা অর্জনযোগ্য। তবে রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনযোগ্য নয়। অন্যান্য বছরের তুলনায় কিছুটা কম জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের লক্ষ্যমাত্রা।
ড. জাহিদ হোসেন বলেন, বাজেটের ভালো দিক হলো দেশীয় শিল্পকে সুরক্ষা দিতে কয়েকটি পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। আশা করি, এগুলো ফলপ্রসূ হবে।