মাসটেক্সের এমডির দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা

আগের সংবাদ

নেপালের পাহাড়ে বিমান বিধ্বস্ত, নিহত দুই পাইলট

পরের সংবাদ

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ

বশিরের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে অতিষ্ঠ সাতকানিয়াবাসী

প্রকাশিত হয়েছে: মে ১৬, ২০১৮ , ৮:১৮ অপরাহ্ণ | আপডেট: মে ১৬, ২০১৮, ১০:১৯ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় এক ইউপি চেয়ারম্যান হত্যা মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি সন্ত্রাসী বশির আহমেদ এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালালেও তাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করছে না বলে অভিযোগ করেছেন বশিরের হাতে নির্যাতিত ভুক্তভোগীরা। বুধবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে সরওয়ার কামাল নামে এক ভুক্তভোগী বলেন, ১৯৯৯ সালে আওয়ামী লীগ নেতা ও সাতকানিয়া উপজেলার সোনাকানিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এই হত্যা মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত পলাতক আসামি এই বশির। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে আরো কয়েকটি মামলা রয়েছে। পুলিশের খাতায় পলাতক আসামি হলেও তিনি প্রতিদিনই দলের সভা-সমাবেশসহ বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন। কিন্তু পুলিশ তাকে খুঁজে পায় না। আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতাদের ছত্রছায়ায় সাতকানিয়ায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করছেন বশির আহমদ ও তার বাহিনী। অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়, সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে চাঁদা, খাল দখল করে স্থাপনা নির্মাণ, বালুমহাল দখল করে বাণিজ্যসহ নানা অপকর্ম করছেন তিনি। তার ভয়ে সপরিবারে এলাকা ছেড়ে শহরে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন অনেকে। তার এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে অভিযোগ দেয়া হলেও রহস্যজনক কারণে নীরবতা পালন করছে প্রশাসন। সরওয়ার কামাল বলেন, এলাকায় বশির প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও হামলার শিকার হয়ে উল্টো তাকেই পালিয়ে বেড়াতে হচ্ছে। বশিরের ২৫-৩০ জনের একটি ক্যাডার বাহিনীর কাছে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের আগ্নেয়াস্ত্র। এ বাহিনীর অন্যতম ক্যাডার হিসেবে রয়েছে মানিক হোসেন ওরফে ঠোঁট কাটা মানিক, হারুনর রশিদ, আবুল ফয়েজ টুনু, মানিক ও আবছার। তাদের সবার বিরুদ্ধেও রয়েছে সাতকানিয়া থানায় একাধিক মামলা। এত অভিযোগ প্রসঙ্গে বশির আহমদ ভোরের কাগজকে বলেন, আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ করা হচ্ছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। এসব রাজনৈতিক হয়রানিমূলক মামলা। রাজনীতি করি বলেই অনেকে মিথ্যা অভিযোগ দেন। আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালান। আমি কোনো অপকর্মের সঙ্গে জড়িত নই।