পরিকল্পিত নগরায়নে বড় ধরনের নৈতিক পরিবর্তন আনা দরকার

আগের সংবাদ

ভারতে বাস উল্টে নিহত ২০

পরের সংবাদ

কতবার জেলে দেবেন, কতজনকে মারবেন, গুম করবেন?

প্রকাশিত হয়েছে: মে ৩, ২০১৮ , ৮:২১ অপরাহ্ণ | আপডেট: মে ৩, ২০১৮, ৮:২১ অপরাহ্ণ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যের জবাবে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘আপনি তো এমনিতেই সবাইকে জেলে ঢুকিয়ে দিচ্ছেন। নির্বাচন করা আর না করা তো পরের ব্যাপার।

তিনি বলেন, ‘সংকটের সমাধান করেন, তারপর নির্বাচনে যান। কিছুই না করে যদি নির্বাচনে যান তাহলে নির্বাচন কি হবে? যা হবার তাই হবে। যেটা করেছেন ২০১৪ সালে তাই হবে। এবার এদেশের মানুষ এই ধরনের নির্বাচন মেনে নেবে না- এটা পরিস্কার। কতবার জেলে দেবেন, কতজনকে মারবেন, কতজনকে গুম করবেন? করতে পারেন, এবার এই ধরনের নির্বাচন এদেশের মানুষ মেনে নেবে না।’

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে মুক্ত গণমাধ্যম দিবস-২০১৮ উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে বিএনপি সমর্থিত ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় হয় বিএনপির মহাসচিব এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা নির্বাচন সম্পর্কে খুব স্পষ্ট কথা বলতে চাই। খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। নির্বাচনকালীন সময়ে নিরপেক্ষ সরকার থাকতে হবে, সংসদ ভেঙে দিতে হবে, সেনাবাহিনী মোতায়েন এবং সব রাজনৈতিক দলের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড থাকতে হবে।’

‘বিএনপি ক্ষমতায় গেলে দেশে অন্ধকার নেমে আসবে’ প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দেশ তো এখন অন্ধকার গহ্বরের দিকে চলে গেছে। বরং বিএনপি আসলে দেশ আলোকিত হয়, মুক্ত করে দেয়। বিএনপি বহু দলীয় গণতন্ত্র মুক্ত করে দিয়েছে, সংবাদ পত্রের স্বাধীনতা দিয়েছে, যেটা আপনারা বন্ধ করে দিয়েছিলেন।’

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারকে ওয়ান ইলেভেনের সেনাসমর্থিত সরকারের প্রতিনিধিত্বকারী উল্লেখ করে ফখরুল বলেন, ‘ওই সময়ে উনারা (আওয়ামী লীগ) তৎকালীন ওয়ান ইলেভেন সরকারকে আন্দোলনের ফসল বলেছিল।’

গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে জাতীয় ঐক্যের বিকল্প নেই উল্লেখ করে দলটির জ্যেষ্ঠ এই নেতা বলেন, ‘একটি বিষয় নিয়ে এই আন্দোলন-সংগ্রামকে জয়ের দিকে নিয়ে যেতে হবে- তা হচ্ছে গণতন্ত্রকে মুক্ত করার সংগ্রাম।’

খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ১৯ জন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তারের ঘটনার নিন্দা জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আজকে সারা শহরে পুলিশ দিয়ে দিয়েছে। খুলনা বাইরে কেউ সেখানে গেলে তাকে ধরা হবে। এটা নির্বাচনের কোন আইনে আছে, কোথায় আছে?’

বিএফইউজের (একাংশ) সভাপতি রুহুল আমিন গাজীর সভাপতিত্বে ও ডিইউজের সহসভাপতি শাহীন হাসনাতের পরিচালনায় আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন- সাংবাদিক নেতা শওকত মাহমুদসহ এম আবদুল্লাহ, কাদের গনি চৌধুরী, শহীদুল ইসলাম, ইলিয়াস খান প্রমুখ।